BREAKING NEWS

১৫ মাঘ  ১৪২৮  শনিবার ২৯ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

হিংসায় মদতের অভিযোগ, PFI-কে নিষিদ্ধ করতে কেন্দ্রকে চিঠি যোগী সরকারের

Published by: Paramita Paul |    Posted: January 1, 2020 7:53 pm|    Updated: January 1, 2020 7:53 pm

Yogi government written to Union home ministry to ban PFI.

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রাজনৈতিক সংগঠন পপুলার ফ্রন্ট অফ ইন্ডিয়াকে (PFI) নিষিদ্ধ করতে চলেছে যোগী প্রশাসন। উত্তরপ্রদেশ সরকারের দাবি, CAA বিরোধী আন্দোলনের নামে রাজ্যে অশান্তি ছড়িয়েছিল এই সংগঠন। এই সংগঠনের বেশকিছু সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তাদের কাছ থেকে আপত্তিকর জিনিসও মিলেছে বলে খবর। এরপরই এই সংগঠনকে নিষিদ্ধ করার আরজি জানিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকে চিঠি পাঠিয়েছে যোগী সরকার। সূত্রের খবর, মন্ত্রক সেই চিঠি পেয়েছে। তবে নিষিদ্ধ করার আগে আইনি দিক খতিয়ে দেখছে কেন্দ্র।

CAA বিরোধী আন্দোলনে রণক্ষেত্র উত্তরপ্রদেশে প্রাণ হারিয়েছেন ১৫ জন। পরিস্থিতি সামাল দিতে শুধুমাত্র মীরাটে ৪০০ জনকে আটক করা হয়েছিল। ১৫০ জনের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয়ে। ২১ জেলায় বন্ধ ছিল ইন্টারনেটও। তারপরেও বিভিন্ন এলাকায় অশান্তি ছড়িয়েছে। পুলিশকে লক্ষ্য করে পাথর ছোঁড়ার খবর সামনে আসে। পুলিশি ব্যারিকেড ভেঙে মিছিলের চেষ্টা করতেই পরিস্থিতি অশান্ত হয়ে ওঠে। জ্বালিয়ে দেওয়া হয় গাড়ি, বাস। ভাঙচুর করা হয় সরকারি অফিস, দোকান। পুলিশকে লক্ষ্য করে চলে পাথরবৃষ্টিও।

[আরও পড়ুন : ২০২০-তে জিডিপি বৃদ্ধির হার ৫ শতাংশ ছুঁতে হিমশিম খাবে দেশ, আশঙ্কা মার্কিন অর্থনীতিবিদের]

এই সমস্ত অশান্তির মূলে PFI ছিল বলে দাবি উত্তরপ্রদেশ পুলিশের। এ প্রসঙ্গে উত্তরপ্রদেশে পুলিশের ডিজিপি ওপি সিং বলেন, “রাজ্যে অশান্তি ছড়ানোর পিছনে PFI-ই দায়ী। তা প্রমাণ করতে আমাদের হাতে একাধিক প্রমাণ আছে।” তাঁর রিপোর্টে সেকথা উল্লেখ করে এই রাজনৈতিক সংগঠনের নিষেধাজ্ঞার পক্ষে সওয়াল করেছেন পুলিশ কর্তা। তিনি আরও জানিয়েছেন, “PFI-এর একাধিক সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁদের কাছ থেকে উসকানিমূলক ভিডিও ও বই মিলেছে। সদস্যদের মোবাইল খতিয়ে দেখা হচ্ছে।” এই সমস্ত তথ্যের উপর ভিত্তি করে পুলিশ PFI-কে নিষিদ্ধ করার দাবি জানিয়েছে। একই দাবি জানিয়েছেন এডিজি (আইনশৃঙ্খলা) পি ভি রামশাস্ত্রীও। তিনি জানান, “রাজ্যে বিভিন্ন এলাকা থেকে বেশ কয়েকজন PFI সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়্ছে। তাদের কাছ থেকে উদ্ধারও হওয়া তথ্য-প্রমাণ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের কাছে পাঠানো হয়েছে।”

[আরও পড়ুন : নতুন বছরের শুরুতে প্রধানমন্ত্রীর টুইট বার্তায় কাজের খতিয়ান, সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রোল]

প্রসঙ্গত, ২৪ ডিসেম্বর উত্তরপ্রদেশ থেকে PFI-এর রাজ্য সম্পাদক-সহ তিন সদস্যকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। লখনউ পুলিশের অভিযোগ ছিল, PFI-এর সদস্যরা রাজ্যে অশান্তি ছড়াতে আপত্তিকর পুস্তিকা, প্ল্যাকার্ড বিলি করছিল। তবে তাঁদের সম্পর্কে চাঞ্চল্যকর অভিযোগটি করেন উত্তরপ্র্দেশের উপমুখ্যমন্ত্রী কেশবপ্রসাদ মৌর্য। তাঁর অভিযোগ, “নিষিদ্ধ সংগঠন স্টুডেন্টস ইসলামিক মুভমেন্ট অফ ইন্ডিয়া বা সিমি-র প্রাক্তন সমর্থকরা PFI-এ যোগ দিয়েছে। তারা CAA, NRC নিয়ে অশান্তি ছড়াচ্ছে। এধরণের অসামাজিক লোকজনকে ছেড়ে দেওয়া হবে না। PFI কে নিষিদ্ধ করব আমরা।”

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে