২৭ আষাঢ়  ১৪২৭  রবিবার ১২ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

ছবিই প্রতিবাদের ভাষা, প্রি ওয়েডিং ফটোশুটে CAA বিরোধিতা যুগলের

Published by: Sayani Sen |    Posted: December 22, 2019 2:44 pm|    Updated: December 22, 2019 6:23 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: জেনওয়াই এখন কিছু করার আগেই সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করার কথা ভাবতে থাকে। আর যদি বিয়ে হয়, তাহলে তো কথাই নেই। নতুন জীবন শুরু করার প্রত্যেক মুহূর্ত পারলে সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করে তারা। তাই ছবি ভাল হতেই হবে। তবে শুধু বিয়ের দিনই নয়। প্রি ওয়েডিং ফটোশুট না করালে চলবেই না। ওই ছবি প্রমাণ দেয় মিষ্টি মধুর রসায়নের। কিন্তু কেরলের যুগল সেদিক থেকে এক্কেবারে ব্যতিক্রমী। নিজেদের প্রি ওয়েডিং ফটোশুটের মাধ্যমে প্রেমের রসায়ন নয় পরিবর্তে প্রকাশ পেল প্রতিবাদ। ছবির মাধ্যমেই CAA, NRC’র বিরুদ্ধে গর্জে উঠলেন তাঁরা।

কেরলেই বেড়ে ওঠা জি এল অরুণ গোপী এবং আশা শেখরের। মন দেওয়া নেওয়াও ঈশ্বরের দেশেই। দুই পরিবারের সম্মতি পেতে বিশেষ সমস্যা হয়নি। সকলের সিদ্ধান্তে আগামী বছরের ২১ জানুয়ারি বিয়ের দিনক্ষণ স্থির হয়ে অরুণ-আশার। আর পাঁচজনের মতো কেরলের ওই যুগলও ঠিক করেছিলেন প্রি ওয়েডিং ফটোশুট করাবেন। তবে মাঝে ঘটে গিয়েছে অনেক কিছু। সংসদের দুই কক্ষের পর রাষ্ট্রপতি সিলমোহর দিয়েছেন নাগরিকত্ব আইনে। আর CAA’র জেরে পরিস্থিতি ক্রমেই জটিল হচ্ছে কেরলের। প্রতিবাদ, বিক্ষোভ যেন লেগেই রয়েছে। চাপা উত্তেজনা ক্রমশ পুঞ্জীভূত হচ্ছে। নতুন জীবনে পা রাখতে চলা অরুণ-আশারও মন ভাল নেই। তাঁরা সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনকে (CAA) সমর্থন করতে পারছেন না। কিন্তু হিংস্র আন্দোলনের পক্ষপাতী নন তাঁরা। তাই তো প্রতিবাদের ভাষা হিসাবে ছবিকে বেছে নেন তাঁরা।

[আরও পড়ুন: অসমে জমি কিনতে পারবেন ভূমিপুত্ররাই, আইনে বড়সড় বদলের উদ্যোগ রাজ্য সরকারের]

সম্প্রতি প্রি ওয়েডিং ফটোশুট করান তাঁরা। চিত্রগ্রাহক ওই ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেন। ফটোশুটের একটি ছবিতে দু’জনের হাতে রয়েছে দু’টি পোস্টার। অরুণের হাতে রয়েছে ‘No CAA’ লেখা পোস্টার। এবং ‘No NRC’ লেখা পোস্টার হাতে দাঁড়িয়ে রয়েছেন আশা। নতুন জীবনে পা রাখতে চলা ওই যুগলের দাবি, এভাবেই CAA, NRC’র প্রতিবাদ জানাচ্ছেন তাঁরা।

Photoshoot

ফটোশুট ব্যতিক্রমী হলে তা তো ভাইরাল হবেই। এ ছবির ক্ষেত্রেও তার ব্যতিক্রম হয়নি। আশা-অরুণের অভিনব প্রতিবাদ বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ার হটকেক। বিক্ষোভ-আন্দোলন ছাড়াও যে প্রতিবাদে গর্জে ওঠা যায় তাই প্রমাণ করে দিয়েছেন কেরলের যুগল।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement