২১ ফাল্গুন  ১৪২৭  সোমবার ৮ মার্চ ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

ভাইরাস ভেবে রোগীর শরীরেই হামলা, বিপদ বাড়াচ্ছে করোনার অ্যান্টিবডি! দাবি গবেষকদের

Published by: Biswadip Dey |    Posted: October 29, 2020 10:58 am|    Updated: October 29, 2020 11:03 am

An Images

ছবি: প্রতীকী।

গৌতম ব্রহ্ম: রজ্জুতে সর্পভ্রম! রোগের মোকাবিলায় তৈরি হওয়া অ্যান্টবডি (Antibodies) ভুল করে ভাইরাস ভেবে শরীরে মজুত বিভিন্ন কোষকলার উপরেই হামলা চালাচ্ছে! পরিণতি গাঁটে গাঁটে প্রবল ব্যথা কিংবা স্নায়ুরোগের মতো সমস্যা। যা উপসর্গযুক্ত কোভিড (COVID-19) রোগীদের মধ্যে হামেশাই দেখা যাচ্ছে। অ্যান্টবডির এই শত্রু না চেনার রোগ নিয়ে চিকিৎসকেরা অত্যন্ত চিন্তিত। তাঁদের পর্যবেক্ষণ, দ্রুত অ্যান্টিবডির ‘দাদাগিরি’ ধরা গেলে ভালো। স্টেরয়েড প্রয়োগ করে পরিস্থিতি আয়ত্তে আনা যাবে। কিন্তু তা না হলেই সমস্যা।

ভাইরাসের মধ্যে যে প্রোটিন থাকে, তার সঙ্গে গঠনগত মিল থাকা প্রোটিন মানুষের দেহে পাওয়া যায়। একে বলে মলিকিউলার মিমিক্রি। অনেক সময় শরীর কোভিডের বিরুদ্ধে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিবডি তৈরি করছে। যা ভাইরাসের উপর তো বটেই, শরীরে মজুত ফসফোলিপিড বা টাইপ ১ রিসেপটরের মতো অটো অ্যান্টিজেন বা প্রোটিনের উপরও হামলা চালাচ্ছে। যার ফলে রিওম্যাটয়েড আর্থ্রাইটিসের মতো উপসর্গ দেখা যাচ্ছে কোভিড রোগীদের শরীরে। আসলে আমাদের অস্থিসন্ধিতে মজুত অ্যান্টিজেনের উপরও হামলা চালাচ্ছে অ্যান্টিবডি। তৈরি করছে ‘টিস্যু প্যাথোলজি’। ফলে গাঁটে গাঁটে জন্ম নিচ্ছে অসহ্য ব্যথা।

[আরও পড়ুন: প্রযুক্তি দিয়ে পরিবেশের ক্ষয়রোধ সম্ভব নয়, বরিস জনসনের ধারণা ভেঙে দিলেন বিশেষজ্ঞরা]

কোভিড রোগীর অস্থিসন্ধির ব্যথা যে অ্যান্টবডির খেলা, তা আন্দাজ করা যাচ্ছিল। এবার হাতেনাতে প্রমাণ মিলেছে। ৩১ জন সঙ্কটজনক কোভিড রোগীর উপর গবেষণা চালিয়ে অ্যান্টিবডির এই শত্রু না চেনার ক্ষমতার কথা জানা গিয়েছে। আটলান্টার ইমোরি ইউনিভার্সিটির মার্কিন গবেষক দল বিভিন্ন মার্কার ব্যবহার করে দেখিয়েছে, কীভাবে অ্যান্টিবডি হামলা চালাচ্ছে কোভিড আক্রান্ত শরীরে। ফলে ওই ৩১ জন রোগীর শরীরে সি রিঅ্যাকটিভ প্রোটিনের (সিআরপি) পরিমাণ বেড়ে যাচ্ছে। পরিমাণ বেড়েছে নিউক্লিয়ার অ্যান্টিবডিরও। অটো ইমিউন রেসপন্সের ক্ষেত্রেও এমনটাই হয়। শরীরে মজুত রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শরীরের বিরুদ্ধেই লড়াই শুরু করে। কোভিড আক্রান্ত হওয়ার কয়েকদিন পর থেকেই এই অটো ইমিউন রেসপন্স দেখা যাচ্ছে অনেকের শরীরে।

সম্প্রতি এই গবেষণার বিষয় বায়ো আর্কাইভ জার্নালে প্রকাশিত হয়। গবেষণাপত্রটি উল্লেখ করে ভাইরোলজিস্ট ডা. সিদ্ধার্থ জোয়ারদার জানিয়েছেন, আমাদের শরীরে দু’রকম অ্যান্টিজেন দেখা যায়। শরীরের অভ্যন্তরে তৈরি হওয়া অ্যান্টিজেন বা অটো অ্যান্টিজেন। আর সার্স-কোভ-২-এর মতো শরীরের অনুপ্রবেশ করা জীবাণু বা অ্যান্টিজেন। কোভিড অ্যান্টিবডি এই অ্যান্টিজেন ও অটো-অ্যান্টিজেনের মধ্যে গুলিয়ে ফেলছে। তাতেই রোগীর ভোগান্তি চরমে উঠছে।

[আরও পড়ুন: ভিনগ্রহীদের নজরে পৃথিবী, নক্ষত্র চিহ্নিত করে দাবি বৈজ্ঞানিকদের]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement