৭ ফাল্গুন  ১৪২৬  বৃহস্পতিবার ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ‘পাত্রী চাই’ বিজ্ঞাপনের কলামে চোখ রাখলে এখনও তাজ্জব হতে হয়। যখন মানুষ মঙ্গলে পাড়ি দেবে ভাবছে, তখনও বরপক্ষের দাবি সুশ্রী পাত্রী। কথায় বলে, সুন্দর মুখের জয় সর্বত্র। কিন্তু সত্যিই কি সৌন্দর্যের কোনও বিকল্প নেই? ফিলহাল সমীক্ষা অবশ্য সে কথা বলছে না।

জানেন, আপনার প্রিয় এই খাবারগুলি আসলে ভারতীয়ই নয়? ]

সম্প্রতি এ বিষয়ে এক বড়সড় সমীক্ষা চালায় ‘বানিহাল’ নামে এক প্ল্যাটফর্ম।  মনস্তত্ত্বের উপর ভিত্তি করে জীবনসঙ্গী খোঁজায় সাহায্য করে এই ইঞ্জিন। দিল্লি, মুম্বই ও বেঙ্গালুরুর ম্যাচমেকিং সাইটে প্রায় ১০,০০০ ব্যবহারকারীর সঙ্গিনী খোঁজার তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা হয়। তাতেই উঠে আসে নতুন তথ্য। জানা যাচ্ছে, বেশিরভাগ ভারতীয় পুরুষের কাছেই সঙ্গিনীর সৌন্দর্য আর বড় বিষয় নয়। বরং মহিলাদের উদারতা বা ‘কাইন্ডনেস’ই বিবেচ্য বিষয়। এই ‘কাইন্ডনেস’ শব্দটি অবশ্য রূপক, সাধারণভাবে সৌন্দর্য ব্যতিরেকে মহিলাদের অন্যান্য গুণের দিকেই যে পুরুষরা এখন বেশি আকৃষ্ট – সেটাই এই তথ্য থেকে বোঝা যাচ্ছে। রীতিমতো তথ্য দিয়েই এই সিদ্ধান্ত প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। ২৭ শতাংশ ভারতীয় পুরুষের কাছেই এই ‘প্যারামিটার’ হল উদারতা।  মহিলাদের শিক্ষাগত যোগ্যতায় আকৃষ্ট হচ্ছেন ৬ শতাংশ পুরুষ। মোটে ৮ শতাংশ পুরুষই সৌন্দর্যকেই এখনও প্রাধান্য দিয়ে থাকেন।  আবার বেঙ্গালুরুর পুরুষদের প্রথম পছন্দ ‘ইন্ডিপেন্ডেন্ট’ বা স্বনির্ভর মহিলা। এই হার দিল্লি ও মুম্বইয়ের ক্ষেত্রে অনেকটাই কম।

ব্লেন্ডারের সঙ্গে ‘সেক্স’ করতে গিয়ে এই কিশোরের কী দশা হল জানেন?  ]

এই তথ্য নিছকই পরিসংখ্যান নয়। সৌন্দর্যকেই শিরোধার্য করে ভারতীয় নারীদের কম বঞ্চনা সহ্য করতে হয়নি। আজও সে ট্র্যাডিশন সমানে চলছে। তবে কোথাও কোথাও না পরিবর্তনের স্রোতও বইছে। মানসিকতায় বদল আসছে। এই সমীক্ষা সে ইঙ্গিতই দিল।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং