BREAKING NEWS

২৬ বৈশাখ  ১৪২৯  সোমবার ১৬ মে ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

১২ ঘণ্টা অতিক্রান্ত, দিল্লিতে বিধ্বংসী আগুন নিয়ন্ত্রণে আসরে বায়ুসেনার চপার

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: May 30, 2018 10:03 am|    Updated: May 30, 2018 10:03 am

Massive fore raging in Delhi’s Malviya Nagar, IAF joins ops

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মঙ্গলবার বিকেলে আগুন লাগার পর ১২ ঘণ্টা পেরিয়ে গিয়েছে। কিন্তু রাজধানী দিল্লির মালব্যনগরের একটি রবার ও প্লাস্টিক কারখানার আগুন এখনও পর্যন্ত সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়নি। এখনও দাউদাউ করে জ্বলছে আগুন। গোটা আকাশ ছেয়ে গিয়েছে কালো ধোঁয়ায়। আগুন নেভানোর লাগাতার প্রচেষ্টা চলছে। ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে বায়ুসেনার এমআই-১৭ হেলিকপ্টারও।

[যোগীর রাজ্যে ফের ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত বিজেপি বিধায়ক]

মঙ্গলবার বিকেল ৪ টে ১৭ মিনিট নাগাদ দক্ষিণ দিল্লির মালব্যনগরের একটি কারখানা বিংধ্বসী আগুন লাগার খবর পায় দমকল বাহিনী। কারখানার ঠিক পাশেই দাঁড়িয়ে থাকা একটি ট্রাকে প্রথমে আগুন লাগে। সেখান থেকেই তা ছড়িয়ে পড়ে গোটা গোডাউনে। কারখানায় রবার ও প্লাস্টিকের কাঁচামাল মজুত থাকার কারণে খুব তাড়াতাড়ি আগুন ছড়িয়ে যায়। আগুন এতটাই বিধ্বংসী রূপ ধারণ করে যে ওই কারখানার পাশের স্কুল ও একটি জিমের খানিকটা অংশও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে খবর। ঘটনাস্থলে ৩৫টি ইঞ্জিন আগুন নেভানোর চেষ্টা চালাচ্ছে। যুদ্ধকালীন তৎপরতায় চলছে কাজ। বায়ু সেনার এমআই-১৭ চপারের সাহায্যেও আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা চালানো হচ্ছে। ইতিমধ্যেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে গিয়েছেন আম আদমি পার্টির নেতা সোমনাথ ভারতী। কারখানাটি বেআইনিভাবে চলছিল কিনা তা খতিয়ে দেখা হবে জানিয়েছেন তিনি।

[বাজ পড়ে ভয়াবহ আগুনে ভস্মীভূত দুটি দোকান, ক্ষতির পরিমাণ লক্ষাধিক]

দিল্লির দমকল আধিকারিকরা জানিয়েছেন, আশেপাশের বাসিন্দাদের সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এলাকা খালি করার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে কারখানার আশেপাশের রাস্তাও। এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কোনও প্রাণহানির ঘটনা ঘটেনি। তবে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার মোকাবিলায় নেমে তীব্র ধোঁয়ায় অচেতন হয়ে পড়েন দিল্লি দমকল বাহিনীর প্রধান অতুল নাগ। দমকলের তরফে আরও জানানো হয়েছে, এই মরশুমে এমন বিধ্বংসী আগুন লাগার ঘটনা আর ঘটেনি।কারখানার পিছনেই একটি বেসরকারি স্কুল রয়েছে। তাই ঘটনাটি স্কুল চলাকালীন ঘটলে শিশুদের সেখান থেকে বের করা অত্যন্ত কঠিন কাজ হত বলেই দাবি দমকল কর্মীদের। তবে তেমনটা না হওয়ায় কোনও প্রাণহানি হয়নি। কিন্তু স্কুলের একটি অংশ আগুনে পুড়ে ভেঙে পড়েছে।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে