৫ শ্রাবণ  ১৪২৬  রবিবার ২১ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

কলহার মুখোপাধ্যায়: বেশ কিছুদিন ধরেই ব্যাঙ্কের কাজ ঘরে বসেই করছেন৷ কোনও সমস্যাই হয়নি এখনও পর্যন্ত৷ হঠাত্‍ একদিন লক্ষ্য করলেন অ্যাকাউন্টে জমা টাকার হিসাবে গরমিল৷ ব্যাঙ্কে গিয়ে জানলেন সব লেনদেন বৈধভাবেই হয়েছে৷ অথচ মোটা অঙ্কের টাকা বেরিয়ে গেছে কোনও এক ছিদ্রপথে৷ আপনি জানেন না কী ভাবে! ব্যাঙ্কও অবহিত নয়৷ তাহলে কি প্রতারকের পাল্লায় পড়ে গেছেন আপনি?
এককথায় হ্যাঁ৷
জেনে রাখুন, মোট পাঁচরকম ভাবে আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের কবজা নিতে পারে জালিয়াতরা৷
১. লিংক ম্যানিপুলেশন:
এই পদ্ধতিতে আপনার ই-মেলের সঙ্গে নানা লিংক জুড়ে দেয় প্রতারকরা যার ফলে আপনি অসচেতনভাবে সেখানে ক্লিক করলেই আক্রমণকারীদের ডেটাবেসে ঢুকে পড়েন এবং প্রতারিত হতে পারেন৷
২. ফিল্টার ইভাশন:
যাতে অনলাইন ব্যাঙ্কিং সিস্টেম সঠিকভাবে ফিল্টার করতে না পারেন তার জন্য প্রতারকরা লেখার বদলে ছবি ব্যবহার করে নানা ট্র্যাপ পাতে৷
৩. ফিশিং অ্যাটাক:
আসলের মতো দেখতে জাল ওয়েব পেজে আপনার ব্যাঙ্ক সংক্রান্ত বিষয় আপডেট করার জন্য লিংক জুড়ে দেওয়া হয়৷ সেখানে ক্লিক করলেই আক্রমণকারীর কবলে পড়ে যাবেন৷
৪. ম্যালওয়ার অ্যাটাক:
আক্রমণকারীরা অনেকসময় অ্যাটাচমেন্টের সঙ্গে এই জাতীয় ভাইরাস পাঠিয়ে অ্যাকাউন্ট ট্র্যাপ করতে পারে৷
৫. ক্ল্যাম্পি:
এই নামের ভাইরাসের সাহায্যে ব্যাঙ্ক ও ক্রেডিট কার্ড সংক্রান্ত কোম্পানির ওয়েবসাইটে আক্রমণ৷ এর আগে গাম্বলার, নাইন বল জাতীয় ই-ভাইরাস বিশ্বকে ভুগিয়েছে৷ ক্ল্যাম্পি ভাইরাস ইন্টারনেটের মাধ্যমে দ্রুত ছড়িয়ে পরে কমপিউটারে৷ সেই কমপিউটারে কোনও ব্যাঙ্ক বা ওয়েবসাইট ক্রেডিট কার্ড কোম্পানির ওয়েবসাইট খুললে ক্ল্যাম্পি তার ওপর নজর রাখে৷ আর আপনার আইডি, পাসওয়ার্ড ও তথ্য চুরি করে৷
তাহলে বিপদ থেকে বাঁচার উপায় কী?
১. আপনার মেলে আসা কোনও লিংক-এ কখনও ক্লিক করবেন না৷ এটা সর্বদা মনে রাখবেন, কোনও ব্যাঙ্ক অনলাইনে আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের আপডেট জানতে চায় না৷
২. অচেনা ব্যক্তিকে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট ডিটেল দেবেন না৷
৩. অ্যাকাউন্ট নম্বর বা পাসওয়ার্ড কোথাও লিখে রাখবেন না৷ মনে রাখার চেষ্টা করুন৷
৪. ইন্টারনেট ব্রাউজার সব সময়ে ফিসিং ফিল্টারের মাধ্যমে ফিল্টার করুন৷
৫. নিশ্চিত না হয়ে ওয়েবসাইটের কোনও ছবিতে ক্লিক করবেন না৷
৬. ব্যাঙ্ক তথ্য দেওয়ার সময় সতর্ক থাকুন৷ ভাবুন, জরুরি বিষয়ে কিছু বলার থাকলে ব্যাঙ্ক ডেকে না পাঠিয়ে মেল করল কেন?
৭. অনলাইন লেনদেনের আগে ও পরে সমস্ত তথ্য মুছে ফেলুন৷
৮. সব সময়ে ভার্চুয়াল কিবোর্ড ব্যবহার করুন৷
৯. সাইবার ক্যাফেতে অনলাইন ব্যাঙ্কের কাজ না করার চেষ্টা করুন৷
নিশ্চিন্ত থাকতে পারেন, অনলাইন ব্যাঙ্কিং-এর ক্ষেত্রে এই নিয়মগুলি মেনে চললে নিরাপত্তা সুনিশ্চিত হবে৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং