BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ডিটেনশন ক্যাম্প তৈরির টাকা দিয়েছে মোদি সরকারই, দাবি অসমের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: December 28, 2019 9:59 am|    Updated: December 28, 2019 2:21 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: “মোদী মিথ্যুক।২০১৮ সালে তাঁর সরকারই গোয়ালপাড়ায় ডিটেনশন ক্যাম্পের জন্য ৪৬ কোটি টাকা অনুদান দিয়েছিল। আবার তিনিই বলছেন, দেশে কোনও ডিটেনশন সেন্টার নেই।” বক্তা অসমের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা তরুণ গগৈ।

Detention-Centre

দেশে কোনও ডিটেনশন ক্যাম্প নেই বলে সম্প্রতি দাবি করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (Narendra Modi)। আর শুক্রবার তা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন অসমের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গগৈ (Tarun Gogoi)। তিনি দাবি করেছেন, অটলবিহারী বাজপেয়ী জমানায় চিহ্নিত করা অবৈধ অনুপ্রবেশকারীদের জন্য ‘সেন্টার’ তৈরি করতে বলা হয়েছিল রাজ্যকে। তাঁর কথায়, “বাজপেয়ী (Atal Bihari Vajpayee) জমানায় প্রথমবার অবৈধভাবে ভারতে আসার পর যাদের কারাবাসের মেয়াদ শেষ হয়েছে, তাদের রাখার জন্য ডিটেনশন ক্যাম্প তৈরি করা হয়। মোদি ক্ষমতায় আসার পর, ৩ হাজার মানুষের থাকার মতো দেশের সবচেয়ে বড় ডিটেনশন ক্যাম্প তৈরির জন্য ৪৬ কোটি টাকা দেওয়া হয়। এখন কীভাবে তিনি বলতে পারেন, দেশে কোনও ডিটেনশন ক্যাম্প নেই?’’

[আরও পড়ুন: ‘আলিয়া-মালিয়াদের দেশে ঢুকতে দেখেও চুপ থাকত কংগ্রেস’, তোপ অমিত শাহর]

উল্লেখ‌্য, ২০০১ থেকে ২০১৬ পর্যন্ত পরপর তিনবার অসমে কংগ্রেস সরকারের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন তরুণ গগৈ। গগৈ বলেন, গুয়াহাটি হাই কোর্টের নির্দেশে যারা “ঘোষিত বিদেশি” তাদের জন্য তাঁর প্রশাসন (তিনি মুখ‌্যমন্ত্রী থাকার সময়) ডিটেনশন সেন্টার তৈরি করেছিল। গগৈয়ের দাবি, ‘‘মুখরক্ষার তাগিদেই বিষয়টি অস্বীকার করছে মোদি সরকার।’’ প্রাক্তন মুখ‌্যমন্ত্রী আরও বলেন, “২০১৪ সালে যখন নরেন্দ্র মোদি প্রধানমন্ত্রী হন তখন রাজ্যের সঙ্গে অবৈধ অনুপ্রবেশকারী এবং ডিটেনশন ক্যাম্পের বিষয়টি নিয়ে গুরুত্ব দিয়ে আলোচনা করেননি। এমনকী, তাঁর সরকার বাংলাদেশের সঙ্গেও কোনও আলোচনা করেনি। এখন প্রধানমন্ত্রী চাইছেন, আমরা এখনও উদার দেশে বাস করছি, তেমন একটা ভাবমূর্তি তৈরি করতে।’’ গগৈয়ের কথায়, অবৈধ অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করতে এবং তাদের আটক করার ক্ষেত্রে ধর্মকে মাপকাঠি করা উচিত নয়। তিনি বলেন, “আসল সত্য হল, ডিটেনশন ক্যাম্পে মুসলিমদের থেকেও বেশি হিন্দু রয়েছেন। তাহলে এই হিন্দুদের কারা আটক করছে? সেটা হল বিজেপি।’’ পাশাপাশি তিনি বলেন, তাঁর জমানায় হিন্দু ও মুসলিমদের মধ্যে কোনও বিভাজন ছিল না।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement