BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘পুলিশ শাসকদলের কর্মীর মতো আচরণ করছে কেন?’, মুখ্যমন্ত্রীর কাছে ব্যাখ্যা চাইলেন রাজ্যপাল

Published by: Sayani Sen |    Posted: July 23, 2020 4:05 pm|    Updated: July 23, 2020 4:36 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ফের রাজ্যকে খোঁচা দিয়ে টুইট করলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড় (Jagdeep Dhankhar)। এবার টুইটে পুলিশের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন তিনি। পুলিশ কার্যত দলদাসের মতো কাজ করছে বলেই দাবি রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধানের। বিরোধী দলের নেতানেত্রীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ তাঁর। এ বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Mamata Banerjee) কাছে ব্যাখ্যাও চেয়েছেন রাজ্যপাল।

রাজ্যপাল বৃহস্পতিবার একটি ভিডিও বার্তা টুইট করে বলেন, “বিরোধী নেতানেত্রী, সাংসদ, বিধায়কদের উপর যেভাবে পুলিশ জুলুমবাজি চালাচ্ছে তা মানা যায় না। পুলিশ কার্যত শাসকদলের কর্মীদের মতো আচরণ করছে। গণতন্ত্রে এ জিনিস বরদাস্ত করা হবে না। রাজ্যের ভেঙে পড়া আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনার জন্য মুখ্যমন্ত্রীকে ডেকেছি। তাঁর কাছ থেকেই সরাসরি আমি শুনতে চাই।”

[আরও পড়ুন: ‘বাড়িতে বাথরুম নেই, পায়খানা করতে বেরিয়েছি’, লকডাউনে বাইরে বেরনোর কারণ শুনে অবাক পুলিশ]

দিনকয়েক আগে বিজেপির তরফে অভিযোগ করা হয়, বারাকপুরের সাংসদ অর্জুন সিং (Arjun Singh) এবং তাঁর ছেলে পবন সিংকে এনকাউন্টার করে হত্যার ছক কষছে রাজ্য পুলিশ। সার্চ ওয়ারেন্ট ছাড়াই পুলিশ তাঁর বাড়িতে হানা দেয় বলেও অভিযোগ করেন বিজেপি সাংসদ। রাজ্যপালের কাছে সে বিষয়টি জানান অর্জুন সিং। তার আগে রানাঘাটের সাংসদ জগন্নাথ সরকার, বালুরঘাটের সাংসদ সুকান্ত মজুমদার, আলিপুরদুয়ারের সাংসদ জন বার্লা-সহ অনেকেই রাজ্যপালের কাছে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে অভিযোগ করেন। এছাড়াও CESC’র বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে আমফান (Amphan) পরবর্তী পরিস্থিতিতে রাস্তা অবরোধ করায় চাঁপদানির বিধায়ক চূড়ান্ত পুলিশি হেনস্তার শিকার হন বলেও অভিযোগ ওঠে। আব্দুল মান্নান এ বিষয়টি রাজ্যপালকে চিঠি লিখেও জানান। প্রত্যেকের অভিযোগ পেয়েই ভিডিও টুইট করেছেন বলেই দাবি জগদীপ ধনকড়ের।

রাজ্যপালের সঙ্গে রাজ্যের সংঘাত নতুন নয়। নবান্ন এবং রাজভবনের মধ্যে টুইট কিংবা পত্রবোমা আদানপ্রদান চলতেই থাকে। গত ১৫ জুলাই নবান্নে রাজ্যপালের আচরণ নিয়ে চূড়ান্ত ক্ষোভপ্রকাশ করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তারপর ২১ জুলাইয়ের মঞ্চ থেকেও ধনকড়কে আক্রমণ করতে ছাড়েননি তিনি। আরও একবার ভিডিও বার্তা টুইট করে সংঘাতের আগুনে ঘি ঢাললেন রাজ্যপাল। যদিও টুইটের পালটা এখনও কোনও প্রতিক্রিয়া রাজ্যের তরফে পাওয়া যায়নি।

[আরও পড়ুন: গোবিন্দপুর রেল কলোনি বসতিতে গোষ্ঠী সংক্রমণের আশঙ্কা, সিল করা হল এলাকা]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement