১১ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

পর্যাপ্ত শিক্ষক নেই, বন্ধ হতে চলেছে ৮০০টি সরকারি প্রাথমিক স্কুল

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: October 21, 2017 2:51 pm|    Updated: October 21, 2017 2:51 pm

Punjab: govt decides to close 800 government primary schools

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:  রাজ্যের  অনেক স্কুলে যেমন প্রয়োজনের তুলনায় শিক্ষক কম,  তেমনি বহু স্কুলে আবার পর্যাপ্ত সংখ্যক পড়ুয়া নেই। এই পরিস্থিতিতে শিক্ষকদের সঠিকভাবে ব্যবহার করতে এক অভিনব সিদ্ধান্ত নিয়েছে পাঞ্চাব সরকার। ঠিক হয়েছে, ২০ বা তার কম পড়ুয়া রয়েছে, এমন ৮০০টি সরকারি স্কুলকে সংশ্লিষ্ট এলাকার অন্য সরকারি স্কুলের সঙ্গে মিশিয়ে দেওয়া হবে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে এই সংযুক্তিকরণ প্রক্রিয়া সেরে ফেলতে হবে জেলার শিক্ষা আধিকারিকদের। এমনই নির্দেশিকা জারি করেছেন পাঞ্জাবের প্রাথমিক শিক্ষা দপ্তরের ডিরেক্টর।

[মুম্বইয়ের রাস্তায় বেধড়ক মার কিশোরীকে, ভাইরাল ভিডিও]

জানা গিয়েছে, এই ৮০০টি সরকারি স্কুলে ১৬০০ জন শিক্ষক রয়েছেন। সংযুক্তিকরণের পর, যে সব স্কুলে শিক্ষকদের প্রয়োজন সবচেয়ে বেশি, সেই সব স্কুলে এই শিক্ষকদের নিয়োগ করা হবে। বস্তুত, ইতিমধ্যেই ২০ জন বা তার কম পড়ুয়া আছে, এমন ৮০০টি সরকারি প্রাথমিক স্কুল চিহ্নিত করে ফেলেছে শিক্ষা দপ্তর। শিক্ষা দপ্তর সূত্রে খবর, অমৃতসরের ৩০টি, গুরদাসপুরের ১৩৩টি, পাতিয়ালার ৫০টি জলন্ধরের ৫৪টি, কাপুরথালা ও ফতেগড় শাহিবের ৪১টি-সহ আরও বেশ কয়েকটি প্রাথমিক স্কুলকে এই সংযুক্তিকরণ প্রক্রিয়ার আওতায় আনা হবে। উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, এই ৮০০টি স্কুলের মধ্যে ৪৭টি  স্কুলে পাঁচজন পড়ুয়াও নেই। ১৫টি স্কুলে তো আবার পড়ুয়ার সংখ্যা তিন বা তারও কম! তবে স্কুল সংযুক্তিকরণই নয়, সামগ্রিকভাবে পাঞ্জাবে প্রাথমিক শিক্ষার মান বাড়ানোর শিক্ষামন্ত্রী অরুণ চৌধুরী সরকারি প্রাথমিক স্কুলগুলিতে প্রাক-প্রাথমিক স্তরের পঠন-পাঠনও চালুর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষা দপ্তরের এক আধিকারিক। পাশাপাশি, প্রাথমিক স্কুলগুলিতে ন্যূনতম পরিকাঠামো তৈরির জন্য  বাজেটে আলাদা অর্থ বরাদ্দের সংস্থান তৈরি করেছে পাঞ্জাব সরকার।

[‘খুনি, গণধর্ষণকারী’ টিপু সুলতানের জন্মদিনের অনুষ্ঠানে ‘না’ কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর]

যদিও পাঞ্জাবে সরকারের স্কুল সংযুক্তিকরণ-সহ প্রাথমিক শিক্ষা সংক্রান্ত সরকারি সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছে বিরোধীরা। সরকারের সমালোচনায় সরব শিক্ষক সংগঠনগুলিও। পাঞ্জাবের বিরোধী দলনেতা সুখপাল সিং কয়রার বক্তব্য, প্রাথমিক স্কুলের সংযুক্তিকরণের সিদ্ধান্ত শিক্ষার অধিকার আইনের পরিপন্থী। কারণ প্রাথমিক স্কুলের সংযুক্তিকরণের পর, পড়ুয়াদের অনেকটা দুরত্ব অতিক্রম করে স্কুলে যেতে হবে। অন্যদিকে পাঞ্জাবের গভর্মেন্ট টিচার্স ইউনিয়নের সভাপতি বলবিন্দর সিং ভুট্টোর অভিযোগ, সরকার শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নতিসাধনের কথা বলছে। কিন্তু, ঘটনা হল ছয় মাস হতে চলল, এখনও বেশিরভাগ সরকারি স্কুল ও প্রাথমিক স্কুলের পড়ুয়ারা পাঠ্যবই-ই পায়নি।

[এবার যোগীর রাজ্যেই গুলি করে খুন আরএসএস কর্মীকে]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে