BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

করোনার চিকিৎসা সরঞ্জাম নিয়ে ধনকড়ের ‘কাটমানি’ খোঁচার জবাব, নাম না করে টুইট স্বরাষ্ট্রদপ্তরের

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: August 22, 2020 10:04 pm|    Updated: August 22, 2020 10:16 pm

An Images

ধ্রুবজ্যোতি বন্দ্যোপাধ্যায়: ‘কাটমানির টাকা কোথায়?’, রাজ্যের করোনা চিকিৎসার পরিকাঠামো এই তুলনা টেনেই প্রশ্ন তুলেছিলেন রাজ্যপাল। মহামারী পরিস্থিতিতে এহেন অসংবেদনশীল মন্তব্যের পালটা জবাব পেলেন তিনি। নাম না করে এর সমালোচনা করে দিল স্বরাষ্ট্রদপ্তরের টুইট। বলা হল, এই কঠিন পরিস্থিতিতে রাজ্যবাসীকে নিরাপদে রাখার জন্য যেখানে প্রশাসন প্রাণপণ লড়ে যাচ্ছে, সেখানে এ ধরনের মন্তব্য সেই প্রচেষ্টাকে ব্যাহত করছে, যা মোটেই কাম্য নয়।

শুক্রবারই টুইট করে রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড় (Jagdeep Dhankhar) করোনা চিকিৎসায় ব্যবহৃত সরঞ্জাম কেনাতেও দুর্নীতি প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীকে বিঁধেছিলেন। টুইটে তিনি লিখেছিলেন, “কেনাকাটার কাটমানি কোথায় গেল? কে বা কারা লাভবান হলেন? সেটা খোঁজাই তদন্তের একমাত্র কাজ হওয়া উচিত। করোনা চিকিৎসার সরঞ্জাম ক্রয়ের হিসাব, কোথা থেকে কেনা হয়েছে, কারা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তা জানিয়ে শ্বেতপত্র প্রকাশ করা হোক। স্বচ্ছতার অভাবেই দুর্নীতির জন্ম।”

[আরও পড়ুন: বাড়ির দরজায় বিনামূল্যে কোভিড টেস্টের সুবিধা, দেশের মধ্যে প্রথম শুরু হচ্ছে কলকাতায়]

করোনা পরিস্থিতিতে রাজ্য সরকার প্রায় ২ কোটি টাকার চিকিৎসা সরঞ্জাম কিনেছে। আপৎকালীন পরিস্থিতিতে তা কিনতে গিয়ে নিয়ম বহির্ভূত পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছিল, এই অভিযোগ উঠতেই মুখ্যমন্ত্রী কড়া হাতে ব্যবস্থা নিয়েছেন। এই সংক্রান্ত খোঁজখবর নিতে তদন্ত কমিটি গঠন করেন। কিন্তু তারপরও রাজ্যপালের এই টুইটে শ্লেষই প্রকাশ পেয়েছে।

[আরও পড়ুন: করোনা আবহে বাড়তি বেড ভাড়া নয়, বেসরকারি হাসপাতালগুলিকে নির্দেশ স্বাস্থ্য কমিশনের]

এবার পালটা টুইটে তার জবাব দিল স্বরাষ্ট্র দপ্তর। তাদের বক্তব্য, এ ধরনের আক্রমণ রাজ্য প্রশাসনের যে কোনও সাধু উদ্যোগকে অনেকটা পিছিয়ে দিচ্ছে। পরিস্থিতি আরও হতাশাজনক করে তুলছে। একে কোভিড পরিস্থিতি, তারউপর আমফানের বিপর্যয় সামলাতে হয়েছে এই রাজ্যকে। জোড়া দুর্ভোগের মধ্যে দিয়ে কঠিন সময় পেরচ্ছেন রাজ্যবাসী। এই সময়ে শান্তি বজায় রাখাই প্রত্যাশিত। কিন্তু কারও কারও জন্য তা বিঘ্নিত হচ্ছে বলে স্বরাষ্ট্রদপ্তরের টুইটে উল্লেখ করা হয়েছে। নাম না করে টুইট করা হলেও, এর নিশানায় যে রাজ্যপাল, সামান্য রাজনৈতিক বোধসম্পন্ন যে কেউ তা বুঝতে পারবেন।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement