BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

সিনেমা হলে বাধ্যতামূলক নয় জাতীয় সংগীত, রায় সুপ্রিম কোর্টের

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 9, 2018 10:08 am|    Updated: January 9, 2018 10:08 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কেন্দ্রের সুপারিশ মেনেই সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দিল সিনেমা হলে জাতীয় সংগীত বাধ্যতামূলক নয়। ২০১৬-এর নভেম্বরে ঠিক এর বিপরীত রায় ছিল দেশের সর্বোচ্চ আদালতের। সোমবার তা রদ করতে আরজি জানায় কেন্দ্র। আজ সে সুপারিশ মেনে নেওয়া হল।

কেন্দ্রের ডিগবাজি, এবার সিনেমা হলে জাতীয় সংগীত বাধ্যতামূলক না করার আরজি ]

৩০ নভেম্বর, ২০১৬। ঐতিহাসিক রায়ে সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দিয়েছিল, প্রত্যেক সিনেমা হলে সিনেমা শুরুর আগে জাতীয় সংগীত বাজানো বাধ্যতামূলক। এবং সেই সময় পর্দায় জাতীয় পতাকার প্রদর্শন হবে। দর্শকদের উঠে দাঁড়িয়ে শ্রদ্ধা জানাতে হবে। এই নিয়ম বলবত হওয়ার পর থেকেই নানা বিতর্ক জমে ওঠে। কখনও প্রতিবন্ধীরা নিগ্রহের শিকার হন। কখনও আবার কেউ স্বেচ্ছায় উঠে না দাঁড়িয়ে বিদ্রুপ ও নির্যাতনের শিকার হন। নানা সমালোচনার মুখে প্রতিবন্ধীদের ক্ষেত্রে উঠে দাঁড়ানোয় ছাড় দেওয়া হয়। কিন্তু তাতেও নানা অপ্রীতিকর ঘটনা এড়ানো যায়নি। এরপরই গতবছর সুপ্রিম কোর্ট জানায়, সিনেমা হলে জাতীয় সংগীত চলাকালীন কাউকে উঠে দাঁড়ানোর জন্য জোর করা যাবে না। সভ্য দেশে এরকম নীতি পুলিশির কোনও দরকার নেই। কেউ উঠে দাঁড়ালেই তিনি দেশভক্ত, নইলে নয়, এরকম সমীকরণে ঘোর আপত্তি ছিল সর্বোচ্চ আদালতের।

[  গ্যাস সিলিন্ডার বুকিং আরও সহজ, ফেসবুক-টুইটারেই এবার সুযোগ ]

সোমবারই এ ব্যাপারে সুপ্রিম কোর্টে একটি হলফনামা জমা দেয় কেন্দ্র। সেখানে পুরনো রায় পুনর্বিবেচনার আরজি জানানো হয়। জাতীয় সংগীতের প্রতি অপমান রোখার ক্ষেত্রে এখন যা নিয়ম আছে, তাতে কোনও সংশোধন আনা প্রয়োজন র কিনা তা একটি কমিটি খতিয়ে দেখবে বলেও জানানো হয় আদালতকে। তারপরই মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দেয়, সিনেমা হলে জাতীয় সংগীত বাধ্যতামূলক নয়। তবে তার মানে এই নয় যে, জাতীয় সংগীতের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন কমে যাবে। সর্বোচ্চ আদালত জানিয়েছে, নাগরিকরা যাতে যথাযথ ক্ষেত্রে জাতীয় সংগীতের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করেন, তা নিশ্চিত করতে। এবং কেন্দ্রের প্রস্তাবিত কমিটিই যেন সেই দিকটি ঠিকঠাক করে দেখে। তবে এই রায়ের পর সিনেমা হলে জাতীয় সংগীত ও চাপিয়ে দেওয়া দেশপ্রেম নিয়ে যা বিতর্ক ছিল, সেসবে ইতি পড়ল।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement