৫ আশ্বিন  ১৪২৫  শনিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  |  পুজোর বাকি আর ২৪ দিন

মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও রাশিয়ায় মহারণ ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

অর্ণব আইচ: ফের জেলের মধ্যে মাদক পাচারের চেষ্টা। এবার ঘটনাস্থল দমদম সেন্ট্রাল জেল। বন্ধুকে মাদক পাচার করতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়ল কলেজ ছাত্রী। এই ঘটনা উসকে দিল গত সপ্তাহে গ্রেপ্তার হওয়া আলিপুর জেলের চিকিৎসক অমিতাভ চৌধুরির স্মৃতি। ডাক্তারির ব্যাগে করে জেলে মাদক পাচার করতে গিয়ে ধরা পড়েছিলেন তিনি।

[শুদ্ধিকরণের নামে আংটি নিয়ে চম্পট পুরোহিতের, থানায় অভিযোগ দায়ের গৃহবধূর]

বছর দুই আগে উত্তর ২৪ পরগনা থেকে মাদক পাচারের অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল ভগীরথ সরকার নামের এক যুবককে। বিচারাধীন সেই বন্দিকে রাখা হয় দমদম সেন্ট্রাল জেলে। প্রায়ই অভিযুক্তের পরিবারের সদস্যরা তার সঙ্গে দেখা করতে আসত। তবে মঙ্গলবার আসে এক বান্ধবী। জানা গিয়েছে, বারাসতের বাসিন্দা ভগীরথের বান্ধবী। কলেজের দ্বিতীয়বর্ষের ছাত্রী। এদিন বিকেলে ভিজিটিং আওয়ার-এ তিনি ভগীরথের সঙ্গে দেখা করেন। তাকে একটি ট্যালকম পাউডার ও দু’টি তেলের শিশি দেন। চেকিংয়ের সময় পাউডারের কৌটো দেখে কর্তব্যরত রক্ষীদের সন্দেহ হয়। দেখে মনে হচ্ছিল কৌটোটি যেন জোড়া লাগানো। সঙ্গে সঙ্গে তা খুলতেই মেলে গাঁজার হদিশ। প্রায় ৩০০ থেকে ৩৫০ গ্রাম গাঁজা ছিল কৌটোর ভিতরে। এরপরই খাতা দেখে জানা যায় ভগীরথের বান্ধবীই তাকে এই সমস্ত জিনিস দিয়েছিলেন। তখনও জেলেই ছিলেন ওই তরুণী। বন্ধুর সঙ্গে কথা বলছিলেন তিনি। প্রায় সঙ্গে সঙ্গে ধরা পড়ে যান। এদিকে বিষয়টি জানাজানি হতেই জেলের ভিতরে পালিয়ে যায় ভগীরথ। কোনও এক স্থানে লুকিয়ে পড়ে। প্রায় আধঘণ্টা পর তার হদিশ মেলে।

[বর্ষার শুরুতেই তিলোত্তমায় বিপর্যস্ত জনজীবন]

প্রসঙ্গত, গত সপ্তাহেই জেলের ভিতরে গাঁজা, মদ ও মোবাইল পাচার করতে ধরা পড়েছিলেন আলিপুর সেন্ট্রাল জেলের চিকিৎসক আমিতাভ চৌধুরি। আলিপুর জেলের উচ্চপদস্থ কর্তাদের কাছেও আগে থেকে খবর ছিল, উপরমহলের কারও সাহায্যে মাদক পাচার হচ্ছে জেলের অন্দরে। সেই মতো ফাঁদ পেতেই অমিতাভ চৌধরিকে ধরা হয়। তাঁর স্টেথোস্কোপের ব্যাগ থেকে মেলে দু’কেজি গাঁজা। শুধু তাই নয় ছোট্ট ব্যাগটি থেকেই মেলে প্রায় ৪০টি মোবাইল। জলের বোতল হিসেবে যা আনা হয়েছিল, তাতে মেলে মদ। ঘটনার পর তীব্র চাঞ্চল্য ছড়ায় জেল চত্বরে। গ্রেপ্তার করা হয় চিকিৎসককে। সেই ঘটনার পর বিভিন্ন জেলে নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও কড়া হয়েছে। এরই ফল মঙ্গলবার দমদম সেন্ট্রাল জেলে মিলল। দমদমের ক্ষেত্রেও পুলিশের কাছে আগে থেকেই খবর ছিল, জেলের ভিতরে এই মাদকের ব্যবসা ফেঁদেছিল ভগীরথ। আর এভাবেই দিনের পর দিন তাঁর কাছে মাদক পৌঁছে যেত। তাই বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করা হয়েছিল। এর জেরেই ধরা পড়ল অভিযুক্ত তরুণী।

[বরানগরে ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার মহিলার ঝুলন্ত দেহ, গ্রেপ্তার স্বামী]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং