BREAKING NEWS

২০ শ্রাবণ  ১৪২৭  বুধবার ৫ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

আর পাঁচতারা হোটেলে থাকবে না বাথটব!

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: March 2, 2018 1:31 pm|    Updated: March 2, 2018 1:31 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দুবাইয়ের হোটেলে শ্রীদেবীর মৃত্যু। তারপর থেকেই বাথটব নিয়ে হাজারও আলোচনা। কিন্তু, পাঁচতারা বিলাসবহুল হোটেলে বাথটব আর নাও থাকতে পারে। কারণ, জল সংরক্ষণ।

[হোটেলে বিয়ের অনুষ্ঠান, ঘর পেলেন না স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি]

বিলাসবহুল পাঁচতারা হোটেলে গেলেই সুদৃশ্য বাথটবের দিকে নজর পড়ে সকলেরই। সেখানে সুগন্ধী দিয়ে স্নানের ইচ্ছা রয়েছে? তাহলে ভুলতে হবে সেই ইচ্ছা। কারণ পাঁচতারা হোটেলে এবার থেকে বাথটাব নাও থাকতে পারে। এককালে যা ছিল বাধ্যতামূলক। এখন জল সংরক্ষণের কথা মাথায় রেখেই তাই চিরকালের জন্য উঠে যেতে পারে। কারণ একবার কেউ বাথটব ব্যবহার করলে ন্যূনতম ৩৭০ লিটার জল খরচ হয়। এদিকে, শুধুমাত্র শাওয়ার ব্যবহার করলে জল খরচের পরিমাণ ৭০ লিটার। সেদিকটা মাথায় রেখেই এমন ভাবনা।

তাজ, ওবেরয়, কিংবা আইটিসি গ্রুপের হোটেলগুলিও জল সংরক্ষণ ও ব্যস্ত পর্যটক, এই দুই মাথায় রেখেই বদলে ফেলতে পারে স্নানাগারের নকশাও। খুব কম সময়ের জন্য ধরুন কেউ হোটেলে এসেছেন। চটপট স্নান সেরেই বেরিয়ে পড়বেন কাজে কিংবা ঘুরতে, তখন? সময়ের সঙ্গে তাল মেলাতেই এলাহিভাবে নয়, চটজলদি স্নানই চাইছেন পর্যটকরা। এছাড়া জলসংরক্ষণ করাও একটা বড় কারণ। নতুন নিয়মের কারণে পাঁচতারা হোটেলের ক্ষেত্রে বাথটব থাকাও বাধ্যতামূলক নয়। মুম্বই, কলকাতা, বেঙ্গালুরু, চেন্নাই-সহ মেট্রো শহরগুলির ক্ষেত্রে পাঁচতারা হোটেলের ঘরে শাওয়ার কিউবিকল একটা অন্যরকম ব্যাপার ছিল এককালে। জয়পুর ও কেরলেও বিলাসিতা স্নানের জন্য আলাদা একটা বিভাগই ছিল পাঁচতারায়।

[নিউ ইয়র্কের হোটেলে বহাল তবিয়তে নীরব মোদি, ধনকুবেরকে নোটিস ইন্টারপোলের]

তবে জীবনযাত্রার পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে তা বদলেছে। নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক এক পাঁচতারা হোটেলের সহ-সভাপতি বলেন, হোটেল সংস্থার সিদ্ধান্তের উপর নির্ভর করবে আদৌ পাঁচতারায় বাথটব থাকবে না উঠে যাবে। সাম্প্রতিককালে শ্রীদেবীর মৃত্যুর পরই বাথটব নিয়ে হাজারও বিতর্ক তৈরি হয়। তারপরেই জল সংরক্ষণ নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠতে থাকে। এই পরিস্থিতিতে পাঁচতারা হোটেলগুলিতে বাথটব তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়াও হতে পারে। তবে আলোচনার পরেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার ইঙ্গিত দিয়েছেন হোটেল মালিকদের সংগঠন।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement