BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ফুটপাথের খাবারে এবার ‘ব্র্যান্ডের ছোঁওয়া’

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: July 9, 2016 9:33 am|    Updated: July 9, 2016 9:33 am

An Images

স্টাফ রিপোর্টার: ফুটপাথের খাবারে এবার ‘ব্র্যান্ডের ছোঁওয়া’৷ ক্ষতিকারক রাসায়নিকের হাত থেকে শহরবাসীকে বাঁচাতেই এবার ফুটপাথের সব খাবারের দোকানদারদের জন্য কড়া দাওয়াইয়ের কথা ভাবতে শুরু করেছে কলকাতা পুরসভার স্বাস্থ্য বিভাগ৷ একই সঙ্গে ফুটপাথের সব দোকানদারে জন্য লাইসেন্স বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে বলে খবর৷ লাইসেন্স না নিলে থাকছে কড়া শাস্তির বিধানও৷
বেশ কয়েকদিন ধরেই শহরের রাস্তায়, অলিতে-গলিতে হানা দিয়েছেন পুর স্বাস্থ্য কর্তারা৷ তার পরই কড়া পদক্ষেপ নেওয়ার বিষয়টি ঠিক হয়৷ পুরসভা সূত্রে খবর, শহরের সব ফুটপাথের সব খাবারের স্টলের জন্যই এই নির্দেশ কার্যকর করা হচ্ছে৷ খাদ্য সুরক্ষা বিশেষজ্ঞ ইন্দ্রাণী চক্রবর্তীকে নিয়ে খাবারের স্টল মালিকদের প্রশিক্ষণেরও ব্যবস্থা করা হচ্ছে বলে স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে খবর৷
কিন্তু হঠাৎ ব্র্যান্ডের ছোঁওয়া কেন ফুটপাথের খাবারে? স্বাস্থ্য বিভাগের শীর্ষ কর্তারা জানাচ্ছেন, চাউমিন, রোল থেকে ফিশ ফিঙ্গার হোক বা ললিপপ, সবেতেই বিস্তর রাসায়নিকের ব্যবহার ধরা পড়ছে৷ মিলেছে ক্ষতিকারক রঙের অস্তিত্বও৷ যা মানুষের শরীরের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকারক৷ খোলা বাজারে একাধিক ধরনের খাবার তেল ও সস দেদার বিকোচ্ছে৷ আর এতেই ধরা পড়ছে সবচেয়ে বেশি ভেজাল৷ তাই এবার ব্র্যান্ডের হাত ধরে শহরবাসীকে খাবার পরিবেশন করার বিষয়টি বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে৷
এক পুর আধিকারিক জানিয়েছেন, খোলাবাজার থেকে যে সস বিক্রি হচ্ছে, তা তৈরি হচ্ছে কুমড়ো, সামান্য টমেটো ও রং দিয়ে৷ আবার তেলের মধ্যেও রয়েছে মানের তারতম্য৷ কিন্তু প্যাকেটজাত ব্র্যান্ডেড জিনিস ব্যবহার করলে অন্তত সেই ক্ষতির হাত থেকে শহরবাসীকে বাঁচানো যেতে পারে বলে মত পুর আধিকারিকদের৷ খাবার তেল, সস, ময়দা সবেতেই এবার নামকরা সংস্থার ছোঁওয়া থাকতে হবে৷ সব জায়গায় এই ব্যবস্থা কার্যকর করা হচ্ছে কি না তার উপরও নজর রাখবেন পুর স্বাস্থ্য কর্তারা৷ সম্প্রতি শহরের বিরিয়ানির দোকানেও হানা দিয়েছিলেন স্বাস্থ্য কর্তারা৷ একাধিক দোকানকে প্রয়োজনীয় নির্দেশ দেওয়ার পাশাপাশি সতর্কও করা হয় পুরসভার তরফে৷
অন্যদিকে এবার লাইসেন্স নিয়েও কড়া হচ্ছে পুরসভা৷ শহরের রাস্তার প্রত্যেক খাবার স্টল মালিককে ফুড লাইসেন্স করাতেই হবে৷ পাঁচ সেপ্টেম্বরের মধ্যে এই লাইসেন্স না করলে প্রায় তিন লক্ষ টাকা অবধি জরিমানা এমনকী অনাদায়ে ছ’মাস অবধি জেলও হতে পারে বলে পুরসভা সূত্রে খবর৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement