১৫ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  বৃহস্পতিবার ২ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

‘মোদি এবং যোগী ক্ষমতায় থাকলে মিটবে না রাম মন্দির বিতর্ক’

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: March 27, 2017 8:23 am|    Updated: August 17, 2021 4:43 pm

With Modi in Delhi and Yogi in UP, out of court settlement of Ayodhya dispute not possible: BMAC

এমনটাই দাবি বাবরি মসজিদ অ্যাকশন কমিটির আহ্বায়ক জাফারিয়াব জিলানির।

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: যতদিন নরেন্দ্র মোদি দেশের প্রধানমন্ত্রী এবং যোগী আদিত্যনাথ উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী থাকবেন, ততদিন আদালতের বাইরে অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণ নিয়ে বিতর্ক মিটবে না। এমনটাই দাবি বাবরি মসজিদ অ্যাকশন কমিটির(বিএমএসি) আহ্বায়ক জাফারিয়াব গিলানির। এক বৈঠকে গিলানি বলেন, ‘যতদিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ ক্ষমতায় থাকবেন, ততদিন মুসলিমদের ন্যায় পাওয়ার কোনও আশা নেই। দু’জনেই বিজেপি-র কর্মী আর দু’জনেই সর্বদা রামমন্দির নির্মাণের পক্ষে সওয়াল করে এসেছেন।’ গিলানির মতে, রাম মন্দির ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রীরা আগে নিরপেক্ষ অবস্থান গ্রহণ করতেন। কিন্তু এখন সেই অবস্থা নেই। তাঁর আরও দাবি, এই সমস্যার মীমাংসা একমাত্র সুপ্রিম কোর্টেই সম্ভব।

[বাংলাদেশের দীর্ঘতম জঙ্গিদমন অভিযান, অব্যাহত ‘অপারেশন টোয়াইলাইট’]

কয়েকদিন আগেই সুপ্রিম কোর্ট দু’পক্ষকে আদালতের বাইরে রাম মন্দির বিতর্ক মেটানোর সুপারিশ করেছিল। প্রয়োজনে মধ্যস্থতা করার কথাও বলেছিল। সেই পরিপ্রেক্ষিতেই এদিন বৈঠকে বসেছিল বিএমএসি। বৈঠকে গিলানি আরও বলেন, ‘আগেও আদালতের বাইরে মীমাংসার প্রচেষ্টা হয়েছিল। কিন্তু সেটা ব্যর্থ হয়েছে।’ এর আগে গত ২১ মার্চ দেশের শীর্ষ আদালত বলেছিল, রাম মন্দির ইস্যুতে দুই ধর্মের মানুষের ভাবাবেগ জড়িয়ে রয়েছে। আদালতের বাইরে আলোচনার মাধ্যমে দু’পক্ষ যেন মীমাংসা করে নেয়। প্রয়োজনে আদালত মধ্যস্থতাও করবে। এরপরেই গিলানি বলেছিলেন, ‘দেশের প্রধান বিচারপতি যদি এই বিতর্ক মেটাতে কোনও কমিটি গঠন করেন, আমরা সেজন্য তৈরি। কিন্তু আদালতের বাইরে দু’পক্ষ বৈঠক করে এই সমস্যা মেটাতে পারবে না। তবে শীর্ষ আদালত যদি কোনও নির্দেশ দেয় তাহলে আমাদের সেটা মানতেই হবে।’

[জনকল্যাণমূলক প্রকল্পে বাধ্যতামূলক নয় আধার, নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের]

এর আগে গিলানি বলেছিলেন, গত ত্রিশ বছর ধরে চেষ্টা করেও আলোচনার মাধ্যমে রাম মন্দির বিতর্ক মেটানো সম্ভব হয়নি। ব্যর্থ হয়েছিলেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী চন্দ্রশেখর এবং পি ভি নরসিং রাও। উল্লেখ্য, উত্তরপ্রদেশে বিজেপি ক্ষমতায় আসার পরই রাম মন্দির নিয়ে উত্তেজনা তৈরি হয়েছিল। সেই উত্তেজনার মধ্যেই সম্প্রতি দেশের সর্বোচ্চ আদালতের প্রধান বিচারপতি জে এস খেহর বলেছিলেন, বিতর্কিত ভূখণ্ডে মন্দির হবে না মসজিদ, তা ঠিক করতে আদালতের বাইরে বোঝাপড়া করে নিক দু’পক্ষ। প্রয়োজনে মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা নিতে আগ্রহী আছেন বলে জানান প্রধান বিচারপতি। আগামী ৬ এপ্রিল সুপ্রিম কোর্টে ফের শুনানি হবে এই মামলার।

[আজানের বদলে মসজিদ থেকে বাজল পর্ন ছবির আওয়াজ, হতবাক শহরবাসী]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে