BREAKING NEWS

১৪ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  বুধবার ১ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

জার্মানির সহায়তায় ঢেলে সাজছে রাজ্যের পরিবহণ

Published by: Kumaresh Halder |    Posted: October 28, 2018 3:21 pm|    Updated: October 28, 2018 3:21 pm

New signature Kharagpur IIT with Germany organization to introduce the transportation system

নব্যেন্দু হাজরা: পরিবহণ ব্যবস্থাকে আরও অত্যাধুনিক এবং গতিশীল করতে এবার জার্মানির সঙ্গে যৌথভাবে একটি রিসার্চ সেন্টার খুলতে চলেছে কেন্দ্র। এবিষয়ে আগামী সোমবার আইআইটি খড়গপুরে একটি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হবে। সেখানেই ঠিক হবে কোথায় এই গবেষণা কেন্দ্র খোলা হবে। আইআইটি খড়গপুর এবং জার্মানির টিইউ মিউনিখ এই রিসার্চ সেন্টার খোলার বিষয়ে মউ স্বাক্ষর করেছে।

[ত্রিকোণ প্রেমের জের, বিউটি পার্লারের মালকিন খুনে গ্রেপ্তার ২]

সূত্রের খবর, এরাজ্যে পরিবহণ সংক্রান্ত এই গবেষণা কেন্দ্র খোলা হতে পারে। গোটা দেশেই পরিবহণ ব্যবস্থায় নানা বদল আসছে। পরিবহণ ব্যবস্থাকে গতিশীল করতে আরও স্মার্ট ট্রান্সপোর্ট সিস্টেম তৈরি করা হচ্ছে। রাজ্যেরও পরিবহণ ব্যবস্থায় বদল আসছে। এখন যেমন মোবাইলে ক্লিক করেই জেনে নেওয়া যায় বাসের অবস্থান৷  তেমনই রাস্তায় গাড়ি নিয়ম ভাঙলেই দ্রুত চালকের কাছে পৌঁছে যায় মেসেজ। ফলে গোটা প্রক্রিয়াটাই এখন প্রযুক্তির মাধ্যমে আধুনিক হয়েছে। তাকে আরও কোন কোন উপায়ে শক্তিশালী এবং অত্যাধুনিক করে তোলা যায়, তা নিয়েই গবেষণা হবে এই কেন্দ্রে। বিষয়টি নিয়ে মাস ছয়েক আগে থাকতেই কথা চলছে জার্মানির টিইউ মিউনিখের সঙ্গে। অবশেষে মউ স্বাক্ষরিতও হয়েছে। আর সেন্টার তৈরির আগে দু’দিনের এই কর্মশালা হয়ে যাচ্ছে। শুধু দুই দেশের প্রতিনিধিরাই নন, এই সেন্টার তৈরি করতে বিভিন্ন শিল্পপতিদেরও আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে।

[‘গোয়েন্দা’ ভাইয়ের জন্য পাত্রী দেখতে গিয়ে গ্রেপ্তার ‘ইঞ্জিনিয়ার’ দাদা]

প্রযুক্তির ব্যবহারে কীভাবে পরিবহণ ব্যবস্থাকে আরও আধুনিক করা যায়, তা নিয়েই গবেষণা চালানো হবে এখানে। গোটা দেশে সেন্ট্রাল রোড রিসার্চ ইনস্টিটিউট (সিআরআরআই) ছাড়া সেভাবে পরিবহণের উপর কোনও রিসার্চ সেন্টার নেই। এই সেন্টার তৈরি হলে গোটা দেশের মতো এই রাজ্যেও পরিবহণ ব্যবস্থায় যুগান্তকারী পরিবর্তন আসবে বলে মনে করা হচ্ছে। দূষণ রোধে পরিবেশবান্ধব ইলেকট্রিক ভেহিক্যাল এবং ব্যাটারি চালিত গাড়ির সংখ্যা কীভাবে বাড়ানো যায়, গাড়ি চলাচলে প্রযুক্তির ব্যবহার কতটা করা যায় এবং গোটা পরিবহণ ব্যবস্থাকে কতটা ইন্টেলিজেন্ট ও স্মার্ট করা যায়, তা নিয়ে গবেষণার জন্যই এই সেন্টার। তবে তা তৈরি করে কাজ শুরু হতে এখনও বছরখানেক লাগবে। এবং সেন্টার তৈরির প্রাথমিক ধাপ হিসাবেই এই কর্মশালা। সোম এবং মঙ্গলবার যা হবে খড়গপুর আইআইটিতে।

[পুলিশ আবাসন থেকে উদ্ধার এএসআইয়ের দেহ, আটক স্ত্রী]

রিসার্চ সেন্টার তৈরির হলে সেখানে কী কী করা হবে? সেন্টার তৈরির ক্ষেত্রে যাঁরা সহযোগিতা করবেন, তাঁদের মধ্যে কীভাবে সমন্বয় স্থাপন করা যায়, তা নিয়ে আলোচনা হবে। খড়গপুর আইআইটি-র এক অধ্যাপকের কথায়, নয়া এই পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে পরিবহণ ব্যবস্থাকে আরও গতিশীল করে তোলা যাবে গোটা দেশে। অনেক স্মার্ট হবে গাড়ি চলাচল৷  

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে