৩ শ্রাবণ  ১৪২৬  শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার
বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ

৩ শ্রাবণ  ১৪২৬  শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯ 

BREAKING NEWS

শুভময় মণ্ডল:  মুনলাইট সিনেমা হলের কাছে নয়, এবছর মহম্মদ আলি পার্কের পুজো হবে সেন্ট্রাল এভিনিউর দমকলকেন্দ্রের পিছনের ফাঁকা জমিতে। কলকাতা পুরসভার প্রতিনিধিদের সঙ্গে পরিদর্শন করার পর উদ্যোক্তারা পুজোর স্থান চূড়ান্ত করে ফেলেছেন বলে জানা গিয়েছে। এখন দমকল কর্তৃপক্ষ অনুমতি দিলেই, পুজোর তোড়জোড় শুরু হবে যাবে বলে খবর। স্থান সংকুলানের কারণে এবার পুজোর বহরও কম করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বসবে না মেলাও।

[আরও পড়ুন: কাজ করার সময়ে দুর্ঘটনা, কলকাতা বিমানবন্দরে মৃত্যু বিমানকর্মীর]

গত বছর পর্যন্ত পুজো হয়েছে মহম্মদ আলি পার্কে। কিন্তু এবার আর হবে না। স্রেফ এবছরের জন্য পুজোর স্থান পরিবর্তনের অনুমতি চেয়ে কলকাতা পুরসভার কাছে আবেদন করেছিলেন মহম্মদ আলি পার্কের দুর্গাপুজোর উদ্যোক্তারা। প্রথমে ঠিক হয়েছিল, পুজো হবে পার্কের উলটো দিকে মুনলাইট সিনেমা হলের কাছে, ৩৯ নম্বর তারাচাঁদ দত্ত স্ট্রিটে। কিন্তু সেখানে পুজো করার ক্ষেত্রে কিছু সমস্যা দেখা দেয়। এদিকে পুজোরও আর বেশি দেরি নেই! বাধ্য হয়ে ফের কলকাতা পুরসভারই দ্বারস্থ হন উদ্যোক্তারা। পুরসভার তরফে সেন্ট্রাল এভিনিউতেই দমকলকেন্দ্রের পিছনের ফাঁকা জমিতে পুজো করার প্রস্তাব দেওয়া হয়। মঙ্গলবার পুর প্রতিনিধিদের সঙ্গে জায়গাটি দেখেও আসেন মহম্মদ আলি পার্কের পুজোর উদ্যোক্তারা। এখনও পর্যন্ত যা খবর, দমকলকেন্দ্রের পিছনের ফাঁকা জমিতেই পুজো করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তাঁরা।

কিন্তু মহম্মদ আলি পার্কে পুজো হবে না কেন?  কলকাতা পুরসভা সূত্রে খবর, মহম্মদ আলি পার্কের নিচে একটি জলাধার আছে। ব্রিটিশ আমলের ওই জলাধারটি ইটের কাঠামো দিয়ে তৈরি। কালের নিয়মে সেই কাঠামোটি দূর্বল হয়ে গিয়েছে। মাস খানেক আগে জলাধারের পাশে ইটের পাঁচিলের একাংশ ভেঙে গিয়ে জলে ভেসে গিয়েছিল মহম্মদ আলি পার্ক ও সেন্ট্রাল এভিনিউয়ের একাংশ। পুরসভার উদ্যান ও জল সরবরাহ বিভাগের ইঞ্জিনিয়ার তখন কোনওমতে পরিস্থিতি সামাল দিয়েছিলেন। পরে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞরা জলাধারের ইটের কাঠামোটি পরীক্ষা করে জানান, সেটি অত্যন্ত দূর্বল হয়ে পড়েছে। অবিলম্বে মেরামতির প্রয়োজন। আর যখন মেরামতির কাজ চলবে, তখন মহম্মদ আলি পার্কের উপর কোনও চাপ দেওয়া যাবে না। কলকাতা পুরসভার মেয়র ফিরহাদ হাকিম নিজে পুজো উদ্যোক্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠকে এ বছরের জন্য পুজো অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার অনুরোধ করা হয়। সেই আবেদনে সাড়া দিয়েই এবার মহম্মদ আলি পার্কে পুজো না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন উদ্যোক্তারা।

[আরও পড়ুন: উল্টোডাঙা উড়ালপুলে ফাটল, আপাতত বন্ধ যানচলাচল]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং