BREAKING NEWS

২৮ আষাঢ়  ১৪২৭  মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

করোনা আক্রান্ত কি না, রিপোর্ট আসার আগেই এনআরএসে মৃত্যু মহিলার

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: March 30, 2020 3:30 pm|    Updated: March 30, 2020 3:37 pm

An Images

ফাইল ছবি।

গৌতম ব্রহ্ম: করোনা সন্দেহে ভরতি এক মহিলার মৃত্যু ঘিরে তীব্র চাঞ্চল্য এনআরএস হাসপাতালে। মৃতার বাড়ি উত্তর ২৪ পরগনার ধর্মপুকুরে। বয়স ৪৫ বছর। রবিবার রাত সাড়ে দশটা নাগাদ জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে তিনি এনআরএসে আসেন। আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভরতি করে তাঁর চিকিৎসা শুরু হয়। তাঁর লালারসের নমুনা সোয়াব টেস্টের জন্য বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। কিন্তু সেই রিপোর্ট আসার আগেই সোমবার দুপুর ১টা নাগাদ তাঁর মৃত্যু হয়। রিপোর্ট পজিটিভ এলে, তিনি হবেন রাজ্যে তৃতীয় করোনা-বলি। 

করোনা সন্দেহে ভরতি হওয়া রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় বেলেঘাটা আইডি’তে প্রবল চাপ তৈরি হচ্ছিল। তার জেরে রাজ্যের অন্যান্য সরকারি হাসপাতালগুলিতে খোলা হয় আইসোলেশন ওয়ার্ড। নীলরতন সরকার হাসপাতালে কিছুদিন আগে আইসোলেশন ওয়ার্ড তৈরি হয়। ইতিমধ্যে ২ ডাক্তারের সেখানে চিকিৎসা হয়েছে। এই রোগীকেও প্রথমে বেলেঘাটা আইডিতে রেফার করা হয়েছিল। কিন্তু সেখানে বেড না থাকায় তাঁকে এনআরএসে পাঠানো হয়।

[আরও পড়ুন:‘দায়িত্বজ্ঞানহীনদের জন্য মহামারি হলে লাশ তোলা যাবে না’, মন্তব্য ক্ষুব্ধ ফিরহাদের]

এদিকে, মৃত্যুর খবর রটতেই ধর্মপুকুর এলাকায় প্রবল আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। স্বাস্থ্য দপ্তরের তরফে মৃত মহিলার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত তাঁদের কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এই মহিলার চিকিৎসায় নিযুক্ত ডাক্তার, নার্স ও অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীদের মধ্যেও চাপা আতঙ্ক রয়েছে।

এখনও পর্যন্ত এ রাজ্যে নোভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ২২ জন। মৃত্যু হয়েছে ২ জনের। এর মধ্যে একজন দমদমের ৫৭ বছরের প্রৌঢ়। অপরজন কালিম্পংয়ের বছর ৪৫-এর মহিলা। রবিবার গভীর রাতে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছে তাঁর। ধর্মপুকুরের মহিলার রিপোর্ট যদি পজিটিভ আসে, তাহলে তিনিই হবেন করোনার তৃতীয় বলি। তাই সবাই এখন রিপোর্ট আসার অপেক্ষায়।

[আরও পড়ুন: লকডাউনে ঘুচল সংক্রমণের অপবাদ! ক্রমশ উর্ধ্বমুখী মুরগির মাংস]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement