BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

প্রেমের ফাঁদে ফেলে নগ্ন ছবি আদায়-ব্ল্যাকমেল, যৌন কেলেঙ্কারিতে নাম জড়াল বিজেপি নেতার ছেলের

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: May 7, 2020 10:59 am|    Updated: May 7, 2020 11:04 pm

An Images

ফাইল ফটো

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: নাবালিকাকে গণধর্ষণ ও ঘটনার স্বীকারোক্তির একটি স্ক্রিনশট কয়েকদিন ধরেই ভাইরাল সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেই ঘটনার সূত্র ধরেই প্রকাশ্যে এল কলকাতার একটি চক্রের নাম। একাধিক যৌন কেলেঙ্কারির ঘটনায় জড়িত ওই চক্রে রয়েছে এক বিজেপি নেতার ছেলে ও তাঁর বন্ধুরা। 

দিল্লির ১৫ বছরের নাবালিকাকে গণধর্ষণ প্রসঙ্গে মুখ খুলে কলকাতার এক মহিলা প্রথম প্রকাশ্যে আনেন যে, এমনই একটি চক্র বহু বছর ধরে গোপনে কাজ চালাচ্ছে কলকাতায়। চক্রে জড়িত সৌরদ্বীপ বসাক নামে এক যুবক ২০১৬ সালে প্রথম একটি গুগুল ড্রাইভ তৈরি করেন। সেটির অ্যাক্সেস দেওয়া হয় দলের বাকি সদস্যদেরও। কিন্তু ঠিক কী করত এই চক্রটি? জানা গিয়েছে, বেশ কিছুদিন কথা বলার পর মহিলাদের প্রেমের প্রস্তাব দিত তারা। সম্মতি মিলতেই প্রেমিকার কাছে আবদার যেন নগ্ন ছবির। তা মিলতেই সঙ্গে সঙ্গে আপলোড করা হত ড্রাইভে। ড্রাইভের অ্যাক্সেস থাকা সকলেই তা দেখতেন। আর কোনও ক্ষেত্রে কেউ যদি প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যখ্যান করতেন সেক্ষেত্রে প্রযুক্তির মাধ্যমে অন্যের নগ্ন শরীরে বসানো হত তাঁর মুখ। তবে দু’ক্ষেত্রেই পরবর্তীতে এই ছবি দিয়ে হুমকি দেওয়া হত মহিলাদের।

[আরও পড়ুন: রেশন বণ্টন নিয়ে রাজ্যকে খোঁচা, পালটা রাজ্যপালকে তোপ তৃণমূলের]

কারা জড়িত এই চক্রের সঙ্গে? সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া অভিযুক্তদের তালিকা অনুযায়ী রাজ্য বিজেপির এক শীর্ষ নেতার ছেলে, ইমনকল্যাণ ঘোষ, শ্রেয়ন চট্টোপাধ্যায়, দিব্যজ্যোতি বসাক, আয়ুশ বন্দ্যোপাধ্যায়-সহ একাধিক যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ও বর্তমান পড়ুয়া জড়িত এই ঘটনায়। এ বিষয়ে অভিযুক্ত আয়ুশ বন্দ্যোপাধ্যায়কে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে গোটা বিষয়ে তাঁর কোনও সম্পর্ক নেই, এমনকী এই ড্রাইভ সম্পর্কে কিছু জানে না বলেই দাবি করে সে। তবে সোশ্যাল মিডিয়ায় যে পোস্ট ছড়িয়ে পড়েছে, সেটিতে থাকা তথ্যের বাইরে এখনও অতিরিক্ত কোনও তথ্য দিতে পারেননি কেউ। প্রথম অভিযোগকারীর সঙ্গেও যোগাযোগ করাও সম্ভব হয়য়নি। তবে এই চক্রের বিষয়টি প্রকাশ্যে আসার পরই নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টটি নিষ্ক্রিয় করেছে সৌরদ্বীপ। যোগাযোগ করা যায়নি বিজেপি নেতার ছেলের সঙ্গেও। প্রসঙ্গত, শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী এই ঘটনায় এখনও পুলিশে অভিযোগ দায়ের হয়নি।

[আরও পড়ুন: ‘কাজ না থাকলে গ্লোবাল অ্যাডভাইজারি বোর্ড ভেঙে দিন’, মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি স্বপন দাশগুপ্তর]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement