BREAKING NEWS

৩০ আশ্বিন  ১৪২৮  রবিবার ১৭ অক্টোবর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

পাকিস্তানিদের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে বিকানের ছাড়ার নির্দেশ জেলাশাসকের

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: February 19, 2019 3:55 pm|    Updated: February 19, 2019 4:58 pm

Leave in 2 days order to Pakistanis

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: পাকিস্তানের নাগরিকদের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে রাজস্থানের বিকানের ছাড়ার নির্দেশ দিলেন জেলাশাসক। গত বৃহস্পতিবার দক্ষিণ কাশ্মীরের পুলওয়ামার অবন্তিপোরায় সিআরপিএফ কনভয়ের হামলা চালায় পাকিস্তানের মদতপুষ্ট জইশ জঙ্গিরা। এর ফলে শহিদ হন ৪৯ জন জওয়ান। এর প্রেক্ষিতে গতকাল বিকানের প্রশাসনের তরফে সিআরপিসি-র ১৪৪ ধারা অনুযায়ী একাধিক নির্দেশ জারি করা হয়।

সেখানে পাকিস্তানের নাগরিকদের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে এলাকা ছাড়ার নির্দেশের পাশাপাশি বিকানেরের হোটেল ও লজগুলিতে তাদের প্রবেশের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে। ভারতের নাগরিকদের কাছেও অনুরোধ করা হয়েছে যে তাঁরা যেন কোন পাকিস্তানির সঙ্গে ব্যবসায়িক সম্পর্ক না রাখে বা তাদের কোনও চাকরি না দেয়।

[বন্দুক হাতে নিলে খতম করা হবে, কড়া বার্তা সেনার]

ওই নির্দেশে আরও উল্লেখ করা হয়েছে যে পাকিস্তান থেকে অচেনা কোনও ফোন কল এলে সেনা বা কোনও স্পর্শকাতর বিষয়ে যেন কেউ কথা না বলে। পাকিস্তানের সিম থেকেও বিকানের জেলার কোন ব্যক্তি যেন কোনও ফোন না করে। এই নির্দেশ দু’মাসের জন্য মানতে হবে বলেও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। তবে বিদেশ মন্ত্রকের রেজিস্ট্রেশন অফিসারের কাছে যে সমস্ত পাকিস্তানি নিজেদের নাম নথিভুক্ত করেছেন তাঁদের ক্ষেত্রে এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে না বলে জানা গিয়েছে।

[‘এক চড়েই শিউরে উঠেছিল মাসুদ আজহার’, দাবি প্রাক্তন গোয়েন্দার]

বৃহস্পতিবার পুলওয়ামার জম্মু-শ্রীনগর হাইওয়ের উপর সিআরপিএফের ৭৪টি গাড়ির কনভয়কে টার্গেট করে জইশ জঙ্গিরা। কনভয়ে ছিলেন কমপক্ষে ২৫০০ জন জওয়ান৷ কনভয়টি যখন দক্ষিণ কাশ্মীরের অবন্তিপোরা দিয়ে যাচ্ছিল তখন আচমকাই ৩৫০ কেজি বিস্ফোরক বোঝাই একটি গাড়ি নিয়ে তার মধ্যে ঢুকে পড়ে এক জঙ্গি৷ সোজা গিয়ে ধাক্কা মারে জওয়ানদের একটি বাসে৷ সঙ্গে সঙ্গে তীব্র বিস্ফোরণ ঘটে। বিস্ফোরণের পর নিরাপত্তা বাহিনীকে লক্ষ্য করে জঙ্গিরা গুলি চালায় জঙ্গিরা৷ যাতে এখনও পর্যন্ত শহিদ হয়েছেন ৪৯ জন জওয়ান৷ ২০১৬-র উরির হামলার পর, এটিই ভারতীয় সেনার উপর সবচেয়ে বড় জঙ্গি হামলা৷ হামলার কিছুক্ষণ পরেই এর দায় স্বীকার করে জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মহম্মদ৷ নাম উঠে আসে আত্মঘাতী জইশ জঙ্গি আদিল আহমেদের৷

[‘আলোচনার দিন শেষ, এখন অ্যাকশনের সময়’, কড়া হুঁশিয়ারি প্রধানমন্ত্রীর]

তারপরই দেশজুড়ে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান সর্বস্তরের মানুষ। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং সরাসরি পাকিস্তানকে দায়ী করে চরম ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দেন। মোস্ট ফেভারড নেশনের তকমাও ছিনিয়ে নেওয়া হয় তাদের থেকে। পাকিস্তান থেকে আসা পণ্যের উপর চাপানো হয় ২০০ শতাংশ শুল্ক।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে

Advertisement

Advertisement