BREAKING NEWS

১৪ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  বুধবার ১ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

দেশজুড়ে পালিত জাতীয় শিশুকন্যা দিবস, শুভেচ্ছা জানালেন প্রধানমন্ত্রী

Published by: Paramita Paul |    Posted: January 24, 2020 4:18 pm|    Updated: January 24, 2020 4:18 pm

National Girl's Day celebrated allover the Country, PM wished everyone.

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দেশজুড়ে পালিত হল জাতীয় শিশুকন্যা দিবস। ২৪ জানুয়ারি সকালেই টুইট করে দেশবাসীকে অভিনন্দন জানান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দেশের অগ্রগতি ও উন্নয়নে মেয়েদের ভূমিকার কতটা, তা ব্যাখা করেন তাঁরা। এদিন জাতীয় শিশুকন্যা দিবসের পাশাপাশি শিক্ষা দিবসও বটে। রাজ্যে শিক্ষার পরিবেশ কতটা উন্নত হয়েছে, তা পরিসংখ্যান দিয়ে তুলে ধরেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

এখনও ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে আকছার কন্যাভ্রণ হত্যা ঘটছে। আবার কখনও পণের দাবিতে, তো কখনও আবার গার্হস্থ্য হিংসার শিকার হচ্ছেন মেয়েরা। তাই দেশের মেয়েদের বাঁচাতে কেন্দ্রীয় প্রকল্প চালু হয়েছে ‘বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও’।রাজ্যে মেয়েদের ক্ষমতায়নের জন্য মুখ্যমন্ত্রী চালু করেছেন কন্যাশ্রী প্রকল্প।শহর থেকে গ্রাম বাংলা, রাজ্যে প্রান্তিক এলাকার মেয়েরাও এই প্রকল্পের সুবিধা পেয়েছেন। এই প্রকল্পের হাত ধরে বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন তাঁরা। ইতিমধ্যে বিশ্ব দরবারে সম্মানিতও হয়েছে মুখ্যমন্ত্রীর স্বপ্নের এই প্রকল্প। \

[আরও পড়ুন: কেরল-পাঞ্জাবের পর এবার রাজস্থান, বিধানসভায় পেশ CAA বিরোধী প্রস্তাব]

এদিন নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি লেখেন, ” জাতীয় শিশুকন্যা দিবসে দেশের মেয়েদের সাফল্য, সম্মান, লড়াই ও শক্তিকে কুর্নিস জানাই। মেয়েরা সাফল্য পেলে তবেই দেশের মুখ উজ্জল হবে।” একই সুরে দেশের মেয়েদের লড়াইকে সম্মান জানিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে তিনি লেখেন, “আজ জাতীয় শিশুকন্যা দিবস। বাংলার কন্যাশ্রী প্রকল্পের মাধ্যমে ৬০ লক্ষেরও বেশি মেয়ের ক্ষমতায়ন হয়েছে। আমরা গর্বিত যে ২০১৭ সালে এই প্রকল্পের সুদূরপ্রসারী প্রভাবকে সম্মান জানিয়ে রাষ্ট্রসঙ্ঘ জনসেবার ক্ষেত্রে প্রথম পুরস্কার দেয় কন্যাশ্রী প্রকল্পকে।” একইসঙ্গে টুইটারে রাজ্যে শিক্ষার পরিবেশের মানোন্নয়নের তথ্য ও তুলে ধরেন। সেখানে তিনি লেখেন, “আজ আন্তর্জাতিক শিক্ষা দিবস। ২০১১ থেকে বাংলায় শিক্ষার পরিকাঠামোয় ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। গত সাড়ে আট বছরে আমরা ২৮টি নতুন বিশ্ববিদ্যালয় ও ৫০টি নতুন কলেজ স্থাপন করেছি। ১১টি আরও নতুন বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ চলছে।”

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে