×

৯ চৈত্র  ১৪২৫  সোমবার ২৫ মার্চ ২০১৯   |   শুভ দোলযাত্রা।

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও #IPL12 ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: লোকসভা নির্বাচনের দামামা বেজে গিয়েছে৷ মঙ্গলবারই প্রার্থীতালিকা ঘোষণা করে দিয়েছে রাজ্যের শাসকদল৷ প্রার্থী হিসাবে দলনেত্রী বেছে নিয়েছেন টলিউডের একঝাঁক তারকাকে৷ যাদবপুর থেকে প্রার্থী করা হয়েছে মিমি চক্রবর্তীকে৷ বসিরহাটে তৃণমূলের হয়ে ভোটযুদ্ধে লড়ছেন নুসরত৷ প্রার্থীতালিকা ঘোষণার পর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় সমালোচনার শিকার দুই অভিনেত্রী৷ এহেন কুরুচিকর পোস্টের জেরে নিন্দায় সরব সংস্কৃতিমনস্করা৷

[মৈত্রীর বার্তা নিয়ে রিকশা চালিয়ে ইমরানের দেশে গড়িয়ার সত্যেন দাস]

টলিউড থেকে রাজনীতির আঙিনায় এসেছেন অনেকেই৷ মুনমুন সেন, দেবের পর সেই তালিকায় শামিল মিমি, নুসরতও৷ রাজনীতিতে আসা জনপ্রিয় এই দুই মুখই এখনও আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় চলছে জোর আলোচনা৷ সমালোচনা বললেও খুব একটা ভুল হবে না৷ মিমি-নুসরত অভিনীত একাধিক ছবির দৃশ্য সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে এবং তার সঙ্গে অশ্লীল লেখনীতে রীতিমতো আক্রমণ করা হয়েছে তাঁদের৷ কারও কারও দাবি, অভিনয় জগতে মিমি-নুসরতের অবস্থা টলমল হওয়ায় নাকি অর্থ উপার্জনের পথ হিসাবে লোকসভা নির্বাচনে লড়াইয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন দু’জনে৷ 

MIMI-BJP-

যাদবপুর লোকসভা কেন্দ্রের কে প্রার্থী হচ্ছেন, সেই তথ্য নেটিজেনদের কাছে পৌঁছে দেওয়ার আঙ্গিকে মিমির বিকিনি পরিহিত ছবিও অনেকেই টাইমলাইনে শেয়ার করেছেন৷ আবার কেউ কেউ অভিনেত্রীদের চিয়ার লিডার বলেও কটাক্ষ করেছেন৷ 

MIMI-BJP

একাধিক পোস্টে নানা কুরুচিকর মন্তব্য করা হয়েছে মিমি-নুসরতকে৷

MIMI-BJP

[“আমি কংগ্রেসের সৈনিক, কোনওভাবেই বিজেপিতে যাচ্ছি না”, জল্পনার অবসান ঘটালেন দীপা]

রাজনৈতিক মহলের একাংশের দাবি, সোশ্যাল মিডিয়ায় বিজেপি কর্মীদের তৈরি একাধিক গ্রুপে গ্রুপে ঘুরে বেড়াচ্ছে মিমি-নুসরতকে নিয়ে অশ্লীল মন্তব্যে ভরা ছবি৷ এই ঘটনার নেপথ্যে গেরুয়া শিবিরের নেতাকর্মীদের ইন্ধন দায়ী বলে মত অনেকের৷ কেউ কেউ অভিনেত্রীদের হাসির খোরাক বানালেও, সচেতন নেটিজেনরা কিন্তু তা মোটেও ভাল চোখে দেখছেন না৷ তাঁদের মতে, মিমি-নুসরত অভিনেত্রী৷ তাই তাঁরা পেশার স্বার্থে বিভিন্ন দৃশ্যে অভিনয় করতেই পারেন৷ কিন্তু রাজনৈতিক লড়াই সম্পূর্ণ ভিন্ন৷ তাই সে বিষয়ে তাঁদের আক্রমণ করতে গিয়ে পেশা নিয়ে খোঁচা দেওয়া অনুচিত৷ অপসংস্কৃতি ছাড়া এ আর কিছুই নয় বলেও দাবি অনেকের৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং