BREAKING NEWS

১৫  আষাঢ়  ১৪২৯  শনিবার ২ জুলাই ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

২ বছর পর রাজ্যে ছাত্রভোট, ঘোষিত প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাচনের দিন

Published by: Sayani Sen |    Posted: October 21, 2019 6:22 pm|    Updated: October 21, 2019 6:22 pm

Presidency University announces election date in Monday

ফাইল ফটো

দীপঙ্কর মণ্ডল: দীর্ঘ বিরতির পর গোটা রাজ্যের নিরিখে ছাত্রভোটের প্রথম দরজা খুলে দিল প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়। ভোট হবে ১৪ নভেম্বর। সোমবার কর্তৃপক্ষ এই বিষয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে। অশান্তি এড়াতে আগের মতো অনলাইনেই মনোনয়ন জমা দিতে হবে। খসড়া ভোটার তালিকা প্রকাশ হবে ২৪ অক্টোবর। সংশোধিত ভোটার তালিকা এক সপ্তাহ পরে। ১ থেকে ৫ নভেম্বর অনলাইনে মনোনয়ন জমা দিতে হবে। ভোটের দিনেই গণনা এবং ফলপ্রকাশ।

প্রেসিডেন্সিতে বাম রাজনীতিরই রমরমা। এসএফআই এবং বামপন্থী (ইন্ডিপেন্ডেন্ট কনসলিডেশন) আইসি’র মধ্যেই মূল লড়াই। তবে এবার তৃণমূল ছাত্র পরিষদ এবং অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ মনোনয়ন জমা দিতে চলেছে। ক্যাম্পাসে ভোট প্রচারে মিছিল-মিটিং আগেই বন্ধ হয়েছে। ৮ নভেম্বর একই মঞ্চে বিরোধী প্রার্থীরা নিজেদের নিজেদের বক্তব্য রাখবেন। জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়েও এই মডেলে ভোট হয়।

রাজ্যের ছাত্রভোটে ব্যাপক হিংসায় বহু ছাত্র জখম হয়েছেন। এমনকি এড়ানো যায়নি প্রাণহানিও। মূলত মনোনয়ন পেশকে কেন্দ্র করে হিংসা হয়। সেদিক থেকে অনলাইনে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার ব্যবস্থা করে পথ দেখিয়েছে প্রেসিডেন্সি। গত দু’বছর রাজ্যের কোনও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই ছাত্র সংসদের ভোট হয়নি। কয়েকদিন আগে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় ঘোষণা করেন যাদবপুর, প্রেসিডেন্সি, রবীন্দ্রভারতী ও ডায়মন্ড হারবারের মতো একক বিশ্ববিদ্যালয়কে ছাত্রভোট করানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। রাজ্যের অন্য বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজগুলিতে পরে ছাত্রভাট হবে বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী। আগামী ১৫ নভেম্বর মুখ্যমন্ত্রী তৃণমূল ছাত্র সংগঠনের কর্মশালায় যোগ দেবেন। তার প্রস্তুতি নিচ্ছে তৃণমূল। এখন তৃণমূল ছাত্ররা কলেজের গেটে ‘শুভ বিজয়া’ লেখা ব্যানার নিয়ে জনসংযোগের কাজ করছেন। তার মাঝেই ছাত্রভোটের কথা ঘোষণা করল প্রেসিডেন্সি কর্তৃপক্ষ।

[আরও পড়ুন: কলেজ জীবনে শহরের এখানেই সময় কাটাতেন অভিজিৎ, জানেন কোথায়?]

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে কয়েকদিন আগে ছাত্রভোট নিয়ে মুখ খোলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। সুপ্রিম কোর্টের গাইডলাইন থাকা সত্ত্বেও রাজ্যের কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে আড়াই বছর কেন ভোট হয়নি সে প্রশ্ন তোলেন রাজ্যপাল। তিনি বলেছিলেন, “আমি শুনেছি রাজ্য সরকার ভোট করতে আগ্রহী। কিন্তু বাছাই করা নয়, সমস্ত কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে ভোট হওয়া দরকার।” রাজ্যপাল রাজ্যের সমস্ত বিশ্ববিদ্যালের আচার্য। তাঁর বক্তব্যের পর প্রেসিডেন্সি কর্তৃপক্ষ বৈঠকে বসে। এদিন বিজ্ঞপ্তি জারি করেন ডিন অফ স্টুডেন্টেস। রেজিস্ট্রার দেবজ্যোতি কোনার জানিয়েছেন, পুরনো নিয়ম মেনেই ভোট হবে।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে