×

৪ ফাল্গুন  ১৪২৫  রবিবার ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: গিরিডি৷ ঝাড়খণ্ডের অন্যতম জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র৷ বিশেষ করে যাঁরা ধর্মস্থানে যেতে ভালবাসেন, তাঁদের এই জায়গা অত্যন্ত পছন্দের৷ পাহাড়ের বুক চিরে তৈরি হয়েছে নানা মন্দির৷ শুধু মন্দিরই নয়, প্রকৃতিপ্রেমীদেরও এ স্থান ভাল লাগবে৷ বর্ষার ক’টা দিন অন্যরকমভাবে কাটাতে পাড়ি দিতে পারেন গিরিডিতে৷

প্রথমেই চলে যান পরশনাথ পাহাড়ে৷ ৪৪৩১ ফুট উচ্চতা বিশিষ্ট এই পাহাড়টিই দক্ষিণ হিমালয়ের উচ্চতম অংশ৷ এখানকার জৈন মন্দিরটি দেশের প্রাচীনতম মন্দিরগুলোর মধ্যে একটি৷ দূর-দূরান্ত থেকে ভক্তরা হাজির হন এখানে৷ কেউ আবার শুধুমাত্র পাহাড়ের সৌন্দর্যের সাক্ষী হতেও পৌঁছে যান পরশনাথ৷

unnamed

পরশনাথ থেকে এবার খানিকটা নিচে নেমে আসুন৷ চলে যান খান্দোলি পার্কে৷ জলকে নানাভাবে কাজে লাগিয়ে তৈরি হয়েছে এই পরিবেশবান্ধব পার্ক৷ হাতি ও উটের পিঠে চেপে পার্কের মধ্যে ঘোরার ব্যবস্থাও রয়েছে৷ ৬০০ ফুট উচ্চতার ওয়াচ-টাওয়ার থেকে খান্দোলির অপরূপ ভিউ ক্যামেরাবন্দি করতে ভুল করবেন না৷

পরের দিন দেখে নিন উসরি ফলস৷ অন্যান্য ঝরনার সঙ্গে এর তফাৎ হল এই যে, মাত্র ৪০ ফুট উচ্চতা থেকে জল নিচে নেমে আসে৷ চড়ুইভাতির জন্য এই জায়গা বেশ জনপ্রিয়৷

_13715567746

গিরিডিতে গেলে অবশ্যই মধুবনে যাবেন৷ এই গ্রামে দু’টি প্রাচীন জৈন মন্দির রয়েছে৷ স্থানীয়দের থেকে জানা গিয়েছে মন্দির দু’টি প্রায় ২০০০ বছর পুরনো৷ রয়েছে একটি জাদুঘরও৷  যেখানে জৈন ধর্ম সংক্রান্ত বিভিন্ন জিনিস সংরক্ষিত আছে৷  হাতে সময় থাকলে হরিহর ধামও ঘুরে নিতে পারেন৷

কীভাবে যাবেন
হাওড়া থেকে গিরিডি যাওয়ার প্রচুর এক্সপ্রেস ট্রেন রয়েছে৷ মধুপুর জংশনে গিয়ে নামতে হবে৷ এছাড়া বাস রাস্তাতেও যেতে পারেন৷

কোথায় থাকবেন
স্টেশন থেকে পর্যটন কেন্দ্রগুলো খুব একটা দূরে নয়৷ সেক্ষেত্রে স্টেশনের কাছাকাছি হোটেল ও গেস্ট হাউস বুক করতে পারেন৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং