BREAKING NEWS

৩২ আষাঢ়  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১৬ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

খাদ্যে বিষক্রিয়ার কারণ হতে পারে আপনার রান্নাঘরের তোয়ালে!

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: June 11, 2018 8:54 pm|    Updated: June 11, 2018 8:54 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রান্না করতে করেতে তোয়ালে দিয়ে বাসন বা হাত মুছে থাকেন অনেকে। কিন্তু জানেন কি, এই নোংরা তোয়ালে থেকেই আপনি বিষক্রিয়ার শিকার হতে পারেন? বিশেষত শিশু ও বৃদ্ধের ক্ষেত্রে এই আশঙ্কা অনেক বেশি। মরিশাস বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফে সম্প্রতি একটি গবেষণা করা হয়েছিল। সেখানেই প্রকাশ পেয়েছে এই তথ্য।

গবেষণায় প্রকাশ পেয়েছে, ওই অপরিষ্কার তোয়ালে থেকে উৎপত্তি হয় প্যাথোজেন গ্যাসের। গবেষণায় দেখা গিয়েছে পরিবার কতটা বড়, তার ফলে খাবারের প্রকারভেদ ও অন্যান্য অনেক কারণে প্যাথোজেনের উৎপত্তি। মরিশাস বিশ্ববিদ্যালয়ের হেলথ সায়েন্সের প্রফেসর সুশীলা ডি বিরাঞ্জিয়া-হরদয়াল জানিয়েছেন, গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে পরিবারের সদস্য সংখ্যা এবং স্বাস্থ্যকর অভ্যাসের উপর এই ক্ষতি নির্ভর করে। এছাড়া খাবারের রকমভেদ, তোয়ালের ব্যবহারের উপর ভিত্তি করেও তৈরি হয় জীবাণু।

রোদ্দুরকে ডোন্ট কেয়ার করতে চান? ব্যাগে রাখুন এই পাঁচটি জিনিস ]

এক মাস ধরে ব্যবহার করা ১০০টি তোয়ালে গবেষণার কাজে ব্যবহার করা হয়েছিল। গবেষণার সময় প্রায় ৪৯ শতাংশ তোয়ালেতে জীবাণু মিলেছে। দেখা গিয়েছে, যেই পরিবারে সদস্য সংখ্যা বেশি বা বাড়িতে বাচ্চা রয়েছে, সেই পরিবারের তোয়ালেতে জীবাণুও বেশি। রান্নাঘরে তোয়ালে বাসন মোছা, হাত মোছা, বাসন ধরা, রান্নার জায়গা পরিষ্কার করা সহ একাধিক কাজে ব্যবহৃত হয়। বিভিন্ন ধরণের কাজ একটি তোয়ালে নিয়ে করার ফলে জীবাণু বেশি হয়। কিন্তু এক একটি কাজের জন্য এক একটি তোয়ালে ব্যবহার করলে এটি হয় না।

এছাড়া আর্থ সামাজিক অবস্থার উপরেও তোয়ালেতে জীবাণু বৃদ্ধি নির্ভর করে। গবেষণায় এও দেখা গিয়েছে, শুকনো তোয়ালের থেকে ভিজে তোয়ালেতে জীবাণু ছড়ায় বেশি। নিরামিষের থেকে আমিষ খাবার যদি কোনও পরিবারের মেনুতে বেশি থাকে, তবে সেখানেও জীবাণু বেশি ছড়ানোর সম্ভাবনা থাকে।

তিরিশের পর এই সহজ উপায়ে যৌবন ধরে রাখতে পারেন আপনিও ]

রান্নাঘরের তোয়ালে যে প্যাথোজেনের তৈরি হয়, তা রান্নাঘরে দূষণের জন্য দায়ী। এখান থেকে খাদ্য বিষক্রিয়াও হতে পারে। এই কারণে একটি তোয়ালে একাধিক ক্ষেত্রে ব্যবহার করা কখনই উচিত নয় বলে জানিয়েছেন প্রফেসর সুশীলা।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement