BREAKING NEWS

৭  আশ্বিন  ১৪২৯  শনিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

‘ফেসবুককে ধ্বংস করছেন জুকারবার্গ নিজেই’, কেন এমন বিস্ফোরক দাবি হার্ভার্ডের অধ্যাপকের

Published by: Biswadip Dey |    Posted: September 16, 2022 1:29 pm|    Updated: September 16, 2022 2:54 pm

Herverd expert says Mark Zuckerberg is destroying Facebook। Sangbad Pratidin

মার্ক জুকারবার্গ

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ফেসবুক (Facebook) তথা মেটার পয়লা নম্বর শত্রু কে? যে কোনও সংস্থার নানা প্রতিদ্বন্দ্বী সংস্থা থাকে। কিন্তু মেটার সবচেয়ে বড় শত্রু অন্য কোনও সংস্থা নয়। স্বয়ং মার্ক জুকারবার্গ। তিনিই ফেসবুককে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যাচ্ছেন। এমনই বিস্ফোরক দাবি করতে দেখা গেল হার্ভার্ডের এক অধ্যাপককে। বিল জর্জ নামের ওই অধ্যাপকের দাবি ঘিরে শোরগোল সোশ্যাল মিডিয়ায়।

এক আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলার সময় হার্ভার্ডের ওই ফেলো বলেন, ”আমি মনে করি, যতদিন উনি আছেন ফেসবুকের বিশেষ উন্নতি কিছু হবে না। যে সমস্ত কারণে অনেকেই ওই সংস্থা ছেড়ে দিচ্ছেন, তার মধ্যে অন্যতম কারণ উনি নিজে। উনি সত্যিই দিগভ্রষ্ট হয়ে গিয়েছেন।”

[আরও পড়ুন: নবান্ন অভিযানে পুলিশি ‘নির্যাতন’! বিস্তারিত তথ্য নিতে রাজ্যে আসছে বিজেপির কেন্দ্রীয় দল]

সম্প্রতি জর্জ একটি বই লিখেছেন। ‘অথেন্টিক’ নামের সেই বইয়ে তিনি দাবি করেছেন, যে ‘খারাপ’ বসদের জন্য সংস্থা ডোবে, তার অন্যতম উদাহরণ জুকারবার্গ। মোট পাঁচটি ধরনের কথা তিনি বলেছেন। যার মধ্যে তিনটি ধরনই মিলে যায় জুকারবার্গের সঙ্গে। যার মধ্যে একটি ধরন হল সব সময় ব্যর্থতার জন্য অন্যদের দায়ী করা। দ্বিতীয়টি হল, কারও পরামর্শ শুনতে না চাওয়া। তৃতীয়ত, নিজের পিঠ নিজে চাপড়ানো অর্থাৎ সব সময় নিজেকে বড় করে দেখানো।

তাঁর এহেন দাবি ঘিরে বিতর্ক শুরু হয়েছে। তবে এত সমালোচনার মধ্যেও ভাল দিকটি হল, জুকারবার্গকে খারাপ বসদের সব কটি ক্যাটাগরিতে ফেলেননি ওই অধ্যাপক। পাশাপাশি জর্জ জানিয়েছেন, চাইলে মার্ক নিজেকে পালটে ফেলতে পারেন। যদিও এই বিপুল সাফল্যের পর তা করা কঠিন। তবু জর্জের পরামর্শ, সাময়িক ভাবে সব কিছু থেকে নিজেকে সরিয়ে বিশ্রাম নিন জুকারবার্গ। সেই সঙ্গে নিজের মূল্যবোধ ও অন্য বিষয়গুলি নিয়ে চিন্তা করুন। তারপর সব কিছু নতুন করে শুরু করতে। কিন্তু ওয়াকিবহাল মহলের প্রশ্ন এটাই, আকাশছোঁয়া সাফল্য পাওয়া জুকারবার্গ কি আত্মসংশোধনের কথা ভাববেন?

[আরও পড়ুন: লাদাখের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের পর প্রথমবার মোদি-জিনপিং বৈঠক? ক্রমেই বাড়ছে ধন্দ]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে