BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘ঘরের জানলাগুলো খোলা রাখুন’, করোনা রুখতে নতুন দাওয়াই মমতার

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: March 16, 2020 5:46 pm|    Updated: March 17, 2020 10:46 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা রুখতে এবার অভিনব দাওয়াই দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়(Mamata Banerjee)। হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করার পাশাপাশি সরকারি কর্মীদের উদ্দেশ্যে মুখ্যমন্ত্রীর পরামর্শ, “আপনারা ঘরের জানলাগুলো খোলা রাখুন। যেখানে এসি আছে সেখানেও জানালা খোলা থাক। আমি শুনেছি জানালা খোলা থাকলে অনেক ভাইরাস বেরিয়ে যায়।”

করোনা মোকাবিলায় শুরু থেকেই তৎপর রাজ্য সরকার। দিন তিনেক আগেও করোনা নিয়ে নবান্নে জরুরি বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী। সেদিন মুখ্যমন্ত্রী কনুই দিয়ে মুখ ঢেকে হাঁচার পরামর্শ দেন। যা নিয়ে নেটদুনিয়ায় রীতিমতো তোলপাড় পড়ে যায়। এদিন আরও একটি অদ্ভুদ পরামর্শ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। বৈঠক শেষে মমতাকে প্রশ্ন করা হয় সরকারি কর্মীদের সুরক্ষার জন্য কী কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে? সেই প্রশ্নের উত্তরে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “প্রত্যেকটা বিভাগকে নির্দেশিকা দেওয়া হয়েছে, তাঁরা স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধুয়ে ঢুকবে, এবং বেরিয়েও হাত ধোবে। সেই সঙ্গে ঘরের জানলা-দরজা খোলা রাখতে হবে।দরজা-জানলা খোলা থাকলে অনেক সময় ভাইরাস বেরিয়ে যায়। আমি জানিনা। এটা আগেকার দিনের লোকেরা বলে।”

[আরও পড়ুন: করোনা মোকাবিলায় ২০০ কোটির তহবিল রাজ্য সরকারের, বন্ধ সিনেমা হল]

উল্লেখ্য, সোমবার নবান্নে করোনা মোকাবিলায় জরুরি বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী। তাতে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন তিনি। তিনি জানান, সন্দেহভাজন কোনও ব্যক্তি চিকিৎসা এড়িয়ে গেলে, কোয়ারেন্টাইনে না থাকলে তাঁর বিরুদ্ধে কড়া আইন প্রয়োগ করা হবে। কর্ণাটক, দিল্লির পথে হেঁটে এই আইন প্রয়োগের পথে হাঁটল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকার। করোনা মোকাবিলায় তৈরি হচ্ছে ২০০ কোটি টাকার তহবিল। আজ নবান্নে করোনা নিয়ে জরুরি বৈঠকের পর সাংবাদিক সম্মেলন করে একাধিক নয়া সিদ্ধান্তের কথা জানান মুখ্যমন্ত্রী।সংক্রমণের আশঙ্কায় ৩১ মার্চ পর্যন্ত রাজ্যের সরকারি, বেসরকারি স্কুল-কলেজ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছিল আগেই। এবার সেই ছুটি ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়িয়ে দেওয়ার ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী। বন্ধ থাকবে আইসিডিএস সেন্টার, সিনেমা হল, শুটিংও। করোনা মোকাবিলায় ২০০ কোটি টাকা তহবিল তৈরি করা হয়েছে। যার আওতায় থাকছে ১০ লক্ষ স্বাস্থ্যকর্মীর জন্য ৫ লক্ষ টাকা করে স্বাস্থ্যবিমা করার সুযোগ। এছাড়া এই তহবিলের অর্থে স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য ২ লক্ষ সংক্রমণ নিরোধক পোশাক, ২ লক্ষ N95 মাস্ক, ৩০০ ভেন্টিলেশন কেনার বরাত দেওয়া হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement