১৩ কার্তিক  ১৪২৭  শুক্রবার ৩০ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

এবার থেকে হাই স্পিড ট্রেনের সব কোচই এসি! ভাড়া কত বাড়বে, জানাল রেল

Published by: Biswadip Dey |    Posted: October 11, 2020 6:44 pm|    Updated: October 11, 2020 6:44 pm

An Images

প্রতীকী ছবি।

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: উচ্চগতির ট্রেনগুলির (High speed trains) ক্ষেত্রে সমস্ত নন-এসি কোচ সরিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনার কথা জানাল ভারতীয় রেল (Indian Railways)। যে সমস্ত ট্রেন ঘণ্টায় ১৩০ থেকে ১৬০ কিলোমিটার গতিবেগে চলে, তাদের সেই ট্রেনগুলিতে এবার থেকে সব এসি কোচ থাকবে, এমনই পরিকল্পনা রেলের। এই ধরনের ট্রেনে আর কোনও স্লিপার কোচও থাকবে না। তবে রেল মন্ত্রকের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, এটা কেবল মাত্র উচ্চগতিসম্পন্ন ট্রেনগুলির ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য হবে। যে সমস্ত মেল ও এক্সপ্রেস ট্রেনের সর্বোচ্চ গতি ১১০ কিমি প্রতি ঘণ্টা, সেগুলির ক্ষেত্রে অবশ্যই স্লিপার কোচ যেমন ছিল তেমনই থাকবে।

কিন্তু কেন এই ট্রেনগুলিতে কেবল এসি কোচই রাখার কথা ভাবা হচ্ছে? রেল মন্ত্রকের মুখপাত্র জানিয়েছেন, ‘‘১৩০ কিমি প্রতি ঘণ্টা কিংবা তারও বেশি গতির ট্রেনের ক্ষেত্রে কেবল এসি কোচ রাখাটা প্রযুক্তিগতভাবে বাধ্যতামূলক হয়ে উঠেছে। বাতাস এবং আবহাওয়া সংক্রান্ত ফ্যাক্টরের ফলে কেবলমাত্র নির্দিষ্ট ধরনের কোচই উচ্চগতির ট্রেনে থাকা উচিত। তাই ভারতীয় রেল এই ধরনের ট্রেনের ক্ষেত্রে এমন পরিকল্পনা করেছে। ’’

[আরও পড়ুন: নন-বুলেটপ্রুফ ট্রাকে জওয়ানরা! রাহুলের পোস্ট করা ভিডিও’র সত্যতা যাচাই করবে CRPF]

কিন্তু এই নতুন এসি কোচের ভাড়া কি বেশি হবে? এ বিষয়ে রেলের আশ্বাস, ভাড়া বাবদ যাত্রীদের খুব বেশি খরচ করতে হবে না। বরং এই ট্রেনগুলিতে যাত্রীরা আরও আরামে ভ্রমণ করতে পারবেন। এই নতুন এসি কোচের ভাড়া হবে এসি-৩ চেয়ার কারের ভাড়ার সমতুল্য। প্রসঙ্গত, বর্তমানে অধিকাংশ মেল ও এক্সপ্রেস ট্রেনের সর্বোচ্চ গতি ১১০ কিমি প্রতি ঘণ্টা। রাজধানী, শতাব্দী কিংবা দুরন্ত এক্সপ্রেসের সর্বোচ্চ গতি ১২০ কিমি প্রতি ঘণ্টা। তবে এই ধরনের ট্রেনের রেকগুলি ১৩০ কিমি প্রতি ঘণ্টায় গতিতে চলার ক্ষমতা রাখে।

[আরও পড়ুন: হাথরাসের নির্যাতিতার বাড়িতে ‘সন্দেহজনক’ মহিলার যাতায়াত! চক্রান্তের অভিযোগ পুলিশের]

বর্তমানে এই নতুন ধরনের এসি কোচ রেলের কারখানায় তৈরি করা হচ্ছে। স্লিপার কোচে যেথানে ৭২টি বার্থ থাকে, সেখানে এই নতুন কোচে থাকবে ৮৩টি বার্থ। এবছরের মধ্যে ১০০টি এই ধরনের কোচ তৈরি করতে চায় রেল। আগামী বছরের মধ্যে তা বাড়িয়ে ২০০ করার কথা ভাবা হচ্ছে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement