৩০ ভাদ্র  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল: প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার আওতায় তৈরি বাড়িগুলি থেকে সরাতে হবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর ছবি। নির্দেশ দিল মধ্যপ্রদেশ হাই কোর্ট। এর আগে রাজ্য সরকার প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার আওতায় তৈরি বাড়িগুলিতে নরেন্দ্র মোদি এবং মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহানের ছবি রাখা বাধ্যতামূলক করেছিল। বুধবার সেই নির্দেশ খারিজ করে দিল মধ্যপ্রদেশ হাই কোর্ট।

[এনআরসি ইস্যুতে স্বস্তি বাদ পড়া নাগরিকদের, ফের করা যাবে আবেদন]

ইউপিএ আমলে একটি প্রকল্প চালু করেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং। যে প্রকল্পের আওতায় দারিদ্রসীমার নিচে বসবাসকারী প্রত্যেক পরিবারকে বাড়ি তৈরির জন্য আর্থিক সাহায্য দেওয়া হত। প্রকল্পটির নাম দেওয়া হয়েছিল ইন্দিরা আবাস যোজনা। মোদি সরকার আসার পর সেই প্রকল্পটির নিয়মাবলীতে কিছু পরিবর্তন করা হয়। নাম পরিবর্তন করে ইন্দিরা আবাস যোজনা হয় প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনা। মধ্যপ্রদেশ সরকার নির্দেশিকা জারি করেছিল, যারা যারা এই প্রকল্পের আওতায় অনুদান পাবেন, তাদের বাড়ি বানানোর সময় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহানের ছবি লাগানো টাইল ব্যবহার করতেই হবে। অর্থাৎ, প্রতিটি বাড়িতে থাকবে প্রচুর মোদি-শিবরাজের ছবি। সরকারের এই নির্দেশিকায় যারপরনাই ক্ষোভ প্রকাশ করে বিরোধী কংগ্রেস। তারা অভিযোগ করে, এই উদ্ভট নির্দেশিকা জারি করে আসলে আসন্ন বিধানসভা ও লোকসভার প্রচার সেরে ফেলতে চাইছে বিজেপি।তাছাড়া অনুদান প্রাপকদেরও এতে অপমান করা হচ্ছে।

[‘বিজেপি নেত্রীদের ধর্ষণ করলেই পুরস্কার ২০ লক্ষ টাকা’]

এই নির্দেশের বিরুদ্ধে হাই কোর্টে জনস্বার্থ মামলা করেন জনৈক এক সমাজসেবী। সেই মামলার ভিত্তিতে রাজ্যকে তিরস্কার করে হাই কোর্ট। চাপে পড়ে মধ্যপ্রদেশের বিজেপি সরকার জানায়, তারা আগের নির্দেশ প্রত্যাহার করছে। টাইলে কারও ছবি থাকা বাধ্যতামূলক নয়। তাতেও আদালতের রোষের মুখে পড়তে হয় মধ্যপ্রদেশ সরকারকে। আদালত সাফ জানিয়ে দেয়, রাজ্যকে নিশ্চিত করতে হবে সরকারি প্রকল্পের আওতার কোনও বাড়ির টাইলে প্রধানমন্ত্রী বা মুখ্যমন্ত্রীর ছবি যেন না থাকে। শুধুমাত্র প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার লোগোর ছবি লাগানো থাকবে বাড়িগুলিতে।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং