১৬ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  শুক্রবার ৩ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

বেঙ্গালুরু থেকে কলকাতায় মাদক পাচার, পুলিশের জালে পাচারকারী

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: June 30, 2018 2:04 pm|    Updated: June 30, 2018 2:08 pm

Drug racket kingpin nabbed in Kolkata

অর্ণব আইচ: কলকাতার বুকে ধরা পড়ল এক মাদক পাচারচক্রের পাণ্ডা । শুক্রবার রাতে নার্কোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো প্রায় ৩৫টি এলএসডি ব্লট পেপার ও এমডিএমএ মাদক বাজেয়াপ্ত করে। এই মাদকের মূল্য প্রায় ১.৫ লাখ টাকা। কলকাতার ভবানীপুর অঞ্চল থেকে এগুলি বাজেয়াপ্ত করা হয়। ঘটনায় এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে খবর, কলকাতায় মাদকের খবর তাদের কাছে আগেই ছিল। গোপন খবরের ভিত্তিতে শহরে অভিযানে নামেন নার্কোটিক্স বিভাগের গোয়েন্দারা। ভবানীপুরের মহম্মদ মান্নানের বাড়ি থেকে নারকোটিক কন্ট্রোল ব্যুরো ওই মাদক বাজেয়াপ্ত করে। তার ছেলে মুব্বাসির আন্নান এই ঘটনায় জড়িত রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ, কলকাতার একাধিক মাদক ব্যবসায়ীর সঙ্গে যোগাযোগ রয়েছে আন্নানের। তাদের মাধ্যমেই সে কলকাতা ও শহরতলী অঞ্চলে মাদক পাচার করে। ভবানীপুর এলাকার কলেজ পড়ুয়াদের মধ্যেও সে মাদক বিক্রি করত বলে খবর।

জাল কাগজে কর ফাঁকি দিয়ে ৪৩ কোটি টাকার জালিয়াতি, গ্রেপ্তার চক্রের তিন মাথা ]

গোয়েন্দাদের অনুমান, বেঙ্গালুরু থেকে সে মাদক আনত কলকাতায়। তার কাছ থেকে যে ৩৫টি এলএসডি ব্লট পেপার উদ্ধার করা হয়েছে তার ওজন ০.৪ গ্রাম। এছাড়া ৭ গ্রাম এমডিএমএ-ও বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। সে কোকেন পাচার করত বলেও খবর। আন্নানকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শনিবার তাকে আলিপুর নগর দায়রা আদালতে তোলা হবে।

‘ডার্ক ওয়েব’ থেকে মাদক পাচার মহানগরে, পুলিশের জালে তিন কলেজ পড়ুয়া ]

গত পরশু কলকাতা থেকে তিন মাদক পাচারকারীকে গ্রেপ্তার করে কলকাতা পুলিশ। উষাপল্লি থেকে আটক করা হয় সৌমিক মুখোপাধ্যায় নামের এক পড়ুয়াকে। ২২ বছরের ওই পড়ুয়া শহরের এক নামী বেসরকারি ইনস্টিটিউটে ম্যানেজমেন্টের ছাত্র। তার কাছ থেকে এলএসডি ও এমডি নামের নিষিদ্ধ মাদক পাওয়া যায়। তাকে জেরা করে বিবেকনগরের বাসিন্দা মৃগাঙ্ক বন্দ্যোপাধ্যায় ও কৌস্তভ কর নামের দুই পড়ুয়াকে পাকড়াও করে পুলিশ। মৃগাঙ্ক কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ছাত্র। একটি নামী বেসরকারি সংস্থায় এমসিএ পড়ছে কৌস্তভও। পুলিশি জেরায় জানা গিয়েছে, ‘ডার্ক ওয়েব’ থেকে মাদক ক্রয় করত মৃগাঙ্ক। তারপর বন্ধুদের সাহায্যে তা পৌঁছে দেওয়া হতো গ্রাহকদের হাতে।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে