২১  আষাঢ়  ১৪২৯  বুধবার ৬ জুলাই ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

রক্ষকই ভক্ষক! পরিচারিকার বেদম প্রহারে মস্তিষ্কে আঘাত, হাসপাতালের ICU-তে ভরতি শিশু

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: February 5, 2022 2:20 pm|    Updated: February 5, 2022 2:30 pm

Maid thrashes toddler mercilessly that sends the baby admitted into ICU, arrested | Sangbad Pratidin

ছবি: প্রতীকী

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: এ যেন রক্ষকই ভক্ষক। যার উপর ভরসা করে বাচ্চাকে দেখভালের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল, সেই মহিলার হাতে মার খেয়েই শিশুর জীবন বিপন্ন। মহিলার ব্যাপক প্রহারে মস্তিষ্কে চাপ পড়ে হাসপাতালের আইসিইউ-তে (ICU) ভরতি ৮ মাসের শিশু। গুজরাটের (Gujarat) সুরাটে এই ঘটনায় দিকে দিকে নিন্দায় মুখর সকলে। মা-বাবার অভিযোগের ভিত্তিতে ওই পরিচারিকাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ধৃতের বাম কোমল চান্ডেলকর। 

সুরাটের (Surat)পালানপুর পাটিয়া এলাকার বাসিন্দা ৮ মাসের শিশুর পরিবার। মা, বাবা দু’জনই চাকরিজীবী। তাই সন্তানকে দেখভালের জন্য এক পরিচারিকাকে নিয়োগ করেছিলেন মাস তিনেক আগে। জানা গিয়েছে, প্রতিবেশীরা অভিযোগ করেন, প্রায়শয়ই বাড়ি থেকে চিৎকার-চেঁচামেচি শোনা যাচ্ছে। তাতে সতর্ক হয়েই অভিভাবকরা বাড়িতে সিসিটিভি বসান। বাচ্চা এবং তার পরিচারিকার উপর নজরদারির জন্য। তাতেই ধরা পড়ে পরিচারিকার নৃশংস অত্যাচার।

[আরও পড়ুন: ফের বেপরোয়া গাড়ির দৌরাত্ম্য, কাঁকুড়গাছিতে ম্যাটাডোরের চাকায় পিষ্ট মহিলা]

দেখা গিয়েছে, কখনও বাচ্চাটির মাথা বারবার ঘুরিয়ে প্রচুর মারধর করা হচ্ছে। কখনও আবার বিছানার মধ্যে মাথা বারবার ঠুকছে। আর তাতেই শিশুর মস্তিষ্কে গুরুতর চোট লাগে। CCTV-তে এসব দেখে শিউড়ে ওঠেন মা, বাবা। সন্তানকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভরতি করানোর পর চিকিৎসকদের প্রাথমিক ধারণা, তার ব্রেন হেমারেজ (Brain Hemorrhage)হয়েছে। শিশুর বাবা মিতেশ প্যাটেল পরিচারিকা কোমলের বিরুদ্ধে থানায় খুনের চেষ্টার অভিযোগ দায়ের করেন। তার ভিত্তিতেই পরিচারিকাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।  সন্তানের স্বাস্থ্য় নিয়ে চিন্তার পাশাপাশি মা, বাবার বাড়তি ভাবনা, এবার থেকে কোন ভরসায় বাচ্চাকে দেখার জন্য পরিচারিকা নিয়োগ করবেন। 

[আরও পড়ুন: তৃণমূলের প্রার্থীতালিকায় চমক, কামারহাটি পুরভোটে লড়ছেন মদন মিত্রের পুত্রবধূ]

পুলিশ জানিয়েছে, ৫ বছরের বিবাহিত জীবন অভিযুক্ত পরিচারিকা কোমলের। কিন্তু কোনও সন্তানাদি হয়নি। তাই বাচ্চাদের দেখভালের কাজ করেন ভালবেসেই। পুলিশের অনুমান, নিজের হতাশা থেকেই ছোটদের উপর এহেন অত্যাচার করে ফেলেছে। যদিও যা করেছে, তা বর্বরোচিত। সেই কারণেই গ্রেপ্তারির পর কড়া শাস্তির দাবি উঠছে নানা মহলে।  

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে