৩০ ভাদ্র  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: হোয়াটসঅ্যাপ ছাড়া নিজেকে একমুহূর্ত চিন্তা করাই বর্তমান প্রজন্মের কাছে দুঃসহ ব্যাপার। ভারত থেকে নাকি ব্যবসা গুটিয়ে নিতে পারে সেই সোশ্যাল মেসেজিং অ্যাপ! শুনে আঁতকে উঠতেই পারেন। তবে খবর এমনটাই।

কিন্তু কেন এমন সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা ভাবছে কোম্পানি? হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, কেন্দ্রীয় সরকার তাদের পেমেন্ট সার্ভিসে কোনওরকম সাহায্য করছে না। পেমেন্ট সার্ভিসে গুগল এবং অন্যান্য অনলাইন প্ল্যাটফর্ম হাইক পেলেও হোয়াটসঅ্যাপের সঙ্গে বৈষম্যমূলক আচরণ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ তাদের। আর সেই কারণেই ব্যবসা গুটনোর চিন্তা-ভাবনা।

[বাড়ি বা ফ্ল্যাট কেনার প্ল্যান? এই ওয়েবসাইটগুলিতে সহজেই মিলবে সন্ধান]

দেশজুড়ে একের পর এক গণপিটুনির ঘটনা ছড়িয়ে পড়েছিল এই মেসেজিং অ্যাপের মাধ্যমেও। গণপিটুনির একাধিক ভুয়ো খবরে আতঙ্কিত হয়ে ওঠেন ইউজাররা। সেসব আটকাতে হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষকে কড়া নির্দেশ দেয় কেন্দ্রীয় সরকার। জানানো হয়, ভুয়ো খবর ছড়ানো বন্ধ হলে তবেই হোয়াটসঅ্যাপের পেমেন্ট সার্ভিস এ দেশে শুরু করা হবে। কিন্তু কোনও ভুয়ো খবর ছড়িয়ে পড়লে তা প্রথম কে পাঠিয়েছিল তা খুঁজে বের করা অত্যন্ত কঠিন বলে জানিয়েছে হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষ। তা করতে হলে হোয়াটসঅ্যাপের বর্তমান এনক্রিপশন পলিসিতে ব্যাপক প্রযুক্তিগত পরিবর্তন আনতে হবে। কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রী রবিশংকর প্রসাদ প্রথমে জানিয়েছিলেন, সরকারের দেওয়া প্রস্তাবে রাজি হয়েছে ফেসবুক অধীনস্ত এই মেজেসিং অ্যাপ। কিন্তু পরে হোয়াটসঅ্যাপ জানিয়ে দেয়, তা কোনওভাবেই সম্ভব নয়।

সূত্রের খবর, ভারত সরকার এভাবে তাদের উপর চাপ সৃষ্টি করলে এ দেশ থেকে ব্যবসা গুটিয়ে নিতে বাধ্য হবে বলে জানিয়েছে হোয়াটসঅ্যাপ। এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই নানা মহলে জল্পনা শুরু হয়, তাহলে কি বন্ধ হয়ে যাবে এই জনপ্রিয় মেসেজিং অ্যাপ? বিকল্প কোনও রাস্তা কি নেই? সরকারিভাবে অবশ্য এখনও কিছুই জানায়নি হোয়াটসঅ্যাপ। 

[জানেন, কীভাবে বিনামূল্যে নেটফ্লিক্সে দেখতে পারেন রাধিকার ‘ঘাউল’?]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং