BREAKING NEWS

৪ মাঘ  ১৪২৭  সোমবার ১৮ জানুয়ারি ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

২০ বছরের আনুগত্যের পুরস্কার! বিজেপিতে যোগ দিয়েই বড় পদ পেতে পারেন মোদি ‘ঘনিষ্ঠ’ আমলা

Published by: Paramita Paul |    Posted: January 14, 2021 3:24 pm|    Updated: January 14, 2021 3:26 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: টানা কুড়ি বছর নরেন্দ্র মোদির (Narendra Modi) বিশ্বস্ত সঙ্গী। এবার সেই আনুগত্যের ‘পুরস্কার’ পাওয়ার পালা! তাই সরকারি চাকরি ছেড়ে রাজনীতির মঞ্চে পা রাখলেন প্রাক্তন সরকারি আমলা অরবিন্দ কুমার শর্মা। বৃহস্পতিবার যোগ দিলেন বিজেপিতে। সূত্রের খবর, দলে বড় পদ পেতে পারেন তিনি।

গেরুয়া শিবির সূত্রের খবর, উত্তরপ্রদেশের বিধান পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারেন অরবিন্দ। যোগীর মন্ত্রিসভায় গুরুত্বপূর্ণ পদও পেতে পারেন তিনি। বছর ঘুরলেই সে রাজ্যেও বিধানসভা নির্বাচনের ঢাকে কাঠি পড়বে। তাই তার আগে অরবিন্দের মতো দক্ষ আমলাকে মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত করতে চাইছেন যোগী আদিত্যনাথও। উল্লেখ্য, চলতি মাসের ২৯ তারিখ উত্তরপ্রদেশের বিধান পরিষদের ১২ আসনে নির্বাচন রয়েছে।

[আরও পড়ুন : মরণেও ‘মৃত্যুহীন’! ভারতের সর্বকনিষ্ঠ অঙ্গদাতা ছোট্ট ধনিষ্ঠাই হাসি ফোটাল পাঁচ মুমূর্ষূর মুখে]

অরবিন্দ কুমার শর্মা ১৯৮৮ সালের গুজরাট ক্যাডারের আইএএস (IAS) অফিসার। আদপে তিনি উত্তরপ্রদেশেরই আদি বাসিন্দা। ২০০১ সালে গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রীর সচিব হিসেবে যোগ দেন অরবিন্দ। সে বছরই মুখ্যমন্ত্রী পদে বসেন নরেন্দ্র মোদিও। ২০১৪ সালে মুখ্যমন্ত্রী পদে ইস্তফা দেওয়ার আগে পর্যন্ত মোদির একান্ত আস্থাভাজন ছিলেন এই আমলা। এই সময়কালে গুজরাট পরিকাঠামো উন্নয়ন বোর্ডের মুখ্য কর্মকর্তা ছিলেন তিনি অরবিন্দ।

২০১৪ সালে দিল্লির কুরসিতে বসার নিজের আস্থাভাজন আমলাকে দূরে সরিয়ে রাখেননি মোদি। ২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে যোগ দেন অরবিন্দ। সরকারি সূত্রে খবর, হাতেগরম ফল মিলবে এই ধরণের প্রকল্পের পরিকল্পনা ও তার দ্রুত বাস্তবায়নই এই সরকারি আমলার বিশেষত্ব। আর তাঁর এই কাজের ধরণ বিশেষ পছন্দ ছিল প্রধানমন্ত্রীর। তাই মোদির বিশ্বাস জিতে নিতে বিশেষ দেরি হয়নি তাঁর।

[আরও পড়ুন : আপাতত কৃষি আইনের সমর্থনে প্রচার নয়, হরিয়ানার নেতাদের নির্দেশ শাহর! তুঙ্গে জল্পনা]

কোভিড পরিস্থিতিতে এক কঠিন পরীক্ষার মুখে ফেলা হয় অরবিন্দকে। মহামারী ও লকডাউনের জেরে মুখ থুবড়ে পড়েছিল দেশের ছোট, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প। সেই সময় অরবিন্দকে ওই মন্ত্রকের সচিব করে পাঠানো হয়। সরকারি সূত্রে খবর, এই পদক্ষেপের ফলও পেয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। গত সপ্তাহে আচমকাই স্বেচ্ছাবসর নেন তিনি। এই সিদ্ধান্তে তাঁর ঘনিষ্ঠমহলের অনেকেই অবাক হয়েছিলেন। তবে তাঁর এই পদক্ষেপের নেপথ্য কারণ স্পষ্ট হয়ে গেল বৃহস্পতিবার।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement