৫ মাঘ  ১৪২৫  রবিবার ২০ জানুয়ারি ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফিরে দেখা ২০১৮ ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

রিংকি দাস ভট্টাচার্য: সামনেই মাধ্যমিক পরীক্ষা। অথচ অঙ্ক করতে বসলেই অন্য দিকে মন চলে যায় পিকলুর। তিয়াসার আবার অন্য সমস্যা৷ মাধ্যমিকের জন্য ভাল প্রস্তুতি নিয়েছে বটে, কিন্তু পরীক্ষার হলে গিয়ে সব ভুলে যাব না তো? এ তো বেজায় সমস্যা! সেই সমস্যা কাটাতে কী করছে পিকলু-তিয়াসা? কেন, ওরা দ্বারস্থ হয়েছে স্ট্রেস ম্যানেজমেন্ট বিশেষজ্ঞদের! দু’জনকেই স্ট্রেস ম্যানেজমেন্ট শিক্ষকদের পরামর্শ, ‘টেনশন কোরো না। যখন পড়ছ, তখন শুধু পড়াশোনাতেই মন দাও। ওয়ান অ্যাট আ টাইম। দেখবে, পড়তে ইচ্ছে করবে, পরীক্ষাও ভাল হবে।’

[এবার গাফিলতি হলেই শাস্তির দাওয়াই মেট্রো কর্তৃপক্ষের ]

পিকলু-তিয়াসার মতো ছাত্রছাত্রীদের পরীক্ষার আগে টেনশন থেকে মুক্তির পথ বাতলাতে এবং বিষয় ভিত্তিক কাউন্সেলিং করাতে রবিবার এমনই একটি কর্মশালার আয়োজন করেছিল পশ্চিমবঙ্গ সরকারি বিদ্যালয় সমিতি। জীবনের বড় পরীক্ষাগুলোর আগে মানকে চাঙ্গা রাখার দিশা পেতে রবিবার সকালে সংস্কৃত কলেজিয়েট স্কুলে হাজির হয়েছিল ১২৫ জন পড়ুয়া। তাদের নানা সমস্যার সমাধান বাতলে দিলেন বিভিন্ন ক্ষেত্রের বিশিষ্টরা। বস্তুত, কীভাবে প্রশ্ন নির্বাচন করতে হবে, কোন উত্তর আগে লিখতে হবে, সামগ্রিক টাইম ম্যানেজমেন্ট, ছবি আঁকার বিষয়ে কী কী সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে-এমনই দশটি বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনার হয় কর্মশালায়৷ পাশাপাশি, আলোচনার সারমর্মও লিখিত আকারে উপস্থিত ছাত্রছাত্রীদের হাতে তুলে দেওয়া হয়। অঙ্ক, ভৌতবিজ্ঞান, জীবন বিজ্ঞান, ইংরেজি, বাংলা, ইতিহাস ও ভূগোল-এই সাতটি বিষয়ে কর্মশালাতে ১৫ জন শিক্ষক ছাত্রছাত্রীদের মাধ্যমিক পরীক্ষার প্রস্তুতি বিষয়ের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন।

[মহিলার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ ছবি, ব্যবসায়ীকে ব্ল্যাকমেল করে গ্রেপ্তার ২]

আর কী বলল পড়ুয়ারা? মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী সমন্বিতা সাহার যেমন সমস্যা, অঙ্ক পরীক্ষার হলে ঢুকে ভয়ের চোটে ভুলে করে ফেলা। জীবনের প্রথম বড় পরীক্ষার আগে সৌম্যদ্বীপ সিনহার মাথায় আবার ঘুরছে একটাই প্রশ্ন, পরীক্ষার হলে গিয়ে সব কিছু ঠিক সময়ে শেষ করতে পারবে তো? কৌস্তুভ ধরশর্মার আবার সবচেয়ে বড় টেনশন হল ইতিহাসের সাল মনে রাখা। ওদের কথা শুনে উপস্থিত বিশিষ্টদের পরামর্শ, ভয় না পেয়ে নিজের উপর আত্মবিশ্বাস রাখবে। ভয় পেলে চলবে না। তা হলেই দেখবে টেনশন ছাড়াই পরীক্ষা দিতে পারবে। শিক্ষক-শিক্ষিকাদের কথায়, টেনশন ছাড়াও পড়ুয়াদের মনসংযোগ ব্যাহত হওয়ার আরও একটা বড় কারণ হল, ফেসবুক-হোয়াটসঅ্যাপ আর মোবাইল গেমে দিনভর মজে থাকা। এ দিন অনেক পড়ুয়া কবুলও করেছে সে কথা। সারাদিনব্যাপী অনুষ্ঠিত এই ‘বিষয়-ভিত্তিক কাউন্সেলিং’-এর সূচনা করেন হিন্দু স্কুলের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক ড. প্রদীপকুমার বসু। পশ্চিমবঙ্গ সরকারি বিদ্যালয় সমিতির সাধারণ সম্পাদক ড. সৌগত বসু জানান, বিগত তিন বছর ধরে পরীক্ষার্থীদের সুবিধার্থে এই কাউন্সেলিংয়ের আয়োজন করা হচ্ছে। অংশগ্রহণকারী ছাত্রছাত্রীদের হাতে আলোচনার সারমর্ম লিখিত আকারে তুলে ধরার পাশাপাশি প্রতিটি বিষয় প্রোজেক্টরের সাহায্যে সহজভাবে বুঝিয়ে দেওয়া হয়। উত্তর ও দক্ষিণবঙ্গের দূরের জেলাগুলির পরীক্ষার্থীদের জন্য এই আলোচনার বিষয়বস্তু পাঠিয়ে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং