BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

চলছে আফগান-তালিবান আলোচনা, ভারতের ‘বিশ্বাস অর্জনে’ দিল্লিতে বিশেষ মার্কিন দূত

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: September 15, 2020 1:44 pm|    Updated: September 15, 2020 2:12 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ভারতে আসছেন আফগানিস্তানে নিযুক্ত আমেরিকার বিশেষ দূত জালমে খলিলজাদ। কাতারে আফগান সরকার ও তালিবানের মধ্যে চলা শান্তি আলোচনার মধ্যেই এদিন নয়াদিল্লিতে পা রাখবেন তিনি।

[আরও পড়ুন: ধর্ষকদের কেমিক্যাল দিয়ে নপুংসক করে দেওয়া উচিত, মত ইমরান খানের]

আফগানিস্তানে (Afghanistan) শান্তি ও স্থিতবস্থা বজায় রাখতে ভারতের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করে আমেরিকা, তা খলিলজাদের সফরেই স্পষ্ট। এর আগে গতকাল অর্থাৎ সোমবার ইসলামাবাদে পাকিস্তানের সেনাপ্রধান কামার জাভেদ বাজওয়ার সঙ্গে বৈঠক করেন মার্কিন দূত। শনিবার আনুষ্ঠানিক সূচনার পর রবিবার থেকে কাতারের রাজধানী দোহায় শুরু হয়েছে আফগানিস্তানের সরকার ও তালিবান শীর্ষ নেতৃত্বের মধ্যে বৈঠক। যুদ্ধজর্জর দেশটিতে শান্তি ফেরাতেই আলোচনার টেবিলে বসেছে দু’পক্ষ। সেই বিষয়ে দিল্লিকে অবগত করতে ও ভারতের সহযোগিতা চেয়েই বিদেশমন্ত্রী এস জয়শংকর-সহ দিল্লির একাধিক নীতিনির্ধারকদের সঙ্গে আলোচনায় বসবেন খলিলজাদ।

এর আগে আফগানিস্তানে যুযুধান দু’পক্ষের শান্তি আলোচনায় দিল্লি থেকেই ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অংশ নেন জয়শংকর। ভারতের অবস্থান স্পষ্ট করে তিনি বলেন, “আফগানিস্তানে শান্তি ফেরানোর জন্য চলা আলোচনার গতিপথ নির্ধারিত করতে হবে আফগানদেরই। এই শান্তি প্রক্রিয়ায় আফগানিস্তানের সার্বভৌমত্ব, মানবাধিকার ও গণতন্ত্রকে সম্মান জানাতে হবে।”

এদিকে, দোহায় জয়শংকর না গেলেও সেখানে ভারতের তরফে উপস্থিত ছিলেন পাকিস্তান-আফগানিস্তান ও ইরানের দায়িত্বপ্রাপ্ত ভারতের বিদেশমন্ত্রকের যুগ্মসচিব জে পি সিং। সেখানে সোমবার আফগান সরকারের প্রতিনিধি দলের প্রধান আবদুল্লা আবদুল্লার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তিনি। সেই বিষয়ে একটি টুইট করে আবদুল্লা আবদুল্লা বলেন, “জে পি সিংয়ের সঙ্গে বৈঠক খুব ভাল হয়েছে। আমরা যৌথভাবে শান্তিপ্রক্রিয়াটি খতিয়ে দেখেছি। সবসসময় আমাদের পাশে থাকার জন্য আমি ভারতকে ধন্যবাদ জানাতে চাই।”

উল্লেখ্য, প্রায় দু’দশক ধরে চলা যুদ্ধের পর বিগত কয়েকমাসে আমেরিকার সঙ্গে আলোচনার মঞ্চে আসে তালিবান। তারপরই আফগানিস্তান থেকে সেনা সরানোর কথা ঘোষণা করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। যদিও তিনি হুঁশিয়ারি দিয়েছেন, তালিবান (Taliban) জঙ্গিরা বেগড়বাই করলে ফের ফৌজ মোতায়েন করবে আমেরিকা। তবে সেই আলোচনায় আফগান সরকারের ভূমিকা না থাকায় গোটা প্রক্রিয়া নিয়েই প্রশ্ন উঠছিল। সেবার আলোচনা থেকে কাবুলকে বাদ দেওয়ায় রীতিমতো ক্ষোভ প্রকাশ করেছিল ভারত। তাই এবার নয়াদিল্লির বিশ্বাস অর্জন করতেই খলিলজাদের এই সফর বলেও মত। এহেন পরিস্থিতিতে এবার আফগানিস্তানে পূর্ণ শান্তি স্থাপন করার উদ্দেশ্যে এই বৈঠক ফলপ্রসূ হবে বলেই আশা কূটনৈতিক মহলের।

[আরও পড়ুন: ধর্ষকদের কেমিক্যাল দিয়ে নপুংসক করে দেওয়া উচিত, মত ইমরান খানের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement