BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বড়সড় সাফল্য উত্তরপ্রদেশ পুলিশের, মধ্যপ্রদেশ থেকে গ্রেপ্তার কানপুরের ডন বিকাশ দুবে

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: July 9, 2020 10:20 am|    Updated: July 9, 2020 1:05 pm

An Images

ফাইল ফটো

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: অবশেষে মিলল সাফল্য। মধ্যপ্রদেশের উজ্জয়িনীর একটি এলাকা থেকে গ্রেপ্তার হল কানপুরের ডন বিকাশ দুবে। গোয়েন্দা সূত্রে খবর পেয়ে, তার খোঁজে ভারত-নেপাল সীমান্তে চিরুনি তল্লাশি চালাচ্ছিল উত্তরপ্রদেশের বারাইচ জেলার পুলিশ। পাশাপাশি সন্ধান চলছিল অন্য রাজ্যগুলিতেও। আর তাতেই মিলল সাফল্য। গ্রেপ্তার হতে হল কানপুরে আটজন পুলিশকর্মী খুনের ঘটনার মূল অভিযুক্ত বিকাশকে। তার আগে বৃহস্পতিবার সকালে বিকাশের ঘনিষ্ঠ দুই কুখ্যাত দুষ্কৃতী রণবীর ও প্রভাত মিশ্রকে এনকাউন্টারে খতম করে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ।

উত্তরপ্রদেশ পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার সকালে উজ্জয়িনীর মহাকাল মন্দিরের কাছে বিকাশ দুবে শনাক্ত করেন এক নিরাপত্তারক্ষী। সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে এসে তাকে গ্রেপ্তার করে জেরা করতে শুরু করে পুলিশ। তখনই নিজের পরিচয় স্বীকার করে সে। বলে, ‘আমিই কানপুরের বিকাশ দুবে।’ 

তার গ্রেপ্তারির পরেই উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের সঙ্গে কথা বলেন মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী। পরে এবিষয়ে শিবরাজ সিং চৌহান জানান, যোগীজির সঙ্গে এই বিষয়ে কথা হয়েছে। খুব তাড়াতাড়ি মধ্যপ্রদেশ পুলিশ বিকাশকে উত্তরপ্রদেশ পুলিশের হাতে তুলে দেবে।

বিকাশের মাফিয়া দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য রণবীরের মাথার দাম ৫০ হাজার ছিল। আর প্রভাত মিশ্র ছিল কানপুরের ডনের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ। বৃহস্পতিবার সকালে পুলিশের চোখে ধুলো পালানোর সময় এনকাউন্টারে খতম করা হয় রণবীরকে। এদিকে প্রভাত মিশ্রকে গতকাল গ্রেপ্তার করার পর বৃহস্পতিবার ভোরে ফরিদাবাদে স্থানান্তরিত করা হচ্ছিল। মাঝ রাস্তায় পুলিশের গাড়ি খারাপ হওয়ার সুযোগে পালানোর চেষ্টা করে সে। পুলিশকর্মীদের পিস্তল ছিনিয়ে নিয়ে তাদের লক্ষ্য করে গুলি চালানোর চেষ্টা করে। তাকে আটকাতে গিয়ে প্রথমে পায়ে গুলি চালায় পুলিশ। কিন্তু, তারপরও পুলিশকর্মীদের লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়ে পালানোর চেষ্টা করছিল। সেসময়ই তাকে খতম করা হয়। এই ঘটনায় কয়েকজন পুলিশকর্মীও জখম হয়েছেন।

কানপুরের ডনের ঘনিষ্ঠ সঙ্গীদের যখন একের পর এক এনকাউন্টারে খতম করা হচ্ছে তখন বিকাশ দুবে উত্তরপ্রদেশের সীমান্ত দিয়ে নেপাল পালানোর চেষ্টা করছে বলে সতর্ক করেছিলেন গোয়েন্দারা। তারপরই নেপাল সীমান্তের বিভিন্ন এলাকার জঙ্গলে চিরুনি তল্লাশি চালাচ্ছিল বারাইচের পুলিশ। তাদের সঙ্গে এই কাজে সাহায্য করছিলেন স্বশস্ত্র সীমা বল (SSB) -এর সদস্যরাও।

এপ্রসঙ্গে বারাইচের পুলিশ সুপার বিপিন মিশ্র জানিয়েছিলেন, বিকাশ নেপাল পালানোর চেষ্টা করছে বলে খবর পাওয়া গিয়েছে। তার ভিত্তিতে পুলিশ ও এসএসবির সদস্যরা বারাইচ জেলার রূপাইদিহি, মূর্তিয়া, সুজালি ও মোতিপুর পুলিশ স্টেশন এলাকার বিভিন্ন এলাকায় তল্লাশি চালাচ্ছে। সমস্ত যানবাহন থামিয়ে খোঁজ চালানোর পাশাপাশি জঙ্গল এলাকাগুলিতেও তল্লাশি চলছে। এই বিষয়ে নেপাল পুলিশকে সতর্ক করা হয়েছে। যাতে কোনওভাবে কানপুরের ওই কুখ্যাত ডন সেদেশে ঢুকতে না পারে তা দেখার কথা বলা হয়েছে। এর পাশাপাশি বারাইচের সীমান্ত এলাকায় থাকা সমস্ত গ্রামের প্রধানের কাছে হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে বিকাশের ছবি পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। তার ছবি-সহ পোস্টারও লাগানো হয়েছে বিভিন্ন রাস্তার মোড়ে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement