BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

স্বস্তি! হরিয়ানার কোয়ারেন্টাইন সেন্টার থেকে উত্তরপ্রদেশে বাড়ি ফিরলেন পরিযায়ী শ্রমিকরা

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: May 4, 2020 7:25 pm|    Updated: May 4, 2020 7:25 pm

An Images

ফাইল ছবি

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বাড়ি ফিরলেন উত্তরপ্রদেশের ৩৫ জন পরিযায়ী শ্রমিক। হরিয়ানার কোয়ারেন্টাইন সেন্টার থেকে বাড়ি ফিরলেন তারা। লকডাউনের আবহে ভিন রাজ্য থেকে বাড়ি ফিরতে পেরে মুক্তির স্বাদ পেলেন তাঁরা।

Migrant-labour

৯০৩ কিলোমিটারের রাস্তা পেরিয়ে উত্তরপ্রদেশের পশ্চিমে গোরক্ষপুরে ফিরলেন পরিয়ায়ী শ্রমিকের দল। লকডাউন শুরু হওয়ার পরই কর্মসূত্রে ভিন রাজ্যে গিয়ে আটকে পড়েন পরিযাযী শ্রমিকের দল। একদিকে কাজ নেই অন্যদিকে বন্ধ বাড়ি ফেরার পথও। এমতাবস্থায় কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয় তাঁদের। তবে দীর্ঘদিনের কোয়ারেন্টাইন পর্ব মিটিয়ে রাজ্যে ফিরলেন ৩৫ জন পরিযায়ী শ্রমিক। তাঁদের জন্য বাসের বন্দোবস্ত করে দেয় হরিয়াণা প্রসাশন। জানা যায়, পাঞ্জাবে কাজ করতে গিয়ে আটকে পড়লে তাদের সেখান থেকে হরিয়াণার কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। পেশায় রাজমিস্ত্রি অশোক জানান, “সরকার নিজে উদ্যোগ নিয়ে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার থেকে আমাদের বাড়িতে ফিরতে সাহায্য করায় আমরা খুব খুশি। আমাদের বাসে করে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য কোনও টাকা চাওয়া হয়নি। এমনকি বাসটিকে মাঝপথে দাঁড় কিয়ে আমাদের খাওয়ানো হয়। বাসে বিস্কুট জলের বন্দোবস্তও করা হয়।” অশোকের মত এরকম বহু পরিযায়ী শ্রমিকদের ফিরিয়ে আনা হয়েছেন তাঁদের বাড়িতে। অশোক আরও জানান, “লকডাউনের ঘোষণা শুনেই আমরা বাড়ি ফেরার জন্য উদ্যত হয়েছিলাম। সাইকেল চালিয়ে ৩০ এপ্রিল রাতেই আমরা বাড়ি ফেরার প্রস্তুতি নিই। তবে রাস্তায় এত বেশি পুলিশের নাকা চেকিং চলছিল তারা বার বার আমাদের আটকায়। আমার মনে আছে আমি ব্যাগ মাথায় নিয়ে সাইকেল কোলে তুলে নদী পার হয়ে হরিয়াণা পৌঁছই। সেখানের এক পুলিশ আধিকারিক আমাদের সাহায্য করেন। তিনি আমাদের খেতে দেন। এরপর তিনি হরিয়াণা-উত্তরপ্রদেশ সীমান্তের কাছে থেকে আমাদের বাসের ব্যবস্থা করে দেন।”

[আরও পড়ুন:‘বাংলায় করোনায় মৃতের হার সর্বাধিক’, মুখ্যসচিবকে কড়া চিঠি কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দলের]

ইতিমধ্যেই উত্তরপ্রদেশে সরকার ৪ লাখ পরিয়ায়ী শ্রমিকদের দিল্লি, হরিয়াণা, রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ থেকে ফিরিয় এনেছেন। এখনও বহু পরিযায়ী শ্রমিকরা বাসে করে ফিরছেন। তবে তারা ফেরার পর সকলের শারীরিক পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে নির্দারিত করা হচ্ছে যে তারা আইসোলেশনে যাবেন না কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে থাকবেন। তবে বাড়ি ফেরার পর তারা কী কাজ করবেন সেই নিয়ে এখন চিন্তায় রয়েছেন।

[আরও পড়ুন:ঝাঁকাভরতি ফুচকা পড়ে দালানেই, লকডাউনে সংসার অচল ‘ফুচকা গ্রামের’ বাসিন্দাদের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement