BREAKING NEWS

০৮ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৯  সোমবার ২৩ মে ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

সরকারি হাসপাতালে মিলবে না বিনামূল্যের চিকিৎসা, নয়া ফরমান ত্রিপুরায়

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: September 8, 2019 2:35 pm|    Updated: September 8, 2019 2:35 pm

Tripura govt rolls out massive hike in treatment fees in hospitals

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: এবার থেকে আর বিনামূল্যে মিলবে না সরকারি চিকিৎসা পরিষেবা। এই নির্দেশই জারি করা হয়েছে ত্রিপুরা সরকারের তরফে। পাশাপাশি বাড়ানো হয়েছে সরকারি হাসপাতালের বিভিন্ন পরীক্ষা ও চিকিৎসা সংক্রান্ত খরচ। শুক্রবার রাতে এই বিষয়ে একটি নোটিস জারি করে রাজ্যের স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ দপ্তর। তাতে সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসা সংক্রান্ত খরচ দু থেকে তিনগুণ বাড়ানোর পাশাপাশি কিছু কিছু ক্ষেত্রে নতুন রেটও ধার্য্য করা হয়েছে।

[আরও পড়ুন: চাঁদের মাটিতেই হদিশ মিলল ল্যান্ডার বিক্রমের, নিশ্চিত করলেন ইসরো প্রধান]

প্রকাশিত ওই নোটিস অনুযায়ী, এখন থেকে এপিএল কার্ডধারী রোগীদের প্রথমে সরকারি হাসপাতালে ২০ টাকা দিয়ে নাম নথিভুক্ত করতে হবে। তারপর আইসিইউতে ভরতি হলে দিনপিছু ৬০০ টাকা, হিস্টোলজি এবং সিস্টোলজি করলে ৮৬৩ টাকা দিতে হবে। নতুন নিয়মে ছাড় দেওয়া হয়নি দারিদ্রসীমার নীচে বসবাসকারী মানুষও। তাঁদের ক্ষেত্রে প্রথমে ১০ টাকা দিয়ে নাম নথিভুক্ত করতে হবে। তারপর এপিএলদের থেকে কিছু টাকা কম দিয়ে সরকারি চিকিৎসা ব্যবস্থার সুবিধা নিতে হবে। নতুন নিয়ম অনুযায়ী বিনামূল্যে চিকিৎসা পরিষেবা পাবেন শুধুমাত্র অন্ত্যোদয় যোজনার অধীনে থাকা মানুষজন।

এর আগে ত্রিপুরার সরকারি হাসপাতালগুলিতে মোট ১১৩টি শারীরিক পরীক্ষা করা হত। যার মধ্যে ৭৪টি পরীক্ষা হত বিনামূল্যে। কিন্তু, এখন থেকে এই পরীক্ষাগুলি করাতে গেলে অনেক টাকা খরচ হবে। যেমন আগে সরকারি হাসপাতালে কিডনির বায়োপসি করাতে গেলে কোনও টাকা লাগত না। কিন্তু, নতুন নিয়মে এখন তার জন্য খরচ হবে ১৪৭০ টাকা। আগে গ্যাস্ট্রো-এন্ট্রিক বায়োপসি করতে লাগত ৪০০ টাকা। কিন্তু, এখন খরচ হবে ১৯৫০ টাকা। আগের থেকে প্রায় চারগুণ।

[আরও পড়ুন: আফজল গুরু থেকে আসারাম বাপু! নৃশংস অপরাধীদের ‘ত্রাতা’ ছিলেন জেঠমালানি]

রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, অর্থনৈতিক দুরবস্থা কাটাতে ও চিকিৎসা পরিষেবার মান বজায় রাখতেই নতুন নিয়ম চালু করা হয়েছে। এর জন্যই সরকারি হাসপাতালগুলিতে পরিষেবার মূল্যবৃদ্ধি হয়েছে। বাধ্য হয়েই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

যদিও নতুন নিয়মের তীব্র সমালোচনা করেছে বিরোধী দল সিপিএম। সিপিএমের বর্ষীয়ান নেতা ও রাজ্যের প্রাক্তন স্বাস্থ্যমন্ত্রী বাদল চৌধুরি বলেন, ‘রাজ্যের বিজেপি সরকার বেসরকারিকরণের পথে হাঁটছে। স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে বেসরকারি কোম্পানিগুলিকে প্রবেশ করার সুযোগ করে দিচ্ছে।’

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে