১৪ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

গরুর ক্ষতি করার সাহস কারও নেই, হুঁশিয়ারি যোগী আদিত্যনাথের

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: November 6, 2017 9:01 am|    Updated: June 1, 2019 7:59 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:  উত্তরপ্রদেশের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি উন্নতি ঘটানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু, তা তো হয়ইনি, উলটে মহিলাদের শ্লীলতাহানি, ধর্ষণের মতো ঘটনা বেড়েছে। সম্প্রতি মাত্র কয়েক সপ্তাহের ব্যবধানে আক্রান্ত হয়েছেন তিন জন বিদেশি পর্যটকও। তবে সেসব নিয়ে অবশ্য কোনও ভ্রুক্ষেপ নেই উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের। বরং গরুদের নিরাপত্তা দিতেই বেশি আগ্রহী তিনি। যোগী আদিত্যনাথের হুঁশিয়ারি, উত্তরপ্রদেশ এমন কেউ নেই, যে গরুর কোনও ক্ষতি করার সাহস দেখাতে পারে।

[একধাক্কায় অনেকটাই বাড়ছে রেলের ভাড়া, মাথায় হাত মধ্যবিত্তের]

কেন্দ্রে ক্ষমতায় আসার পর বেআইনি গো-হত্যা রুখতে পশুহাটে গবাদি পশু বিক্রিতে যেমন নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে মোদি, তেমনই যোগী জমানায় ‘গো-সম্পদ’ রক্ষা করতে সরকার নানা পদক্ষেপ নিয়েছে উত্তরপ্রদেশে। চলতি বছরে মুখ্যমন্ত্রী কুর্সিতে বসার পরই, উত্তরপ্রদেশের বেআইনি জবাই বন্ধের নির্দেশ দিয়েছিলেন যোগী আদিত্যনাথ। এমনকী, শুধুমাত্র গরুদের জন্য আলাদা অ্যাম্বুলেন্স চালু করার উদ্যোগ নিয়েছে উত্তরপ্রদেশ সরকার। কিন্তু, এতকিছুর পর গরু পাচার বন্ধ করা যাচ্ছে না বলে অভিযোগ। কোনও কোনও মহল থেকে অভিযোগ উঠেছে, উত্তরপ্রদেশ থেকেই নাকি সবচেয়ে গরু পাচার হয়ে যাচ্ছে।  রবিবার লখনউতে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের গৌরক্ষা বিভাগ আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এই বিষয়ে মুখ খুললেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। তাঁর দাবি, এটা বলা একেবারেই ঠিক নয়, যে উত্তরপ্রদেশ থেকে বিপুল পরিমাণ গো-মাংস বাইরে পাচার হচ্ছে। উত্তরপ্রদেশ থেকে এক টুকরো গো-মাংসও পাচার করা সম্ভব নয়। এটা পুরোপুরি নিষিদ্ধ। কারও গো-মাংস পাচার করার স্পর্ধা নেই। মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের কথায়, ‘মেরে ফেলা তো অনেক দূরের ব্যাপার, কোনও ব্যক্তি যদি গরুর সঙ্গে নিষ্ঠুর আচরণ করেন, তাহলে তাঁকে জেলে পোরা হবে।’  তাঁর সরকারই প্রথম বেআইনি কসাইখানার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে বলেও দাবি করেন যোগী আদিত্যনাথ।

[ফের চালু হতে চলেছে ভারত-পাক দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও বাস পরিষেবা]

প্রসঙ্গত, যোগী জমানায় বেআইনি কসাইখানা বন্ধ হওয়ার পর, নানা বিপত্তিও ঘটেছে উত্তরপ্রদেশে। কয়েক মাস আগে যেমন ফসল বাঁচাতে গরুর পালকে স্থানীয় একটি স্কুলে বন্দি করতে রাখতে বাধ্য হন স্থানীয় বাসিন্দারা। তারদেরে পড়াশোনা লাঠে ওঠে। মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ অবশ্য জানিয়েছেন, উত্তরপ্রদেশের গরুদের জন্য তৃণভূমি শনাক্ত করেছে সরকার। তৃণভূমি থেকে বেআইনি দখলদারদেরও উচ্ছেদ করা হয়েছে।

[রাজধানী, শতাব্দী দেরি করলে যাত্রীদের এসএমএস পাঠাবে রেল]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement