BREAKING NEWS

৩ মাঘ  ১৪২৮  সোমবার ১৭ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

২ কোটি টাকা ঘুষ দিয়ে সংশোধনাগারে রান্নাঘর বানালেন শশীকলা

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: July 13, 2017 8:34 am|    Updated: July 13, 2017 8:42 am

VK Sasikala bribed jail officials for a luxurious life

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কথায় বলে ‘ফেলো কড়ি মাখো তেল’। আর ‘কড়ি’ ফেললে যে সংশোধনাগারে বসেও নানা সুযোগ-সুবিধা ভোগ করা যায়, তার নজির তো ভুরিভুরি। এবার তাই প্রায় ২ কোটি টাকা ঘুষ দিয়ে সংশোধনাগারের ভিতরে নিজের জন্য একটি ঝাঁ চকচকে রান্নাঘর বানিয়ে ফেললেন এআইডিএমকে প্রধান শশীকলা। ঘটনায় নাম জড়িয়েছে খোদ কর্নাটকের কারা বিভাগের ডিজি এইম এম সত্যনারায়ণ রাওয়ের।

[জানেন, এই VVIP গাছের পিছনে মধ্যপ্রদেশ সরকারের খরচ কত?]

তামিলনাড়ুর প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী প্রয়াত জয়ললিতার অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ ছিলেন শশীকলা। জয়ললিতার মৃত্যুর পর এআইডিএমকে-র সর্বময় নেত্রী হয়ে ওঠেন তিনি। কিন্তু বেশিদিন ক্ষমতা ভোগ করতে পারেননি শশীকলা। আয়ের সঙ্গে সঙ্গতিহীন সম্পত্তি মামলায় তাঁকে দোষী সাব্যস্ত করে সুপ্রিম কোর্ট। চার বছরের কারাদণ্ডের সাজা হয় শশীকলার। এখন বেঙ্গালুরুর কেন্দ্রীয় সংশোধনাগারে বন্দি তিনি। জানা গিয়েছে, সেখানে বহাল তবিয়তেই রয়েছেন শশীকলা। বস্তুত, খাওয়া-দাওয়ায় যাতে কোনও অসুবিধা না হয়, সেজন্য সংশোধনাগারের আধিকারিকদের ২ কোটি টাকা ঘুষ দিয়ে একটি ঝাঁ চকচকে রান্নাঘরও বানিয়ে ফেলেছেন। কর্নাটকের কারা বিভাগের ডিজি এইম এম সত্যনারায়ণ রাওকে পাঠানো এক রিপোর্টে একথা জানিয়েছেন কারা বিভাগের ডিআইজি ডি রূপা।

[কাশ্মীরে হামলা চালাতে হিজবুলকে রাসায়নিক অস্ত্র জোগাচ্ছে পাকিস্তান]

জানা গিয়েছে, সপ্তাহ খানেক আগেই কর্নাটকের কারা বিভাগে ডিআইজি পদে যোগ দেন ডি রূপা। গত ১০ জুলাই বেঙ্গালুরুর কেন্দ্রীয় সংশোধনাগার পরিদর্শন করতে যান তিনি। সেসময়ই শশীকলার বিশেষ রান্নাঘর-সহ  অন্যান্য সুযোগ-সুবিধার বিষয়টি নজরে আসে কারা বিভাগের ওই পদস্থ আধিকারিকের। গোটা বিষয়টি জানিয়ে কারা বিভাগের ডিজি এইচ এম সত্যনারায়ণ রাওকে রিপোর্ট পাঠান রূপা। রিপোর্টে তিনি বলেছেন, কারা বিভাগের ডিজি বিষয়টি জানার পরও, বেঙ্গালুরু কেন্দ্রীয় সংশোধনাগারে এই রান্নাঘর চলছে।  সূত্রের খবর, শশীকলা এই রান্নাঘর তৈরির জন্য কারা বিভাগের আধিকারিকদের ২ কোটি টাকা ঘুষ দিয়েছেন। অবিলম্বে দোষী আধিকারিকদের সাজা দিতে হবে। এই প্রেক্ষাপটে শশীকলার ঘুষের টাকায় খোদ কারা বিভাগে ডিজি লাভবান হয়েছেন, এমন জল্পনাও তৈরি হয়েছে। যদিও এ বিষয়ে কর্নাটকের কারা বিভাগে ডিজি এইম এম সত্যনারায়ণ রাওয়ের কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

 

বস্তুত, বেঙ্গালুরুর কেন্দ্রীয় সংশোধনাগারে বেনিয়মের অভিযোগ  নতুন নয়। এর আগে শশীকলার সঙ্গে নির্ধারিত সংখ্যার থেকে বেশি অতিথিকে দেখা করতে দেওয়া এবং নির্ধারিত সময়ের পরও লোকজনের সঙ্গে দেখা করতে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে