১২ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বেনজির, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক স্তরের পার্ট ওয়ানে অর্ধেকই ফেল

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 25, 2018 1:11 pm|    Updated: January 25, 2018 1:37 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বেনজির। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক স্তরের পার্ট ওয়ানের ফলে রেকর্ড সংখ্যক পরীক্ষার্থী ফেল করলেন। কলা বিভাগে অকৃতকার্যর সংখ্যা সবথেকে বেশি। এই বিভাগে ৫৭ শতাংশ পরীক্ষার্থী পাশই করতে পারেননি। এতটা খারাপ ফল শেষ কবে হয়েছে তা নিয়ে রীতিমতো গবেষণা শুরু হয়েছে। তবে নজিরবিহীন রেজাল্টের জন্য নতুন বিধিকেই দায়ী করছেন অকৃতকার্যরা।

[মাথায় বন্দুক ঠেকিয়ে ব্যবসায়ীর বাড়িতে লুট, চাঞ্চল্য ভবানীপুরে]

সরস্বতী পুজোর দু’দিন পর কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্ট ওয়ানের পড়ুয়ারা পেলেন দুঃসংবাদ। বৃহস্পতিবার ফলপ্রকাশ হতে একেবারে চক্ষু চড়কগাছ। শুধু ফেল আর ফেল। বিএ অনার্স ও জেনারেলের রেজাল্ট ভয়াবহ। সিংহভাগই অকৃতকার্য। টেনেটুনে কলা বিভাগের মাত্র ৪২.৩৫ শতাংশ পড়ুয়া পাশ করতে পেরেছেন। বিএ পার্ট ওয়ানে পরীক্ষা দিয়েছিলেন ৬৪ হাজার। তার মধ্যে ২৮ হাজার জন স্বস্তি পেয়েছেন। বিজ্ঞান বিভাগের ফলও তেমন একটা ভাল নয়। এই বিএসসিতে পাশের হার মাত্র ৭১ শতাংশ৷ বিশেষজ্ঞরা বলছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাম্প্রতিককালের সবচেয়ে খারাপ ফল এটি৷ এবছর মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ১ লক্ষ ৪০ হাজার৷ দেখা যাচ্ছে অর্ধেক পড়ুয়াই সাফল্যের গণ্ডী পেরোতে পারেননি।

[বৃদ্ধার কাতর আর্তিতে সাড়া, বিলাসীর চিকিৎসার ভার নিচ্ছে স্বাস্থ্য দপ্তর]

ভয়ঙ্কর ফলের জন্য পড়ুয়াদের একাংশ বিদ্যালয়ের নয়া বিধির দিকে আঙুল তুলেছেন। কী আছে এই বিধিতে? ২০১৬ সালে নতুন বিধি চালু হয়েছিল। নয়া পরীক্ষা পদ্ধতিতে অনার্সের পড়ুয়াদের অনার্সে পাশ করতে হবে। পাশাপাশি দু’টি জেনারেল পেপারের মধ্যে একটিতে পাশ করতে হবে। আর জেনারেলের ক্ষেত্রে তিনটি বিষয়ের মধ্যে অন্তত দু’টি বিষয়ে পাশ করতে হবে। এর আগে অনার্সের পড়ুয়ারা জেনারেলের কোনও পেপারে অকৃতকার্য হলেও, পরের বছর পরীক্ষার সঙ্গে ফেল করা বিষয়ের পরীক্ষা দিতে পারেন। নয়া নিয়মের জেরে অনেকেই তাই আটকে পড়েছেন। পড়ুয়াদের পরীক্ষার ফল এতটা কেন খারাপ হল সে ব্যাপারে অবশ্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে কোনও ব্যাখ্যা এখনও মেলেনি। তবে এই ফলাফলে শোরগোল পড়েছে শিক্ষা মহলে। প্রশ্নের মুখে পড়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের নয়া পরীক্ষা পদ্ধতি৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement