BREAKING NEWS

১৪ কার্তিক  ১৪২৭  শনিবার ৩১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

বিপুল চাহিদার জের, দাম বাড়ছে একগুচ্ছ স্মার্টফোনের

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: November 15, 2018 8:10 pm|    Updated: November 15, 2018 8:10 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ই-কমার্স সাইট বা পারস্পারিক প্রতিদ্বন্দ্বিতার জেরে ভারতে স্মার্টফোনের দাম এখন তলানিতে। সংস্থাগুলি একে অপরের থেকে সস্তায় স্মার্টফোন বিক্রি করতে গিয়ে অনেক সময় ভারসাম্য হারিয়ে ফেলছে। নিজেদের কোয়ার্টারলি রিভিউ-এ এমনটাই দাবি করছে ইন্টারন্যাশনাল ডাটা কর্পোরেশন নামের একটি সংস্থা। সংস্থার রিপোর্ট অনুযায়ী, যে হারে ভারতে স্মার্টফোনের বিক্রি বাড়ছে তাতে দ্রুত দাম বাড়তে চলেছে একাধিক ফোন প্রস্তুতকারী সংস্থা।

[আগামী বছরই 5G স্মার্টফোন বাজারে আনছে ওয়ান প্লাস]

আইডিসির রিপোর্ট অনুযায়ী, ২০১৮-১৯ অর্থবর্ষের দ্বিতীয় কোয়ার্টারে ভারতে স্মার্টফোনের বিক্রি ফিচার ফোনের সমান হয়ে গিয়েছে। অর্থাৎ, যে পরিমাণ ফিচার ফোন বিক্রি হচ্ছে সেই একই পরিমাণ স্মার্টফোন বিক্রি হচ্ছে। শুধু গত ত্রৈমাসিকে ভারতে প্রায় ৪ কোটি ২৬ লক্ষ স্মার্টফোন বিক্রি হয়েছে। স্মার্টফোনের বাজারে এই কোয়ার্টারেও স্যামসংকে টেক্কা দিয়েছে শাওমি। ভারতে বিক্রিত মোট স্মার্টফোনের ২৭.৩ শতাংশই শাওমির। খালি চিনের এই সংস্থাটিই প্রায় ১ কোটি ১৭ লক্ষ স্মার্টফোন বিক্রি করেছে। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে স্যামসং। গতবছরের তুলনায় এবছর স্মার্টফোনের বেচাকেনা বেড়েছে প্রায় ৯.১ শতাংশ।এর জন্য অবশ্য ক্রেডিট দিতে হচ্ছে ই-কমার্স সাইটগুলিকেই। বিভিন্ন রকমের অফার, ইএমআই এবং ক্যাশব্যাকের মাধ্যমে গ্রাহকদের আকৃষ্ট করছে এই সংস্থাগুলি।

[এই সহজ উপায়ে গুগল ড্রাইভে আজীবন সুরক্ষিত রাখুন হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট]

কিন্তু এই ক্রমবর্ধমান চাহিদা বিপদ ডেকে আনছে গ্রাহকদের। আইডিসির দাবি, যে হারে স্মার্টফোনের বিক্রি বাড়ছে তাতে উৎসাহিত হয়ে প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলি দ্রুত দাম বাড়ানোর পথে হাঁটবে। ইতিমধ্যেই, দুটি বাজেট স্মার্টফোনের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে Realme। Realme C1-এর দাম ১০০০ টাকা বেড়ে এখন ৭ হাজার ৯৯৯ টাকা। অন্যদিকে Realme 2 এর দাম বেড়ে হয়েছে ৯ হাজার ৪৯৯ টাকা। যদিও সংস্থাগুলির দাবি দাম বাড়ানোর কারণ শুধু চাহিদা নয় বরং আর্থিক পরিস্থিতি। আন্তর্জাতিক বাজারে ডলারের তুলনায় টাকার দাম পড়ার কারণেই দাম বাড়ার সম্ভাবনা বেশি। সেই সঙ্গে রয়েছে পরিবর্তিত শুল্ক, আমদানি খরচের পরিমাণ বৃদ্ধি-সহ একাধিক কারণ।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement