১২ মাঘ  ১৪২৮  বুধবার ২৬ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

দেশে আগত ইউরোপীয়দের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইন, টিকা ইস্যুতে EU-কে চাপ ভারতের

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: July 1, 2021 9:08 am|    Updated: July 1, 2021 9:33 am

Vaccinated people from Europe must maintain mandatory quarantine period if Covisheild, Covaxin won't be accepted: India to EU

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা টিকা কোভিশিল্ড, কোভ্যাক্সিনকে (Covaxin) ছাড়পত্র দেওয়া নিয়ে এবার ইউরোপীয় ইউনিয়নের উপর চাপ বাড়াল ভারত। পাল্টা ভারতের তরফে জানানো হয়েছে, এই দুই ভ্যাকসিন গ্রহীতাদের ‘গ্রিন পাস’ না দিলে ইউরোপের দেশগুলি থেকে আগত ব্যক্তিদেরও বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে (Quarantine) থাকতে হবে। এমনই নিয়ম লাগু করার পথে হাঁটছে দেশ। বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার থেকেই এই নিয়ম জারি হচ্ছে। অর্থাৎ ইউরোপের কোনও দেশ থেকে ভারতে কেউ এলে তাঁকে বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে।

কী নিয়ে এই জটিলতা? জানা গিয়েছে, কোভ্যাক্সিন এবং কোভিশিল্ড অর্থাৎ ভারতের দুটি করোনা টিকাকে এখনও ছাড়পত্র দেয়নি ইউরোপীয় ইউনিয়ন (EU)। যদিও কোভিশিল্ডের উৎপাদক সংস্থা সেরাম ইনস্টিটিউট ‘গ্রিন পাস’ পাওয়ার জন্য একাধিকবার আবেদন জানিয়েছে বলে দাবি কর্ণধার আদর পুনাওয়ালার। রাশিয়ার তৈরি স্পুটনিক ভি (Sputnik V) টিকাকে অনুমোদন দিয়েছে WHO। কোভ‌্যাক্সিন এখনও WHO-র মান‌্যতা পাওয়ার অপেক্ষায়। বিভিন্ন দেশ কোভ‌্যাক্সিনকে অনুমোদন করলেও ইউরোপ ও আমেরিকা করেনি। তাই এই ভ‌্যাকসিন নিয়ে এই দুই জায়গায় যেতে চাওয়া ভারতীয়দের অবস্থা কার্যত শাঁখের করাতের মতো।

[আরও পড়ুন: ব্যক্তিগত কারণে ত্রিপুরায় BJP’র শরিক দলের বিধায়কের ইস্তফা]

সম্প্রতি ইউরোপীয় ইউনিয়ন ডিজিটাল কোভিড সার্টিফিকেট চালু করেছে। এই সার্টিফিকেট সঙ্গে থাকলে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে সহজে যাতায়াত করা হবে। কঠোর কোনও বিধিনিষেধের বেড়াজালে পড়তে হবে না। এই সার্টিফিকেট ইউরোপিয়ান মেডিসিন এজেন্সির (EMA)অনুমোদনপ্রাপ্ত। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কোভিড পরিস্থিতির এখন অনেকটাই উন্নতি হয়েছে। অফিস, বিশ্ববিদ‌্যালয় ও পর্যটন কেন্দ্রগুলিও খুলে দেওয়া হচ্ছে। ফলে আগামী দিনে অনেক ভারতীয়ই পড়াশোনা বা কাজের সূত্রে বিদেশে যাবেন।

[আরও পড়ুন: জঙ্গিদের নিশানায় সেনাঘাঁটি, সীমান্তে শত্রু ড্রোন ধ্বংসে বিকল্প খুঁজছে ফৌজ]

বেশিরভাগ ভারতীয় কোভিশিল্ড বা কোভ‌্যাক্সিনের টিকা নিচ্ছেন।এদিকে, ভারতের বাজারে সরকার কোভিশিল্ড, কোভ‌্যাক্সিন ও স্পুটনিক ভি ভ‌্যাকসিনকে মান‌্যতা দিয়েছে। এমনকী ভারতে তৈরি অক্সফোর্ড-অ‌্যাস্ট্রাজেনেকার কোভিশিল্ডের নাম উল্লেখ নেই ইউরোপের অনুমোদনপ্রাপ্ত ভ‌্যাকসিন তালিকা বা গ্রিন পাসে। তাতেই সমস্যা বেড়েছে। তবে আজ থেকে ভারতের তরফেও ইউরোপীয় দেশগুলির উপর পালটা চাপ দেওয়া হয়েছে।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে