BREAKING NEWS

৮ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৪ নভেম্বর ২০২০ 

Advertisement

উগ্র জাতীয়তাবাদকে মহামারীর সঙ্গে তুলনা! হামিদ আনসারিকে তুলোধোনা হিন্দু মহাসভার

Published by: Biswadip Dey |    Posted: November 22, 2020 10:20 am|    Updated: November 22, 2020 10:20 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দেশের প্রাক্তন উপরাষ্ট্রপতি হামিদ আনসারি কথা বলেন পাকিস্তানের ভাষায়। তাঁর কথার ভঙ্গির সঙ্গে মিল রয়েছে হায়দরাবাদের রাজনৈতিক নেতা আসাদউদ্দিন ওয়েইসির। এভাবেই শনিবার অখিল ভারতীয় হিন্দু মহাসভার সভাপতি স্বামী চক্রপাণি কটাক্ষ করলেন আনসারিকে। সম্প্রতি প্রাক্তন উপরাষ্ট্রপতি জানিয়েছিলেন, করোনার আগেও দেশের আরও দু’টি অতিমারী হয়েছিল, তীব্র জাতীয়তাবাদ ও ধার্মিকতা। সেই মন্তব্যের নিন্দা করেই এই আক্রমণ চক্রপাণির।

সংবাদ সংস্থা এএনআইয়ের সঙ্গে কথা বলার সময় চক্রপাণি তীব্র নিন্দা করেন আনসারির মন্তব্যের। তাঁর কথায়, ‘‘হামিদ আনসারি ও ওয়েইসির বক্তব্যের মধ্যে সেই অর্থে ফারাক নেই। দু’জনেই কথা বলছেন পাকিস্তানের ভাষায়। হামিদ আনসারি, যিনি একসময় দেশের উপরাষ্ট্রপতি ছিলেন, তাঁর এহেন মন্তব্য নিন্দনীয়।’’ তাঁর মন্তব্যের জন্য দেশবাসীর কাছে আনসারির ক্ষমা চাওয়া উচিত বলেও দাবি করেছেন চক্রপাণি।

[আরও পড়ুন: এবার ব্যাংকের লাইসেন্সের জন্য আবেদন করতে পারে টাটা-বিড়লারা, জল্পনা আম্বানিকে নিয়ে]

ঠিক কী বলেছিলেন আনসারি? শুক্রবার তিনি জানিয়েছিলেন, ‘আমরা-ওরা’য় বিভাজিত হচ্ছে দেশ। করোনা আসার আগেই জাতীয়তাবাদ ও ধার্মিকতার অতিমারীতে আক্রান্ত হতে হয়েছিল দেশবাসীকে। প্রসঙ্গত, ২০০৭ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত দেশের উপরাষ্ট্রপতি ছিলেন তিনি।

এদিকে আনসারির পাশাপাশি ওয়েইসিকেও তীব্র আক্রমণ করতে দেখা যায় স্বামী চক্রপাণিকে। তাঁর কথায়, ‘‘ওয়েইসি মহম্মদ আলি জিন্নার পথে চলেছেন। হিন্দুদের ভয় দেখিয়ে মুসলিম ভোটারদের আলাদা করতে চাইছেন। আমি কেন্দ্রীয় সরকারের আরজি জানাই, এই ধরনের লোকদের সম্পর্কে খেয়াল রাখতে এবং প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করতে।’’

[আরও পড়ুন : মোদির দূরদৃষ্টিই আর্থিক বিকাশের পথ সুগম করছে, প্রধানমন্ত্রীর ভূয়সী প্রশংসা মুকেশ আম্বানির]

হিন্দুত্বের প্রশংসায় পঞ্চমুখ চক্রপাণি জানাচ্ছেন, গোটা বিশ্বকে নিজেদের পরিবার মনে করে হিন্দুরা। কাজেই মুসলিমদের উচিত ওয়েইসির মতো মানুষদের কথায় কান না দেওয়া। তাহলেই আর একজন জিন্নাও এদেশে জন্মাতে পারবেন না। পাশাপাশি লাভ জেহাদের প্রতি ক্ষোভ উগরে তিনি জানাচ্ছেন, এর বিরুদ্ধে কড়া আইন থাকা উচিত। তাঁর কথায়, ‘‘আমাদের লক্ষ লক্ষ মেয়ে-বোনেদের ভুগতে হচ্ছে লাভ জেহাদের বিরুদ্দে কড়া আইন না থাকার জন্য। যে সব রাজ্য এর বিরুদ্ধে আইন আনছে আমি তাদের অভিনন্দন জানাতে চাই।’’

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement