৩ শ্রাবণ  ১৪২৬  শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বর্ণবিদ্বেষ’ বিতর্কে হস্তক্ষেপ করলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। শিক্ষামন্ত্রীর নির্দেশ, অধ্যাপককে ‘জাত’ তুলে হেনস্তার অভিযোগের দ্রুত নিষ্পত্তি করতে হবে। তদন্ত কমিটির রিপোর্ট প্রকাশ্যে আনতে হবে। রবীন্দ্রভারতীর চারজন বিভাগীয় প্রধান-সহ পাঁচজন অধ্যাপককে পদত্যাগপত্র প্রত্যাহার করারও অনুরোধ করেছেন শিক্ষামন্ত্রী।  

[আরও পড়ুন: মুখ্যমন্ত্রী ‘ম্যাজিকে’ মুগ্ধ দেব, মমতার প্রশংসা করে টুইট অভিনেতার]

খাস কলকাতায় এক অধ্যাপিকাকে ‘জাত’ তুলে হেনস্তা। বিতর্কে রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়। অভিযোগ, গত ২০ মে পরীক্ষা কম নম্বর দেওয়ার অভিযোগে ভুগোলের বিভাগীয় প্রধান সরস্বতী কেরকেটাকে নিগ্রহ করেন তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সদস্যরা। তাঁকে ‘জাত’ তুলে গালিগালাজ করা হয়, যোগ্যতা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন বিক্ষোভকারীরা। ঘটনার তিনদিন পর রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন আক্রান্ত অধ্যাপিকা সরস্বতী কেরকেটা। এখনও পর্যন্ত সেই অভিযোগের ভিত্তিতে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ।

রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক-অধ্যাপিকাদের দাবি, এবারই প্রথম নয়, এর আগেও এমন ঘটনা ঘটেছে। প্রতিবাদে পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নেন শিক্ষা, সংস্কৃত, রাষ্ট্রবিজ্ঞানের বিভাগের প্রধানরা ও বাংলাদেশ স্টাডিজের অধিকর্তা। সকলেই উপারচার্যের কাছে পদত্যাগপত্র পাঠিয়েও দিয়েছেন। মঙ্গলবার সকালে রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে বিটি রোডে ক্যাম্পাসে যান শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় স্বয়ং। দীর্ঘক্ষণ উপাচার্যের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। আলাদাভাবে কথা বলেন বিভাগীয় প্রধান ও ছাত্র-প্রতিনিধিদের সঙ্গেও। তবে ভুগোল বিভাগের প্রধান সরস্বতী কেরকেটা অবশ্য এদিন বিশ্ববিদ্যালয়ে আসেননি বলে জানা গিয়েছে।

[আরও পড়ুন: হুডিনি হতে চেয়েছিলেন ম্যানড্রেক, রেকর্ড ভাঙতে গিয়ে দীর্ঘ মৃত্যুমিছিল

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং