BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

চিনের দাবি ওড়াল ভারত, লাদাখ থেকে সম্পূর্ণভাবে সেনা প্রত্যাহার হয়নি, জানাল কেন্দ্র

Published by: Paramita Paul |    Posted: July 31, 2020 8:56 am|    Updated: July 31, 2020 9:09 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: চিনের (China) ভুল শুধরে দিল ভারত। দিন দুয়েক আগেই বেজিংয়ের তরফে দাবি করা হয়েছিল, লাদাখের (Ladakh) ভারত-চিন সীমান্ত থেকে দু’দেশই সম্পূর্ণভাবে সেনা প্রত্যাহার করেছে। কিন্তু উপগ্রহ চিত্রের সঙ্গে চিনের (China) দাবি মিলছিল না। সেই গড়মিল কাটিয়ে বৃহস্পতিবার ভারতীয় বিদেশমন্ত্রক (MEA) জানিয়ে দিল, দু দেশেই পূর্ব লাদাখের সীমান্ত এলাকা থেকে সেনা সরানোর কাজ শুরু করেছে। কিন্তু সেখান থেকে সম্পূর্ণভাবে সেনা প্রত্যাহারর এখনও হয়নি। যদিও এই বিবৃতির পর চিনের তরফে কোনও মন্তব্য করা হয়।

গত তিন মাস ধরে পূর্ব লাদাখে (Ladakh) প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা (LAC) বরাবর ভারত-চিনের মধ্যে টানাপোড়েন চলছে। ক্রমাগত সেনা, যুদ্ধের অত্যাধুনিক সরঞ্জাম মজুত করছিল লালফৌজ (PLA)। আলোচনা করেও সমস্যা মেটানো যায়নি। বরং দুপক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ২০ জন ভারতীয় সেনা শহিদ হন। চিনের তরফে ক্ষয়ক্ষতি হয়। এরপর থেকেই উত্তেজনা প্রশমন দুদেশের মধ্যে বিভিন্ন স্তরে আলোচনা চলছে। 

[আরও পড়ুন : মায়ানমার সীমান্তে জঙ্গিদের সঙ্গে গুলির লড়াই, শহিদ অসম রাইফেলসের ৩ জওয়ান]

দিন কয়েক আগে চিন (China) দাবি করেছিল, প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর দুদেশেই সম্পূর্ণভাবে সেনা প্রত্যাহার করে ফেলেছে। এরপর বৃহস্পতিবার বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব জানিয়েছেন, “সেনা প্রত্যাহারের কাজ কিছুটা এগিয়েছে। কিন্তু সম্পূর্ণভাবে শেষ হয়নি।” তিনি আরও জানান, ভারত-চিন, দুদেশের মধ্যে প্রশাসনিক ও সেনাস্তরে আলোচনা চলছে। আমাদের আশা, চিনা সেনা সীমান্তে শান্তি ফেরানোর বিষয় আমাদের সম্পূর্ণভাবে সাহায্য করবে। দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক মজবুত করার লক্ষ্যে আমরা একাধিক পদক্ষেপ করছি। 

[আরও পড়ুন : রাম মন্দিরের ভূমিপুজোর আগেই করোনা আক্রান্ত দায়িত্বে থাকা পুুরোহিত]

প্রসঙ্গত, এর আগেও বারবার বেজিংয়ের (Bejing) তরফে সেনা  প্রত্যাহারের দাবি করা হয়েছে। কিন্তু উপগ্রহ চিত্র উলটো কথাই জানিয়েছে।  এবার দিন দুয়েক আগে এক ভারচুয়াল সাংবাদিক বৈঠকে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা (LAC) থেকে সম্পূর্ণ সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা করেছিল চিন (China)। কিন্তু সেটাও যে স্রেফ দাবি, বাস্তবের সঙ্গে তার কোনও মিল নেই, তা আরও এখবার স্পষ্ট করে দিল ভারতীয় বিদেশমন্ত্রক (MEA)। 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement