১২ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

পৃথক রেল বাজেট বন্ধ করার প্রস্তাব

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: June 23, 2016 2:43 pm|    Updated: June 23, 2016 3:44 pm

An Images

দেবশ্রী সিনহা: তবে কি আগামী বছর থেকে পেশ হবে না পৃথক রেল বাজেট? শতাব্দীপ্রাচীন এই ঐতিহ্য এখন প্রশ্নের মুখে৷ রেল বাজেটকে কেন্দ্রীয় বাজেটের সঙ্গে যুক্ত ও একত্রে পেশ করার জন্য নীতি আয়োগের তরফে প্রধানমন্ত্রীর দফতরে সুপারিশ করা হয়েছে৷ সুপারিশে বলা হয়েছে, রেলের দুরবস্থা ফেরানোর জন্য এই পদক্ষেপ অত্যন্ত জরুরি৷ শুধুমাত্র রেলকে রাজনৈতিক ফায়দার জন্য ব্যবহার করা হয়েছে এতদিন৷ রেল বাজেট অভিন্ন হলে, সেক্ষেত্রে লোভনীয় বড় বড় ঘোষণা করা আর সম্ভব হবে না৷ ফলে হাল ফিরবে ভারতীয় রেলের৷

নীতি আয়োগ সূত্রের খবর, প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে রেল ও কেন্দ্রীয় বাজেটকে একসঙ্গে পেশ করা নিয়ে খতিয়ে দেখতে বলা হয়েছিল৷ জানতে চাওয়া হয়েছিল যদি এই দুটি বাজেট একসঙ্গে পেশ করা হয় তাহলে তার লাভ-লোকসান কী হতে পারে৷ নির্দেশ পাওয়া মাত্রই নীতি আয়োগের সদস্য বিবেক দেবরায়ের নেতৃত্বে তৈরি হয় এই রিপোর্ট৷ যেখানে বলা হয়েছে, সংবিধানে কোথাও উল্লেখ করা নেই যে আলাদা রেল বাজেট পেশ করার দায়িত্ব কেন্দ্রীয় সরকারের৷ তাই সরকার চাইলেই রেল বাজেট বন্ধ করতে পারে৷ সেক্ষেত্রে কোনওরকম আইনভঙ্গর পরিস্থিতিও উৎপন্ন হবে না৷ রিপোর্টে বলা হয়েছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল তাদের আঞ্চলিক স্বার্থে নানা ঘোষণা করে এসেছে এতদিন৷ নিজ রাজ্যে নিত্যনতুন ট্রেন ও রুটের ঘোষণা, নতুন কারখানার ঘোষণা করা হয়েছে এত বছর ধরে৷ অথচ, সার্বিকভাবে রেলের উন্নতির দিকে নজর দেয়নি কেউই৷

পাশাপাশি বলা হয়েছে, রেল বাজেটের মোট ১০টা ভাগ হয়৷ যার মধ্যে মাত্র দুটি ভাগের জন্য সংসদের মঞ্জুরির প্রয়োজন থাকে৷ সে দু’টি হল, গত আর্থিক বছরের আয়-ব্যয়ের খতিয়ান ও নতুন আর্থিক বছরের জন্য কেন্দ্রীয় বরাদ্দ এবং পরিকল্পিত ব্যয়৷ এই দুই বিষয়কেই কেন্দ্রীয় বাজেটে সম্মিলিত করা যাবে৷ যেমনটি ঠিক অন্যান্য মন্ত্রকের ক্ষেত্রে হয়ে থাকে৷ এছাড়া, যে কোনও ‘অ্যাকশন প্ল্যান’ তৈরির দায়িত্ব থাকবে রেলেরই কাছে৷ নীতি আয়োগের এই রিপোর্ট ইতিমধ্যেই জমা পড়েছে সাউথ ব্লকে৷ পিএমও সূত্রে খবর, ২০ পাতার এই রিপোর্ট পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে রেলমন্ত্রকে৷ জবাব চেয়ে জানতে চাওয়া হয়েছে রেলমন্ত্রকের মতামতও৷ তারপরেই অর্থমন্ত্রক, রেলমন্ত্রক ও প্রধানমন্ত্রীর দফতর এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement