Advertisement
Advertisement
Sanskrit

ঝরঝরে সংস্কৃতে যাত্রীর সঙ্গে কথোপকথন! ক্যাব চালকের মুখে মন্ত্রের ভাষা শুনে মুগ্ধ নেটিজেনরা

ভিডিও দেখে নতুন করে সংস্কৃত শেখায় আগ্রহ দেখালেন অনেকে।

A Viral Video of Bengaluru cab driver speaks in fluent Sanskrit | Sangbad Pratidin
Published by: Kishore Ghosh
  • Posted:November 13, 2022 5:32 pm
  • Updated:November 13, 2022 5:34 pm

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সংস্কৃত (Sanskrit) ছিল ভারতীয় সংস্কৃতি (Indian Culture) চর্চার ভাষা। এদেশের অধিকাংশ মহাকাব্য ও শাস্ত্র এই ভাষাতে রচিত। অপ্রিয় সত্য হল সেই ভাষাকেই ভুলতে বসেছে ভারতীয়রা। বিদেশি ভাষা ইংরেজিতে দক্ষ এদেশের যত মানুষ, তার অর্ধেক মানুষও সংস্কৃত বলতে বা পড়তে পারেন না। কিন্তু বেঙ্গালুরুর (Bengaluru) এক ক্যাব চালক (Cab Driver) অনর্গল সংস্কৃত বলে চমকে দিয়েছেন নেটিজেনদের। ভাইরাল হয়েছে সেই ভিডিও (Viral Video)।

বেঙ্গালুরুর ওই ক্যাব চালকের নাম জানা যায়নি, তবে তাঁর সংস্কৃতে কথা বলার দক্ষতা দেখে চমকেছে জনতা। সোশ্যাল মিডিয়ায় (Social Media) ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা গিয়েছে, যাত্রীর সঙ্গে বিশুদ্ধে সংস্কৃতে কথা বলছেন ক্যাব চালাক যুবক। যুবকের সংস্কৃত উচ্চারণে স্পষ্ট তিনি এই ভাষাটিত রীতিমতো সড়গড়। প্রায় মাতৃভাষার মতো দক্ষতা দেখা গিয়েছে ক্যাব চালকের মধ্যে। সংস্কৃতে ওই ক্যাব চালক জানিয়েছেন, গত দশ বছর ধরে তিনি মাঝে মাঝেই সংস্কৃতে কথা বলেন। এই ভাষা চর্চা করেন তিনি। গোটা ঘটনায় চমকে গিয়েছে নেটিজেন।

Advertisement

[আরও পড়ুন: ‘রাত ৯টা পর্যন্ত বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা মারতে দিতে হবে,’ কনের সঙ্গে চুক্তি হবু বরের]

ক্যাব চালকের সঙ্গে যাত্রীও কথোপকথন চালান সংস্কৃতে। আচমকা বিশুদ্ধ ভারতীয় ভাষার আবহাওয়া তৈরি হয় চলন্ত ক্যাবটিতে। যা দেখে ও শুনে মুগ্ধ হয় নেটিজেরা। সকলে ক্যাব চালকের দক্ষতাকে কুর্নিশ জানান। অন্যদিকে নিজেদের অপারগতায় হতাশা ব্যক্ত করেন। কেউ কেউ নতুন করে সংস্কৃত শেখার আগ্রহ প্রকাশ করেন।

Advertisement

[আরও পড়ুন: স্বস্তি রামদেবের, পতঞ্জলির ওষুধ উৎপাদনে নিষেধাজ্ঞা তুলল সরকার]

প্রসঙ্গত, হিন্দি (Hindi) ভার্সেস আঞ্চলিক ভাষার লড়াই ভূভারতে সুবিদিত। মোদি সরকারের (Modi Goverment) প্রতিনিধি অমিত শাহ (Amit Shah) একাধিকবার জাতীয় পর্যায়ে হিন্দির জন্য সওয়াল করেন। অথচ সংস্কৃতের মতো একটি সর্বভারতীয় ভাষা রয়েছে ভারতে। যা মূলত ভারতীয় সংস্কৃতির চর্চার জন্যই সৃষ্টি করেছিলেন এদেশের পণ্ডিত পূর্বপুরুষরা। যদিও মাঝপথে দুর্বল হয়ে যায় সেই চর্চা। সেই কারণেই আজকে কেবল বৈদিক মন্ত্রের ভাষা হয়ে রয়ে গিয়েছে সংস্কৃত।  

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ