৩১ আষাঢ়  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সন্দীপ চক্রবর্তী: ‘কাটমানি’ বিতর্কে দিনকয়েক ধরে উত্তাল রাজ্য রাজনীতি৷ উত্তেজনার পারদ ছড়িয়েছে রাজ্য বিধানসভাতেও৷ বিরোধীরা এই ইস্যুকে হাতিয়ার করে কোমর বেঁধে নেমেছে৷ কড়া ভাষায় প্রায়শই আক্রমণ করা হয়েছে তৃণমূলকে৷ বুধবার তারই পালটা জবাব দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ ‘কাটমানি’র পালটা হিসাবে ‘ব্ল্যাকমানি’ ইস্যুতে সুর চড়ালেন তিনি৷

[ আরও পড়ুন: সরকারি কাজ চলাকালীন দেওয়াল চাপা পড়ে শিশুর মৃত্যু, রণক্ষেত্র নোনাডাঙা]

লোকসভা নির্বাচনে নিজেদের জমি শক্ত করেছে বিজেপি৷ রাজ্যে আঠারোটি আসন দখল করেছে পদ্ম শিবির৷ সেই নিরিখে বেশ খারাপ ফল হয়েছে তৃণমূলের৷ তারপর থেকে চলছে খারাপ ফলের কারণ পর্যালোচনা৷ আর্থিক তছরুপের অভিযোগকে কড়া হাতে দমনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ দলীয় কর্মীদের তোলাবাজি ও ‘কাটমানি’র টাকা ফেরানোর উদ্যোগ নিয়েছেন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান৷ সেই নির্দেশ নিয়েই উত্তাল রাজ্য রাজনীতি৷ এই ইস্যুকে নিয়ে আলোচনা জারি রয়েছে বিধানসভাতেও৷ মঙ্গলবার বিধানসভার অধিবেশনে  আবদুল মান্নান ‘কাটমানি’র প্রকৃত সত্য উদঘাটনে কমিশন গঠন এবং শ্বেতপত্র প্রকাশের দাবি তুলেছিলেন। বিধানসভার পাশাপাশি লোকসভাতেও গড়িয়েছে ‘কাটমানি’র জল৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সরাসরি আক্রমণ করেছিলেন সাংসদ দিলীপ ঘোষ৷

[ আরও পড়ুন: ফের স্কুলের শৌচাগারে হাতের শিরা কাটল দশম শ্রেণির ছাত্রী, চাঞ্চল্য বালিগঞ্জে]

বুধবার বিধানসভায় তারই পালটা জবাব দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ ‘কাটমানি’র পালটা হিসাবে ‘ব্ল্যাকমানি’ প্রসঙ্গ তুলে ধরেন তিনি৷ লোকসভা নির্বাচনে যা খরচ হয়েছে, তা কোথা থেকে এসেছে সেই বিষয়ে প্রশ্ন তোলেন মুখ্যমন্ত্রী৷ ‘কাটমানি’ ইস্যুতে তিনি বলেন, ‘‘সাধুদের মধ্যেও কেউ কেউ অসাধু থাকেন৷ ঠিক তেমনই আমি জানি দলে থাকা .১ শতাংশ মানুষ খারাপ৷ তবে সবাই নয়৷ ‘কাটমানি’ রুখতে মনিটরিং সেল খুলেছি৷’’ ভুয়ো খবর ইস্যুতেও সুর চড়িয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ যাঁরা গুজব ছড়িয়ে দাঙ্গা বাঁধানোর চেষ্টা করছে, বিধানসভায় দাঁড়িয়ে তাঁদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ এছাড়াও এদিনের বিধানসভা অধিবেশনে দু’বছর অন্তর শিল্প সম্মেলন করার সিদ্ধান্ত নেন মুখ্যমন্ত্রী৷ পুলিশরা ছুটি পান না বলে তাদের অতিরিক্ত প্রায় ৫২ দিনের বেতন দেওয়া হয় বলেও জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং