BREAKING NEWS

৩১ আশ্বিন  ১৪২৮  সোমবার ১৮ অক্টোবর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

একসঙ্গে হোক বিধানসভা এবং লোকসভা ভোট, মোদির ডাকে সাড়া যোগী-অখিলেশের

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: June 6, 2018 2:59 pm|    Updated: June 6, 2018 2:59 pm

UP CM Yogi Adityanath backs PM Modi’s ‘one nation one poll’ idea

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ক্ষমতায় আসার পর থেকেই নির্বাচনী ক্ষেত্রে সংস্কারের কথা বলছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷বারবার মোদি বলেছেন নির্বাচন পদ্ধতিতে পরিবর্তনের কথা৷ প্রধানমন্ত্রীর মতে, প্রতিটি রাজ্যে আলাদা আলাদা করে ভোট হলে প্রচুর সময় এবং টাকা দুইই নষ্ট হয়৷ তার চেয়ে লোকসভা ভোটের সঙ্গেই বিধানসভা ভোটগুলি হয়ে গেলে খরচ অনেকটাই কমানো যাবে৷ সেই সঙ্গে বাঁচবে সময়ও৷ আর তাছাড়া ভোট মানেই উন্নয়নের কাজ আটকে যাওয়া৷ গোটা দেশে সমস্ত রাজ্যের ভোট একসঙ্গে করা গেলে এই সমস্ত সমস্যায় এড়ানো যাবে৷

[প্যালেস্তাইন ফুটবল সংস্থার হুমকির জের, বাতিল মেসিদের প্রীতি ম্যাচ]

কিন্তু মোদির এই তত্ত্বে বিরোধীরা সাড়া দেননি এতদিন৷ রাজ্য সরকারগুলিও তীব্র আপত্তি জানিয়েছিল একসঙ্গে ভোট হওয়ার ব্যপারে৷ বিরোধীদের দাবি ছিল, একসঙ্গে লোকসভা এবং বিধানসভা ভোট হলে স্থানীয় ইস্যুগুলি চাপা পড়ে যাবে জাতীয় ইস্যুর চাপে৷ সেক্ষেত্রে আঞ্চলিক দলগুলির তুলনায় বাড়তি সুবিধা পেয়ে যাবে জাতীয় দলগুলি৷ বিশেষ করে সর্বভারতীয় স্তরে ক্ষমতায় থাকা বিজেপি একসঙ্গে ভোট হলে অন্য বিরোধীদের তুলনায অনেক বেশি সুবিধা পাবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির জনপ্রিয়তায় ভর করে৷ তাছাড়া এই প্রক্রিয়ায় সাংবিধানিক সমস্যাও ছিল৷

[অবশেষে পদত্যাগ প্রত্যাহার টুটু বোসের, ভালবাসার টানেই ফিরছেন মোহনবাগানে]

যে রাজ্যগুলির ভোট লোকসভা ভোটের পরে হয় সেগুলি এগিয়ে আনার বিষযে তীব্র আপত্তি জানাতে পারে সেই রাজ্য সরকারগুলি৷ আবার যে রাজ্যগুলিতে ভোট লোকসভার আগে হয় সেগুলিতে সরকারের মেয়াদ শেষ হলে দীর্ঘদিন ধরে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করে রাখতে হবে৷তাই বেশিরভাগ রাজ্য সরকারই প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধন্তের বিপক্ষে ছিল৷ তবে, ১৯-এর ভোটের আগে মোদির এই তত্ত্বের সমর্থনে এগিয়ে এল দেশের সবচেয়ে বড় রাজ্য উত্তরপ্রদেশ৷ মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ সরকারিভাবে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি দিয়ে জানিয়ে দিয়েছেন ২০১৯-এ বিধানসভা ভোট হলে তাঁর কোনও আপত্তি নেই৷ যোগী একা নন, উত্তরপ্রদেশের প্রধান বিরোধী দল সমাজবাদী পার্টিও৷ সপা সুপ্রিমো অখিলেশ যাদব, জানিয়ে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী চাইলে তারাও একসঙ্গে বিধানসভা নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত৷ তবে, ২০১৯-এই তা সম্ভব কিনা তা নিয়ে সংশয় রয়েছে অনেকের৷

[শুধু জার্মানি নয়, বিশ্বকাপের ইতিহাসে বিরাট ব্যবধানে জিতেছিল এই দলগুলিও]

দেশের সবচেয়ে বড় রাজ্যের শাসক-বিরোধী দুই শিবিরকে পাশে পাওয়াই অনেকটা গতি পেলে প্রধানমন্ত্রীর ‘এক দেশ, এক ভোট’ তত্ব৷ যদিও, বিরোধীদের বাধা টপকে, সব রাজ্য সরকারগুলিকে রাজি করিয়ে ২০১৯-এ লোকসভা এবং বিধানসভা ভোট একসঙ্গে করা কতটা সম্ভব হবে তা নিয়ে সন্দিহান রাজনৈতিক মহল৷

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে

Advertisement

Advertisement